এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > কলকাতা > বড়সড় প্রশ্নের মুখে এবার রাজ্যের হেভিওয়েট মন্ত্রী, কি উত্তর দিলেন!

বড়সড় প্রশ্নের মুখে এবার রাজ্যের হেভিওয়েট মন্ত্রী, কি উত্তর দিলেন!



 

ভোট আসে ভোট যায়। কিন্তু ঠিকমত উন্নয়ন না হওয়ার কারণে সাধারণ মানুষ নেতা বা মন্ত্রী হয়ে যাওয়া সেই সমস্ত ব্যক্তিদের প্রশ্ন করার ইচ্ছে থাকলেও, সেই সুযোগ পান না কেউ। কারণ তারা আর সেভাবে ভোটে জেতার পর সাধারণ মানুষের কাছে আসেন না বলে নানা সময় অভিযোগ ওঠে। কিন্তু লোকসভা নির্বাচনে তৃণমূল ধাক্কা খাওয়ার পর বিধানসভা নির্বাচনে যাতে তারা ভালো করেন, তাঁর জন্য ইতিমধ্যেই প্রশান্ত কিশোরের মস্তিষ্কপ্রসূত দিদিকে বলো কর্মসূচীর মধ্যে দিয়ে সাধারণ মানুষের কাছে পৌঁছাতে শুরু করেছে ঘাসফুল শিবির।

আর এই “দিদিকে বলো” কর্মসূচির মধ্য দিয়ে এখন তৃণমূল নেতা মন্ত্রীদের নিজেদের কাছে পাচ্ছেন সাধারন মানুষ। আর এবার রাজ্যের জনস্বাস্থ্য কারিগরী মন্ত্রী সৌমেন মহাপাত্রকে কাছে পেয়ে প্রশ্ন করলেন সাধারণ মানুষ। বস্তুত, রবিবার পিংলা বিধানসভার কুসুমদা গ্রাম পঞ্চায়েতের জিন্দা গ্রামে যান সৌমেন মহাপাত্র।

আর সেখানেই ব্লক যুব তৃনমূলের পক্ষ থেকে দিদিকে বলো কর্মসূচির আয়োজন করা হয়েছিল। আর সেখানে গিয়ে দল থেকে ঠিক করে দেওয়ার বেশ কিছু ব্যক্তির সঙ্গে এই কর্মসূচির অংশ হিসেবে দেখা করেন মন্ত্রীমশাই। আর সেখানে সাধারণ মানুষের তরফে রাস্তাঘাট থেকে শুরু করে পানীয় জলের সমস্যার কথা মন্ত্রীর কাছে তুলে ধরা হয়।


দেশে যে কোনো দিন ব্যান হয়ে যেতে পারে হোয়াটস্যাপ। তাই এখন থেকে আমরা শুধুমাত্র টেলিগ্রাম ও সিগন্যাল অ্যাপে। প্রিয় বন্ধু মিডিয়ার নিউজ নিয়মিতভাবে পেতে যোগ দিন –

টেলিগ্রাম গ্রূপটাচ করুন এখানে

সিগন্যাল গ্রূপটাচ করুন এখানে



আপনার মতামত জানান -

জানা যায়, এই গ্রামের জল সমস্যার সমাধান করবার জন্য বারবার গ্রামবাসীর তরফে দাবি জানানো হয়েছিল। প্রায় এক বছর আগে এই গ্রামে জনস্বাস্থ্য কারিগরী দপ্তরের মাধ্যমে সুদছড়ায় একটি জলাধার করা হয়। যেখানে জল সরবরাহ প্রকল্পের অনুমোদন দেওয়া হয়। কিন্তু এখনও পর্যন্ত সেই প্রকল্প বাস্তবায়িত হয়নি। আর এদিন রাজ্যের মন্ত্রীকে কাছে পেয়ে সেই কথাই তুলে ধরেন গ্রামবাসীরা।

বাসিন্দারা প্রশ্ন করেন, “জল প্রকল্প হবে। কিন্তু কবে! বছর তো পার হয়ে গেল!” আর বাসিন্দাদের মুখ থেকে এই কথা শুনে কিছুটা হলেও অস্বস্তিতে পড়েন মন্ত্রী সৌমেন মহাপাত্র। বিষয়টি নিয়ে পদক্ষেপ করার আশ্বাস দেন তিনি। পরবর্তীতে এই ব্যাপারে মন্ত্রী বলেন, “জল নিয়ে কিছু মানুষ সমস্যার কথা বলেছেন। ওটা আমার দপ্তরের বিষয়। আমি ওদের সমাধানের আশ্বাস দিয়েছি। সঙ্গে সঙ্গে ইঞ্জিনিয়ারদেরও বিষয়টি দেখতে বলেছি।”

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, উন্নয়নের কাজে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় হয়ত বা কোনো ঢিলেমি করেননি। কিন্তু নীচুতলার অনেকের জন্য যেই প্রকল্পগুলো অনেক ক্ষেত্রে বাস্তবায়িত হয়নি। আর তার জন্যই যে সাধারণ মানুষের মনে ক্ষোভ জমেছে, তা এদিনের এই ঘটনা থেকেই পরিষ্কার হয়ে গেল বলে মনে করছেন বিশেষজ্ঞরা। এখন মন্ত্রীর আশ্বাস দেওয়ার পরও জল প্রকল্প ঠিক কবে গড়ে ওঠে! সেদিকেই নজর থাকবে সকলের।

আপনার মতামত জানান -

ট্যাগড
Top
Facebook Friends
error: Content is protected !!