এখন পড়ছেন
হোম > রাজনীতি > কংগ্রেস > ঘাসফুলে প্রনব-পুত্র অভিজত? সাক্ষাৎ ঘিরে জল্পনা!

ঘাসফুলে প্রনব-পুত্র অভিজত? সাক্ষাৎ ঘিরে জল্পনা!



প্রিয় বন্ধু মিডিয়া রিপোর্ট –  বাবা ছিলেন ইন্দিরা গান্ধীর সঙ্গী। বহু রাজনৈতিক উত্থান পতনের সাক্ষী পরবর্তীতে কংগ্রেসের শেষ সরকারের সময় ছিলেন অর্থমন্ত্রী। তারপরে দেশের রাষ্ট্রপতিও হয়েছিলেন। দীর্ঘদিন কংগ্রেসের রক্ত বহন করে নিয়ে আসছে মুখোপাধ্যায় পরিবার। কিন্তু এবার সেই পরিবারেও কি থাবা বসাতে চলেছে তৃণমূল কংগ্রেস? আলোচনা হচ্ছে যাকে নিয়ে, তিনি আর কেউ নন। প্রয়াত দেশের প্রাক্তন রাষ্ট্রপতি প্রণব মুখোপাধ্যায়ের পুত্র অভিজিৎ মুখোপাধ্যায়।

2021 এর বিধানসভা নির্বাচন কংগ্রেসের সংগঠনকে কার্যত চ্যালেঞ্জের মুখে দাঁড় করিয়ে দিয়েছে। বামেদের সঙ্গে জোট করে মুখ রক্ষা করতে পারেনি কংগ্রেস। একটি আসনও নিজেদের দখলে রাখতে পারেনি তারা। আর এই পরিস্থিতিতে বিরোধী দলের জায়গা দখল করা ভারতীয় জনতা পার্টি এবং তৃনমূলের মধ্যেই যে আগামী দিনে প্রধান লড়াই হবে, তা বলার অপেক্ষা রাখে না।

রাজনৈতিক পরিবার বলে পরিচিত হলেও বাবা প্রণব মুখোপাধ্যায় প্রয়াত হওয়ার পর সেভাবে অভিজিৎ মুখোপাধ্যায়কে কোনো কর্মসূচিতে দেখতে পাওয়া যায় না। কিন্তু এবার হঠাৎ করেই খবরের শিরোনামে উঠে এলেন তিনি। যেখানে তৃণমূল নেতাদের সঙ্গে তার সাক্ষাৎকে কেন্দ্র করে তৈরি হয়েছে জল্পনা। যার ফলে অভিজিৎ মুখোপাধ্যায় এবার কি দীর্ঘদিনের পরম্পরা ভেঙে কংগ্রেস ছেড়ে যোগ দিচ্ছেন তৃণমূলে! এই প্রশ্ন চাউর হতে শুরু করেছে রাজ্য রাজনীতিতে।

সূত্রের খবর, এদিন জঙ্গিপুরের নওদায় একটি অনুষ্ঠানে এসেছিলেন তৃণমূলের সর্বভারতীয় সাধারণ সম্পাদক অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়। যেখানে জেলাস্তরের তৃণমূলের সকল নেতৃত্ব এবং জনপ্রতিনিধিরা উপস্থিত ছিলেন। আর তারপরেই তৃণমূল নেতৃত্বদের অনেকে জঙ্গিপুরের দেউলিতে প্রণব মুখোপাধ্যায়ের ছেলে অভিজিত মুখোপাধ্যায়ের বাড়িতে চলে যান। যেখানে উপস্থিত ছিলেন জেলা তৃণমূল সভাপতি তথা সাংসদ আবু তাহের, খলিলুর রহমান, মন্ত্রী আখরুজ্জামান, সাবিনা ইয়াসমিন, বিধায়ক ইমানি বিশ্বাস এবং দুই প্রাক্তন বিধায়ক।

তৃণমূলের পক্ষ থেকে এই সাক্ষাৎকে সৌজন্য সাক্ষাৎ বলা হলেও, প্রণব মুখোপাধ্যায়ের পুত্র অভিজিৎ মুখোপাধ্যায়ের সঙ্গে জেলা তৃণমূলের নেতা এবং সাংসদদের ছবি প্রকাশ্যে আসার সাথে সাথেই জল্পনা ক্রমশ বাড়তে শুরু করেছে। একাংশ বলছেন, কংগ্রেসের সংগঠন এখন প্রায় নেই বললেই চলে। সেদিক থেকে অভিজিৎ মুখোপাধ্যায়ের বাড়িতে এসে তৃণমূল নেতাদের সাক্ষাৎ যে রাজনৈতিক নয়, সেটা মানতে নারাজ বিশেষজ্ঞরা।

হঠাৎ কেন এই সাক্ষাৎ? কেন তাদের অভিজিতবাবুর কথা মনে পড়ল? এদিন এই প্রসঙ্গে তৃণমূল সাংসদ খলিলুর রহমান বলেন, “প্রণববাবুর মৃত্যুর পর দেখা সাক্ষাৎ হয়নি। একবার দেখা করে আসি, সেই ভাবেই সবাই মিলে অভিজিতবাবুর বাড়ি আসি। এরপরই আবু তাহের ফোন করে অভিজিতবাবুকে দেখা করতে চেয়ে। অভিজিতবাবুর চা পানের আমন্ত্রণ জানায়।

সেই সূত্রে সবাই একসঙ্গে ছিলাম এবং অভিজিতবাবুও জঙ্গিপুরের বাড়িতে আছেন। একটিও রাজনীতির কথা তার সাথে হয়নি। নেহাতই সৌজন্য। কাজেই আমাদের সঙ্গে তার ছবিকে ঘিরে কোনো রকম রাজনৈতিক জল্পনা একেবারেই অবাস্তব। এটা এমন কিছু নয়। পারিবারিক ও সামাজিক বিষয় নিয়ে আলোচনা হয়েছে।” একইভাবে এই সমস্ত জল্পনা সম্পূর্ণরূপে খারিজ করে দিয়েছেন প্রণব মুখোপাধ্যায়ের পুত্র তথা প্রাক্তন সাংসদ অভিজিৎ মুখোপাধ্যায়।

আমাদের নতুন ফেসবুক পেজ (Bloggers Park) লাইক ও ফলো করুন – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের টেলিগ্রাম গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের সিগন্যাল গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে



আপনার মতামত জানান -

এদিন তিনি বলেন, “আবু তাহের বিকেলে ফোন করেছিলেন, সবাই একসঙ্গে আছি দাদা। আপনার বাড়িতে একবার দেখা করে চা খেতে আসতে চাই। আমি বললাম, চলে এসো। এরা কেউই বাবার শ্রাদ্ধের সময় যেতে পারেননি। তারপরে ওরা বাড়িতে আসেন। আমার বাবা-মায়ের ছবিতে শ্রদ্ধা জানান। চা খেয়ে চলে যান। এর সঙ্গে রাজনীতির কোনো সম্পর্ক নেই‌। অধীর চৌধুরীও তো প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে বৈঠক করছেন। তাতে কি হল! সমাজ থেকে সৌজন্যতা এখনও হারিয়ে যায়নি। প্লিজ সৌজন্যবোধকে রাজনীতির রং দেবেন না।”

স্বাভাবিক ভাবেই অভিজিৎ মুখোপাধ্যায়ের এই বক্তব্যকে কেন্দ্র করে এখন জল্পনার পারদ ক্রমশ ঊর্ধ্বমুখী। অনেকে বলছেন, হয়ত বা অভিজিতবাবু এই গোটা ঘটনার সঙ্গে রাজনীতিকে গুলিয়ে ফেলতে চাইলেন না। কিন্তু হঠাৎ করেই তৃণমূল নেতাদের তার বাড়িতে উপস্থিতি যে খুব একটা ভালো চোখে নিচ্ছেন না বিশেষজ্ঞরা, তা বলাই যায়। বর্তমান পরিস্থিতিতে দলবদল আবার নতুন করে মাথাচাড়া দিতে শুরু করেছে। তৃণমূল তৃতীয় বার ক্ষমতায় আসার পর ভবানীপুরে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় প্রার্থী হলে তার বিরুদ্ধে কট্টর মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের বিরোধী অধীর চৌধুরী প্রার্থী দেওয়ার ব্যাপারে সম্মতি প্রকাশ করছেন না।

স্বাভাবিক ভাবেই কংগ্রেসের পক্ষ থেকে তৃণমূলের প্রতি সুর নরম করার একটা প্রয়াস দেখা যাচ্ছে। আর এই পরিস্থিতিতে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সঙ্গে দাদার সম্পর্ক থাকা প্রয়াত প্রাক্তন রাষ্ট্রপতি প্রণব মুখোপাধ্যায়ের পুত্রের সঙ্গে মুর্শিদাবাদ জেলা তৃণমূল নেতাদের সাক্ষাত নয়া সমীকরণের সৃষ্টি করল। তবে এই সমীকরণ আগামীদিনে রাজনীতির অলিন্দে অন্য কোনো রুপে ধরা দেয় কিনা, সেদিকেই নজর থাকবে সকলের।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!