এখন পড়ছেন
হোম > বিশেষ খবর > রাজ্যজুড়ে প্রবল গেরুয়া ঝড়ের ইঙ্গিত মিলতেই পদ ছাড়ার পথে হেভিওয়েট ‘ডাকাবুকো’ তৃণমূল নেতা

রাজ্যজুড়ে প্রবল গেরুয়া ঝড়ের ইঙ্গিত মিলতেই পদ ছাড়ার পথে হেভিওয়েট ‘ডাকাবুকো’ তৃণমূল নেতা



নির্বাচনের আগে থেকেই বা নির্বাচনী প্রচারে বারেবারেই তৃণমূল নেত্রী দাবি করেছিলেন, গোটা রাজ্যে কোথাও নাকি কোনো বিজেপি নেই! গেরুয়া শিবিরের নেতারা নোট ছড়িয়ে, ঝাড়খন্ড-বিহার থেকে লোক ধরে এনে প্রমান করতে চাইছেন এ রাজ্যে বিজেপির অস্তিত্ব! আর তাই গতবার (২০১৪-এর লোকসভা নির্বাচনে) রাজ্য থেকে বিজেপি দুটো আসন পেলেও এবার নাকি – ‘গোল্লা পাবে গোল্লা’! আর রাজ্য থেকে ৪২ এ ৪২ করে কেন্দ্রেও এবার ‘মা-মাটি-মানুষের’ সরকার গড়বেন তিনি! অর্থাৎ দেশের পরবর্তী প্রধানমন্ত্রীর নাম হবে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

অন্যদিকে, মুচকি হেসে গেরুয়া শিবিরের নেতাদের দাবি ছিল, এবারের নির্বাচনে বাংলা থেকে অন্তত ২২-২৩ টি আসন পেতে চলেছেন তাঁরা। আর তারপরেই নাকি তৃণমূলের নেতা-বিধায়করা লাইন দিয়ে গেরুয়া শিবিরে যোগ দেবেন, এই রাজ্য আর তৃণমূল সরকারটাই নাকি থাকবে না! বাংলায় এবার হবে ‘পরিবর্তনের পরিবর্তন’! উনিশে হাফ আর একুশে সাফ – এই স্লোগানে ভর করে ২২-২৩ টি আসন হয়ত যায় নি গেরুয়া শিবিরের দখলে – কিন্তু মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের দাবিকে নস্যাৎ করে বাংলায় ২ থেকে বেড়ে গেরুয়া শিবির আপাতত ১৮, আর তারপরেই শাসকদলে ভাঙ্গনের জল্পনা আরও তীব্র হয়েছে।


WhatsApp-এ প্রিয় বন্ধু মিডিয়ার খবর পেতে – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের অন্যান্য সোশ্যাল মিডিয়া গ্রূপের লিঙ্ক – টেলিগ্রামফেসবুক গ্রূপ, ট্যুইটার, ইউটিউব, ফেসবুক পেজ

আমাদের Subscribe করতে নীচের বেল আইকনে ক্লিক করে ‘Allow‘ করুন।

এবার থেকে আমাদের খবর পড়ুন DailyHunt-এও। এই লিঙ্কে ক্লিক করুন ও ‘Follow‘ করুন।



আপনার মতামত জানান -

আর, এর মাঝেই বিস্ফোরক ইঙ্গিত দিলেন শাসকদলের হেভিওয়েট ডাকাবুকো নেতা বলে পরিচিত তথা বীরভূম জেলা তৃণমূল কংগ্রেস সভাপতি অনুব্রত মন্ডল। তিনি সংবাদমাধ্যমের সামনে স্পষ্ট ইঙ্গিত দিলেন যে এবার নাকি তিনি বীরভূম জেলার সভাপতি পদ ছাড়ার ভাবনা চিন্তা করছেন! রাজ্যজুড়েই গেরুয়া উত্থানের মাঝেও অনুব্রতবাবুর হাত ধরে তৃণমূল বীরভূম জেলার দুটি লোকসভা আসন ধরে রাখতে পেরেছে, যদিও অনুব্রতবাবু যেরকম দাবি করেছিলেন সেইরকম মার্জিন ধরে রাখতে পারে নি তৃণমূল। এমনকি খোদ অনুব্রতবাবুর খাসতালুক বলে পরিচিত বোলপুরে এগিয়ে গেছে বিজেপি।

এমনকি বোলপুরের যে ওয়ার্ডে তাঁর বাস, সেই ১৫ নম্বর ওয়ার্ডেও বিজেপির পিছনে আছে তাঁর দল। আর এরপরেই অনুব্রত মন্ডলের পদ ছাড়ার ইঙ্গিতে রীতিমত শোরগোল পরে গেছে রাজ্য-রাজনীতিতে। কেননা, অনুব্রত মন্ডল মানেই কখনো পুলিশকে বোমা মারা, কখনো বিরোধীদের বাড়ি জ্বালিয়ে দেওয়া, কখনো গুড়-বাতাসা, কখনো ঢাকের চরাম-চরাম, কখনো রাস্তায় দাঁড়িয়ে উন্নয়ন তো কখনো নকুলদানা তত্ত্ব। কিন্তু, গেরুয়া শিবিরের নেতারা আগেই জানিয়ে রেখেছিলেন, বাংলার মানুষ যেভাবে রাগে ফুঁসছেন, তাতে খুব শীঘ্রই অনুব্রতবাবুর ঘরের ভিতরে উন্নয়ন দাঁড়িয়ে থাকবে! আর এইসবের পরিপ্রেক্ষিতে বিজেপির উত্থানের সরকারি সিলমোহরের পরেই তাঁর পদ ছাড়তে চাওয়ার ইঙ্গিতে রাজ্য-রাজনীতিতে নতুন করে শুরু হল জল্পনা।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!