এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > দায়িত্ব নিয়েই ব্যবসায়ীদের জন্য কড়া নির্দেশিকা ফিরহাদ হাকিমের, প্রয়োজনে অনুমতি বাতিল

দায়িত্ব নিয়েই ব্যবসায়ীদের জন্য কড়া নির্দেশিকা ফিরহাদ হাকিমের, প্রয়োজনে অনুমতি বাতিল



এবার থেকে ফায়ার লাইসেন্স ও ফায়ার অডিট না করলে ব্যবসার অনুমতি দেবে না রাজ্যসরকার। চলতি ব্যবসাও বন্ধ করে দেওয়া হবে। বিশেষ করে শপিং মল,অফিস কমপ্লেক্স, কমার্শিয়াল কমপ্লেক্স,বহুতল কমপ্লেক্সে প্রতিবছরই ফায়ার অডিট করতে হবে,এমনটাই সাফ জানিয়ে দিলেন সদ্য হওয়া দমকলমন্ত্রী ফিরহাদ হাকিম।

প্রসঙ্গত,সম্প্রতি শোভন চট্টোপাধ্যায়ের ইস্তফা দেওয়ার পরই ফিরহাদ হাকিমকে দমকল মন্ত্রকের দায়িত্বে এনেছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। বিধানসভার প্রশ্নোত্তর পর্বে তিনি জানান,প্রতিবছর ফায়ার অডিট করলে জানা সম্ভব হবে ওই বহুতলে জলের খোঁজ কোথায় পাওয়া সম্ভব হবে। ফায়ার এক্সটিংগুইশার ঠিক আছে কিনা ইত্যাদি। এই ফায়ার অডিট ঠিকমতো না হলে ব্যবসা করতে দেওয়া হবে না বলেও জানালেন তিনি।

কংগ্রেস বিধায়ক অসিত মিত্রের প্রশ্নের জবাবে তাঁর নেওয়া সিদ্ধান্তের যুক্তি দিয়ে জানালেন, গত এপ্রিল থেকে অক্টোবর পর্যন্ত রাজ্যে ৪৬২৯ টি অগ্নিকান্ডের ঘটনা ঘটেছে। ২০১১ সালের আগে রাজ্যের দমকল কেন্দ্র ছিল ১০০ টি। গত সাত বছরে ৪২ টি তৈরি করা হয়েছে। আরো তৈরি করার পরিকল্পনা রয়েছে। এছাড়া ঘিঞ্জি এলাকায় আগুন নিয়ন্ত্রণ করার জন্যে মোটরবাইকে দমকলকর্মীদের যাওয়ার ব্যবস্থা করা হয়েছে। নজর দেওয়া হয়েছে দমকলের পরিকাঠামো বৃদ্ধির দিকেও।

দমকলকর্মীদের প্রশিক্ষণের জন্যে আগুন নিয়ন্ত্রণে অভিজ্ঞতা সম্পন্ন দেশে পাঠানোর সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। তবে প্রশিক্ষণ এর আগেও দেওয়া হয়েছিল বলে জানান তিনি। সবটাই রাজ্যের ক্রমবর্ধমান অগ্নিকান্ডের কথা ভেবেই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে বলে জানালেন নয়া দমকলমন্ত্রী।

অসিত মিত্রের অভিযোগ ছিল বাগরি মার্কেটে আগুন নিয়ন্ত্রণ আনতে পাঁচদিন সময় লেগেছিল। ল্যাডার ঢোকানো গেল না কেন? এর জবাবে দমকলমন্ত্রী জানান,মার্কেটের এলাকা ৫০ হাজার বর্গফুট। ছটি ব্লকের মধ্যে একটি ব্লক আগুন লেগে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। ফলত ল্যাডার লাগানোর মতো জায়গাই ছিল না। ল্যাডার ঢোকালে অন্য ইঞ্জিন ঢুকতে পারতো না।

ফলত আগুন নিয়ন্ত্রণের কাজও বন্ধ রাখতে হতো। তাতে সমস্যা আরো বেশি হতো। একথা জানানোর পর দমকলকর্মীদরে প্রশংসা করে বলেন, বাগরি মার্কেটে আগুন নেভানোর কাজ দমকলকর্মীরা ভালোই করেছেন। নিজেদের জীবন বিপন্ন করে ২০ টি ইঞ্জিনের সহায়তায় বিষাক্ত গ্যাসের সঙ্গে লড়াই করে আগুন নিয়ন্ত্রণে এনেছেন।

এদিন দমকলকর্মীর নতুন দমকল কেন্দ্র খোলার প্রসঙ্গে মন্তব্য করতে দেখা গেল প্রাক্তন পুরমন্ত্রী অশোর ভট্টাচার্যকে। বললেন,শুধু নতুন দমকল কেন্দ্র খুললেই হবে। প্রয়োজন আধুনিক ব্যবস্থার,প্রশিক্ষণের। তার জন্যে রাজ্যসরকারের কাছে কোনো পরিকল্পনা রয়েছে কিনা জানতে চান তিনি। এর জবাবে ফিরহাদ হাকিম আক্রমণের ভঙ্গিতে প্রশ্ন করেন,বামেরা ৩৪ বছর ক্ষমতায় থেকে কী করে গেছে? এসব করা থাকলে তো আজ এতো সমস্যা হতো না। গত সাত বছরের তৃনমূল সরকার যা করে ফেলেছে,তা বামেরা প্রায় ৪ দশক ধরে ক্ষমতায় থেকেও করতে পারেনি। মা মাটি মানুষের সরকার ক্ষমতায় আসার পর দমকল ক্ষেত্রে যথেষ্ট উন্নয়ন করেছে। আগামী বছরগুলোতেও করবে, দাবী অধুনা দমকলমন্ত্রীর।

উল্লেখ্য,গত বৃহস্পতিবারই দমকল দপ্তরের দায়িত্বে আসার পর দপ্তরের অফিসারদের সঙ্গে বৈঠকে বসেন ফিরহাদ হাকিম। জোর দেন পরিকাঠামোগত আধুনিকীকরণের উপর। কিছুদিনের মধ্যে জিপিএস সিস্টেম চালু করারও সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। যাতে ১০১ নম্বরে ফোন করে আগুন লাগার খবর দিলেই কোথায় আগুন লেগেছে তা বলার আগেই সহজেই জানতে পারা যায়। বহুতলগুলি এবং শপিং কমপ্লেক্সে কোথায় জলের উৎস রয়েছে তা ম্যাপে পরিষ্কারভাবে নির্দেশ দেওয়ার কথা জানান তিনি, যাতে ম্যাপ থাকলে আগুন নিয়ন্ত্রণের কাজে সুবিধা হয়।

ফেসবুকের কিছু টেকনিকাল প্রবলেমের জন্য সব খবর আপনাদের কাছে পৌঁছেছে না। তাই আরো খবর পেতে চোখ রাখুন প্রিয়বন্ধু মিডিয়া-তে

 

এবার থেকে প্রিয় বন্ধুর খবর পড়া আরো সহজ, আমাদের সব খবর সারাদিন হাতের মুঠোয় পেতে যোগ দিন আমাদের হোয়াটস্যাপ গ্রূপে – ক্লিক করুন এই লিঙ্কে

নতুনদের দায়িত্বে আনায় প্রাক্তনদের মধ্যে ক্ষোভ সৃষ্টি হয়েছে এমনটাই কানাঘুষো শোনা যাচ্ছিল। এ প্রসঙ্গে এ শীর্ষ নেতা বলেন,নতুনদের সুযোগ দেওয়ার ঘটনাশ পুরানোদের রাগ করার কোনে কারণ নেই। কারণ দলে চিরকাল কেউ স্থায়ী পদে বহাল থাকতে পারে না।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!