এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > উত্তরবঙ্গ > হেভিওয়েট মন্ত্রীর সামনে ক্ষোভ তৃণমূল নেতাকর্মীদের ! জোর গুঞ্জন!

হেভিওয়েট মন্ত্রীর সামনে ক্ষোভ তৃণমূল নেতাকর্মীদের ! জোর গুঞ্জন!



উত্তরবঙ্গে এবারের পৌরসভা নির্বাচনে তৃণমূলের প্রধান টার্গেট বাম দুর্গ বলে পরিচিত শিলিগুড়ি পৌরসভা দখল। গত 2011 সালে তৃণমূল কংগ্রেস বামেদেরকে হটিয়ে রাজ্যের ক্ষমতায় আসলেও, শিলিগুড়ি পৌরসভা দখল করতে তারা অপারগ ছিল। তবে এবারে স্থানীয় নেতা থেকে শুরু করে মন্ত্রীদের গলায় শোনা যাচ্ছে, সেই শিলিগুড়ি পৌরসভা দখলের জন্য সমস্ত রকম প্রস্তুতির কথা। তবে শিলিগুড়ি পৌরসভায় প্রভাব-প্রতিপত্তি বিস্তার করা বামেদেরকে হারাতে গেলে সংগঠনকে অনেকটাই শক্তিশালী করতে হবে তৃণমূল কংগ্রেসের।

কিন্তু সেই সংগঠন যে এখনও অনেকটাই দুর্বল, তা প্রকাশ পেল জেলা তৃণমূলের পর্যবেক্ষক তথা মন্ত্রী অরূপ বিশ্বাসের গলায়। সূত্রের খবর, বৃহস্পতিবার শিলিগুড়ির কাঞ্চনজঙ্ঘা স্টেডিয়ামে হলঘরে দলের নেতাকর্মীদের নিয়ে একটি বৈঠক করেন অরূপ বিশ্বাস। যেখানে বিগত দিনে তৃণমূলের সমস্ত কাউন্সিলর সহ 47 টি ওয়ার্ডের সমস্ত শাখা সংগঠনের নেতারা উপস্থিত ছিলেন। আর সেই সভাতে উপস্থিত জেলা পর্যবেক্ষকের সামনে বিভিন্ন বিষয়ে তাদের ক্ষোভ উগরে দেন তৃণমূলের বিভিন্ন ওয়ার্ডের নেতাকর্মীরা।

জানা যায়, এই সভাতে উপস্থিত তৃণমূলের এক নেত্রী বলেন, “প্রতিটি ভোটের সময় আমরা ময়দানে মাটি কামড়ে পড়ে থাকি। কিন্তু মুখ্যমন্ত্রীর নেতাজি ইন্ডোর স্টেডিয়ামের সভার আমন্ত্রণ পত্র অনেকেই দেওয়া হয়নি।” অন্যদিকে বিগত দিনে পৌরসভা নির্বাচনে প্রার্থী বাছাই ঠিকমত করা হয়নি বলেও উষ্মা প্রকাশ করেন তৃণমূলের কর্মী। পাশাপাশি এবার প্রার্থী নির্বাচন অত্যন্ত দক্ষতার সহকারে করতে হবে এবং গোষ্ঠীদ্বন্দ্ব বন্ধ করতে হবে বলেও জানান এক তৃণমূল কর্মী। আর এই সমস্ত কথা শুনেই শিলিগুড়িতে সংগঠন নিয়ে উষ্মা প্রকাশ করেন পর্যবেক্ষক তথা মন্ত্রী অরূপ বিশ্বাস।

ফেসবুকে আমাদের নতুন ঠিকানা, লেটেস্ট আপডেট পেতে আজই লাইক ও ফলো করুন – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের টেলিগ্রাম গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের সিগন্যাল গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে



আপনার মতামত জানান -

সূত্রের খবর, সভায় তিনি বলেন, “শিলিগুড়িতে এখনও সংগঠন দুর্বল রয়েছে। নেতাদের মধ্যে সমন্বয়ের অভাব রয়েছে। ছাত্র, যুব সংগঠন থেকে কোনো সাপ্লাই নেই। যারা আসছেন, তারাও ভেজাল। এখন বিরোধীদের ছাত্র সংগঠন সক্রিয়। এভাবে আর চলবে না। এটা মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের টিম। কার মাথায় কত চুল আছে, কে কত ফর্সা, সমস্ত কিছু জানে পিকের টিম। এবার স্বার্থ ভুলে পাপের প্রায়শ্চিত্ত করতে হবে। এবার পৌরভোটে প্রার্থী পদের জন্য কাউকে দৌড়ঝাঁপ করতে হবে না। যার সব থেকে বেশি গ্রহণযোগ্যতা, তাকেই প্রার্থী করা হবে। তালিকা বানাবেন দলনেত্রী। এসব নিয়ে না ভেবে ভোটের ময়দানে নামুন। অশোক ভট্টাচার্যের ব্যর্থতা পাড়ায় পাড়ায় তুলে ধরুন।”

তবে ঘরোয়া সভায় তিনি এই সমস্ত কথা বললেও, বাইরে বেরিয়ে এসে সাংবাদিকদের মুখোমুখি হয়ে এবারের শিলিগুড়ি পৌরসভায় তারাই জিতবেন বলেই দাবি করেন অরূপ বিশ্বাস। কিন্তু অরূপবাবু যে কথাই বলুন না কেন, শিলিগুড়িতে তাদের সংগঠনের অনৈক্য ভাব যে বারেবারে ফুটে উঠছে, তা কার্যত স্পষ্ট। এখন তা বন্ধ করতে জেলা পর্যবেক্ষক তথা মন্ত্রীর এই নির্দেশ কতটা মান্যতা দিয়ে কাজ করেন দলের নেতাকর্মীরা, সেদিকেই নজর থাকবে সকলের।

আপনার মতামত জানান -

ট্যাগড
Top
error: Content is protected !!