এখন পড়ছেন
হোম > জাতীয় > গরু মন্ত্রিসভা গঠন করার সিদ্ধান্ত এবার এই বিজেপি শাসিত রাজ্যে, নেট দুনিয়ায় হৈচৈ!

গরু মন্ত্রিসভা গঠন করার সিদ্ধান্ত এবার এই বিজেপি শাসিত রাজ্যে, নেট দুনিয়ায় হৈচৈ!



প্রিয় বন্ধু মিডিয়া রিপোর্ট- ভারতবর্ষের মত দেশে গরুকে ঈশ্বরের স্থান দেওয়া হয়। সেটি যে কেবল একটি প্রাণী নয়, বস্তুত গোমাতা হিসাবেই প্রত্যক্ষ করা হয় এই প্রাণীটিকে। সেইসঙ্গে বিরোধীদের কথায় বিজেপি ক্ষমতায় আসার পরে দেশে গো সুরক্ষা নিয়ে অনেক বেশি তৎপরতা লক্ষ্য করা যাচ্ছে বলেই দাবি করেছেন অনেক বিশেষজ্ঞরা। তবে এবার সেক্ষেত্রে মধ্যপ্রদেশ সরকারের নতুন সিদ্ধান্ত সেই কর্মসূচিতে আরও একটি নতুন স্থান যোগ করল বলেই মনে করছেন অনেকে।

বস্তুত, মধ্যপ্রদেশ সরকার গরুদের রক্ষার জন্য এবার গরু মন্ত্রিসভা গঠন করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে বলে জানা গেছে। সম্প্রতি টুইট করে তিনি এই সিদ্ধান্তের কথা জানিয়েছেন বলে জানা গেছে। মধ্যপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী শিবরাজ সিং চৌহানের মতে পশুপালন, বন, পঞ্চায়েত, গ্রামোন্নয়ন, কৃষক কল্যাণ দফতর প্রভৃতি এই গরু মন্ত্রিসভার অংশ হবে।

আজ সকালে তিনি জানান, “রাজ্যে গরুদের রক্ষা ও তাদের বৃদ্ধির জন্য গরু মন্ত্রিসভা গঠন করার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। পশুপালন, বন, পঞ্চায়েত, গ্রামোন্নয়ন, রাজস্ব, স্বরাষ্ট্র ও কৃষক কল্যাণ দফতর এই গরু মন্ত্রিসভায় অন্তর্ভুক্ত হবে।” তাঁর কথায়, আগামী ২২ নভেম্বর গোপাষ্টমীর দিন দুপুর ১২টায় আগর মালওয়ার গরু স্যাংচুয়ারিতে এই মন্ত্রিসভার প্রথম বৈঠক হবে বলে জানিয়েছেন তিনি।


WhatsApp-এ প্রিয় বন্ধু মিডিয়ার খবর পেতে – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের অন্যান্য সোশ্যাল মিডিয়া গ্রূপের লিঙ্ক – টেলিগ্রামফেসবুক গ্রূপ, ট্যুইটার, ইউটিউব, ফেসবুক পেজ

আমাদের Subscribe করতে নীচের বেল আইকনে ক্লিক করে ‘Allow‘ করুন।

এবার থেকে আমাদের খবর পড়ুন DailyHunt-এও। এই লিঙ্কে ক্লিক করুন ও ‘Follow‘ করুন।



আপনার মতামত জানান -

প্রসঙ্গত উল্লেখ্য, মধ্যপ্রদেশে গরু মন্ত্রিসভা গঠনের প্রস্তাব নতুন নয়। জানা গেছে, এর আগে ২০১৮ সালে মধ্যপ্রদেশ গরু সংরক্ষণ বোর্ডের চেয়ারপার্সন স্বামী অখিলেশ্বরানন্দ, বর্তমান মধ্যপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী শিবরাজ সিংয়ের কাছে এই গরু মন্ত্রিসভা গঠনের প্রস্তাব দিয়েছিলেন। আজ তিনি জানান, ‘মধ্যপ্রদেশে গরু মন্ত্রিসভা তৈরি করা খুবই জরুরি।’

তাঁর কথায় মুখ্যমন্ত্রী নিজে একজন কৃষক। তাঁর মতো মানুষ মুখ্যমন্ত্রীকে এই কাজে সাহায্য করবে বলেই মনে করেছিলেন তিনি। সেই সঙ্গে এই কাজে তিনি মানুষের কাছ থেকে পূর্ণ সমর্থন পেয়েছেন বলেও জানান। এই বিষয়ে একটি চিঠিও তিনি শিবরাজ সিংকে পাঠিয়েছিলেন। অবশ্য শিবরাজ সিং চৌহানের এই সিদ্ধান্তে অনেকেই অবাক হয়েছেন।

বস্তুত, এর আগে অনেকবারই বিজেপি দেশে ধর্ম নিয়ে রাজনীতি করছে বলে অভিযোগ করতে দেখা গিয়েছিল বিরোধীদের। সেখানে ভারতবর্ষ ধর্মনিরপেক্ষ দেশ হলেও বিজেপি মানুষের মধ্যে হিন্দু মুসলমান নিয়ে জাতিভেদ প্রথার সঞ্চার় ঘটাচ্ছে বলেও অভিযোগ করেছিলেন কেউ কেউ। সেক্ষেত্রে আবারও গরু নিয়ে এমন একটি সিদ্ধান্ত অনেকেরই মনে বিতর্ক তৈরি হয়েছে বলে জানা গেছে। সেক্ষেত্রে এই সিদ্ধান্তের পিছনে রাজনৈতিক উদ্দেশ্য রয়েছে বলেই অনেকে মনে করছেন।

কারণ অনেকের মতে যদি গো-পালন তথা পশুপালনেই উত্‍সাহ দিতে হত, তবে সেক্ষেত্রে সেই কাজের জন্য মধ্যপ্রদেশে প্রাণী সম্পদ বিকাশ দফতর ছিল। তাই তাঁদের মতে, পৃথক ভাবে গরু-মন্ত্রিসভা গঠনের উদ্দেশ্য পুরোটাই রাজনৈতিক বলে মনে করেছেন অনেকে। বিরোধীদের কথায়, সরকারের সত্‍ উদ্দেশ্য থাকলে প্রাণী সম্পদ বিকাশ দফতরের মাধ্যমেই সেই কাজ করা যেত। তবে এক্ষেত্রে এই বিতর্কের মধ্যেই অনেকের মুখে আবার এই কাজের জন্য সাধুবাদ দিতে শোনা গেছে।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!