এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > নদীয়া-২৪ পরগনা > হেভিওয়েট বিজেপি নেতার বিরুদ্ধে মহিলা কর্মীর শ্লীলতাহানীর অভিযোগ! জোর চাঞ্চল্য!

হেভিওয়েট বিজেপি নেতার বিরুদ্ধে মহিলা কর্মীর শ্লীলতাহানীর অভিযোগ! জোর চাঞ্চল্য!



প্রিয় বন্ধু মিডিয়া রিপোর্ট – 2021 এর বিধানসভা নির্বাচনকে পাখির চোখ করে যখন বিজেপি নিজেদের ব্লুপ্রিন্ট সাজাতে ব্যস্ত এবং তৃণমূলকে অস্বস্তিতে ফেলতে পরিকল্পনা করছে, ঠিক তখনই নিজেদের মধ্যে অন্তর্দ্বন্দ্বে বিপাকে পড়তে দেখা যাচ্ছে ভারতীয় জনতা পার্টিকে। পুরনো বনাম নতুনের বিবাদ নতুন করে সংযুক্ত হয়েছে গেরুয়া শিবিরের অন্দরমহলে। যার ফলে মাঝেমধ্যেই নেতায়-নেতায় বিবাদ এবং সংঘর্ষ বিজেপির গঠনতন্ত্র এবং শৃঙ্খলাকে প্রশ্নের মুখে দাঁড় করাচ্ছে। আর এবার নিজের দলের মহিলা কর্মীকে শ্লীলতাহানি করার অভিযোগ গ্রেপ্তার হলেন বিজেপি নেতা স্বরূপ দত্ত। যে ঘটনায় ব্যাপক চাঞ্চল্য ছড়িয়ে পড়েছে বিজেপির অন্দরে।

প্রসঙ্গত উল্লেখ্য, সাংগঠনিক পদে রদবদলের পর গত রবিবার দলীয় কর্মসূচিতে যোগ দিতে বারুইপুরে যান বিজেপি নেতা অনুপম হাজরা। এদিকে তাঁকে দেওয়া সংবর্ধনা দেওয়ার পর সেখানে বিজেপির পক্ষ থেকে একটি বৈঠক করা হয়। আর এই বৈঠককে কেন্দ্র করে অশান্তি শুরু হলে বিজেপির মহিলা কর্মীদের সেখানে মারধর করা হয় বলে অভিযোগ ওঠে। জানা যায়, কিছুদিন আগেই জেলা সম্পাদক হিসেবে নির্বাচিত হয়েছিলেন স্বরূপ দত্ত। এদিন বিজেপির কার্যালয়ে ঢুকে তৃণমূলের দুষ্কৃতীদের সঙ্গে নিয়ে তিনি অশান্তি শুরু করেন। আর এরপরই জেলা সম্পাদক স্বরূপ দত্ত এবং মন্ডল সভাপতি দেবপম চট্টোপাধ্যায়ের বিরুদ্ধে বিজেপির মহিলা মোর্চার কর্মীরা শ্লীলতাহানীর অভিযোগ তুলে সরব হন।

যার পরবর্তী সময়কালে বিজেপি মহিলা মোর্চার পক্ষ থেকে মধুমিতা রায় নামে এক মহিলা বারুইপুর থানায় সেই স্বরুপবাবুর বিরুদ্ধে একটি অভিযোগ দায়ের করেন। আর এরপর বুধবার সন্ধ্যার পর পুলিশের পক্ষ থেকে জেলা বিজেপির সাধারণ সম্পাদক স্বরূপ দত্তকে গ্রেফতার করা হয়। স্বাভাবিক ভাবেই নিজেদের দলের মহিলা মোর্চার নেত্রী দলের আরেক নেতার বিরুদ্ধে শ্লীলতাহানির অভিযোগ করায় এবং পুলিশের পক্ষ থেকে সেই বিজেপি নেতাকে গ্রেপ্তার করায় এখন ব্যাপক অস্বস্তিতে পড়েছে ভারতীয় জনতা পার্টি।

অনেকে বলছেন, এতদিন তৃণমূলের অন্তর্কোন্দল নিয়ে বিজেপির পক্ষ থেকে অভিযোগ করা হত। কিন্তু এবার যেভাবে বিজেপি নেত্রী এক বিজেপি নেতার বিরুদ্ধে থানায় অভিযোগ দায়ের করলেন এবং তার ভিত্তিতে গ্রেপ্তার হলেন সেই বিজেপি নেতা, তাতে তৃণমূল এখন বিজেপি অন্তর্কোন্দল নিয়ে তাদেরকে আরও বেশি করে কোণঠাসা করতে উদ্যোগী হবে। যার ফলে 2021 এর বিধানসভা নির্বাচনের আগে এই এলাকায় অস্বস্তিতে পড়তে হতে পারে গেরুয়া শিবিরকে।

এদিন এই প্রসঙ্গে বিজেপির পূর্ব জেলা দলীয় কার্যালয়ের সভাপতি হরেকৃষ্ণ দত্ত বলেন, “যারা এই ঘটনার সঙ্গে যুক্ত, তারা কেউ বিজেপি নয়। তৃণমূলের দুষ্কৃতীদের যোগসাজশে এই ঘটনা ঘটেছে। এখানে পুরোনো নতুনের কোনো বিবাদ নেই।” তবে তৃণমূলের পক্ষ থেকে দাবি করা হয়েছে, বিজেপির অন্তর্কোন্দলের ফলেই এই ঘটনা ঘটেছে। বিজেপি আগে নিজেদের ঘর সামলাক। তারপরে রাজ্যের ক্ষমতা দখলের স্বপ্ন দেখবে। সব মিলিয়ে বারুইপুরের এই ঘটনায় বিজেপি মহিলা মোর্চার কর্মীর অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে জেলা বিজেপির নেতা গ্রেফতার হওয়ায় বিজেপির অস্বস্তি কতটা বাড়ে, সেদিকেই নজর থাকবে সকলের।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!