এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > কলকাতা > লক্ষ্য ২০১৯ – সাজছে ওয়ার রুম, দল বাড়াচ্ছে টেক-টীম, জেনে নিন বিজেপির রণকৌশল

লক্ষ্য ২০১৯ – সাজছে ওয়ার রুম, দল বাড়াচ্ছে টেক-টীম, জেনে নিন বিজেপির রণকৌশল



২০১৪ সালের লোকসভা নির্বাচনে নরেন্দ্র মোদিকে সামনে রেখে আর সোশ্যাল মিডিয়ায় কুশলী প্রচার করে তীব্র সাফল্য পেয়েছিল বিজেপি। আর তাই আগামী লোকসভা নির্বাচনের দামামা বেজে যেতেই সাজো সাজো রব গেরুয়া শিবিরের অন্দরমহলে। এবারেও তাদের রণকৌশলে অন্যতম ভরসা হতে যাচ্ছে – সেই নরেন্দ্র মোদী ও সোশ্যাল মিডিয়া।

তবে, এবারের লোকসভা-যুদ্ধ অনেক কঠিন হতে যাচ্ছে বলেই ধরে নিচ্ছে বিজেপির কেন্দ্রীয় নেতৃত্ত্ব। কেননা, নরেন্দ্র মোদির বিজয়রথ থামাতে এবার দীর্ঘদিনের বৈরিতা ভুলে সব বিরোধী শক্তি এক ছাতার তলায় আসার চেষ্টা করছে। আর তা যদি সত্যিই হয় – তাহলে সেই একের বিরুদ্ধে এক লড়াইয়ে জয় পাওয়া খুব একটা সহজ হবে না তা বিগত বেশ কিছু উপনির্বাচনেই প্রমাণিত।

তাছাড়া থাকছে – প্রত্যাশা পূরণের হিসেবে মেলানোর চাপ। ২০১৪ এর লোকসভা নির্বাচন নরেন্দ্র মোদী তথা বিজেপির কাছে ছিল প্রতিশ্রুতি দেওয়ার নির্বাচন। কিন্তু ৫ বছর বাদের এই নির্বাচনে সেই প্রতিশ্রুতির কতটা পূরণ হল – তা মেপে দেখবেন আমজনতা। সুতরাং, এই কঠিন লড়াইয়ে জন-সাধারনের কাছে সহজে পৌঁছাতে ও তাঁদের মনের কথা জানতে বিজেপির বড় ভরসা হতে চলেছে সোশ্যাল মিডিয়া ও ওয়ার রুম।

আরো খবর পেতে চোখ রাখুন প্রিয়বন্ধু মিডিয়া-তে

এবার থেকে প্রিয় বন্ধুর খবর পড়া আরো সহজ, আমাদের সব খবর সারাদিন হাতের মুঠোয় পেতে যোগ দিন আমাদের হোয়াটস্যাপ গ্রূপে – ক্লিক করুন এই লিঙ্কে

গেরুয়া শিবিরের সূত্রে জানা গেছে, এবার প্রতিটি রাজ্যের জন্য সেই রাজ্যের রাজধানীতে থাকবে একটি করে ওয়ার রুম। ২ থেকে ৩ টি বুথ নিয়ে তৈরী হবে ‘শক্তিকেন্দ্র’, এরকম ৫০০ টি শক্তিকেন্দ্রের জন্য রাজ্যের ওয়ার রুমে থাকবেন ১ জন করে কলিং এজেন্ট, ৩ জন ডেটা এন্ট্রি অপারেটর ও ১ জন সুপারভাইজার। ওয়ার রুমে থাকতে চলেছে পুরোপুরি ‘কর্পোরেট কালচার’।

বহুজাতিক সংস্থার মতোই প্রত্যেক কর্মিসর জন্য ‘কিউবিকল’, আধুনিক ল্যাপটপ, কালার প্রিন্টার ও উচ্চগতিসম্পন্ন ইন্টারনেট কানেকশন থাকবে। থাকবে কর্মীদের হাজিরার গতিবিধি মাপতে ‘বায়োমেট্রিক অ্যাটেন্ডেন্স’ ব্যবস্থা। গেরুয়া শিবিরের দাবি – নির্বাচনের দিন জট এগিয়ে আসবে – তত কাজের পরিধি বাড়বে এই ওয়ার রুমের।

এছাড়াও জানা যাচ্ছে, রাজ্যের ওয়ার রুমগুলি দিল্লিতে কেন্দ্রীয় মূল ওয়ার রুমের সঙ্গে যোগাযোগ রাখবে ও রাজ্যের গতিবিধি সেখানে পাঠাবে। রাজ্যের ওয়ার রুমগুলির মূল কাজ হবে স্থানীয় বিভিন্ন খুঁটিনাটি সংগ্ৰহ করে সংরক্ষিত করা এবং তার সাথে সাথেই ভোটারদের তথ্য সংগ্রহ করা। এছাড়াও বুথ পর্যায়ের সংযোগ রক্ষা ও হেভিওয়েট নেতাদের প্রচারের খুঁটিনাটি সোশ্যাল মিডিয়ায় ছড়িয়ে দেওয়াও এইসব ওয়ার রুমের কাজের মধ্যে পড়বে।

ইতিমধ্যেই প্রায় ৩০০ কর্মী নিয়ে দিল্লিতে কেন্দ্রীয় ওয়ার রুমের কাজ শুরু হয়ে গিয়েছে। রাজ্যওয়ারি কাজও ধীরে ধীরে শুরু হতে চলেছে শীঘ্রই। সবমিলিয়ে, আসন্ন লোকসভা নির্বাচনে একদিকে যেমন দলীয় নেতাদের প্রচার ও নরেন্দ্র মোদির নতুন ভারত নির্মাণের স্বপ্ন বিজেপির অস্ত্র হবে – অন্যদিকে, এই কঠিন নির্বাচনী বৈতরণী পার হতে টেকনোলোজিকেও সম্পূর্ণভাবে ব্যবহার করা হবে।

আপনার মতামত জানান -

Top
Facebook Friends
error: Content is protected !!