এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > উত্তরবঙ্গ > ফের বিদ্রোহের সুর তৃনমূলের বিধায়কের গলায়, তৃণমূলে না থাকার ইঙ্গিত বিধায়কের!

ফের বিদ্রোহের সুর তৃনমূলের বিধায়কের গলায়, তৃণমূলে না থাকার ইঙ্গিত বিধায়কের!



আপনাদের সুবিধার্থে খবরের শেষে বিধানসভা ২০২১ উপলক্ষে আমাদের করা সর্বশেষ সমীক্ষার প্রতিটির লিঙ্ক দেওয়া আছে।

আপনার মতামত জানান -

প্রিয় বন্ধু মিডিয়া রিপোর্ট – বেশ কিছুদিন আগেই দলের সঙ্গে সমস্ত সম্পর্ক ছিন্ন করার কথা জানিয়ে দিয়েছিলেন কোচবিহার দক্ষিণের তৃণমূল বিধায়ক মিহির গোস্বামী। যেখানে তার মান ভাঙানোর জন্য জেলার একাধিক নেতা থেকে শুরু করে মন্ত্রীরা তার বাড়িতে গেলেও শেষ পর্যন্ত লাভের লাভ কিছু হয়নি। উল্টে দীর্ঘদিন আড়ালে থেকে সাংবাদিক বৈঠক করে কিছুদিন আগেই দলের সঙ্গে সমস্ত সম্পর্ক ছিন্ন করার কথা জানিয়ে দিয়েছিলেন তিনি। যারপরে ব্যাপক চাপে পড়ে তৃণমূল কংগ্রেস।

বিধানসভা নির্বাচনের আগে তৃণমূল বিধায়ক যেভাবে দলের সঙ্গে সম্পর্ক ত্যাগ করার কথা জানিয়ে দিলেন, তাতে জেলা নেতৃত্ব অনেকটাই বেকায়দায় পড়ে গিয়েছিল। এদিকে এই ঘটনার পর বেশ কিছুদিন কেটে গেলে এবার সেই বিদ্রোহী বিধায়কের বাড়িতে উপস্থিত হলেন কোচবিহার জেলা তৃণমূলের অন্যতম নেতা তথা রাজ্যের মন্ত্রী রবীন্দ্রনাথ ঘোষ। অনেকেই দাবি করছেন, আসলে মিহিরবাবুর মান ভাঙানোর জন্য রবিবাবু তার বাড়িতে উপস্থিত হয়েছেন। কিন্তু কিছুদিন আগেই দলের সঙ্গে সম্পর্ক ছিন্ন করার কথা জানিয়ে দিয়েছেন মিহির গোস্বামী।

স্বাভাবিকভাবেই রবীন্দ্রনাথ ঘোষ তার মান ভাঙানোর জন্য উদ্যত হলেও আবার কি নতুন করে সক্রিয় হবেন মিহিরবাবু! এখন তা নিয়ে তৈরি হয়েছে জল্পনা। তবে যে জল্পনাই তৈরি হোক না কেন, তিনি যে তার অবস্থানে অনড় থাকবেন, তা স্পষ্ট ভাষায় জানিয়ে দিলেন কোচবিহার দক্ষিণের বিধায়ক। স্বভাবিকভাবেই মিহির গোস্বামীর দলের বিরুদ্ধে বিদ্রোহ ঘোষণা এখন নতুন করে চাপে ফেলে দিল তৃণমূল কংগ্রেসকে বলেই মনে করছেন বিশেষজ্ঞরা।

সূত্রের খবর, এদিন বেশ কিছুক্ষণ মিহির গোস্বামীর সাথে তার বাড়িতে গিয়ে কথা বলেন রবীন্দ্রনাথ ঘোষ। আর তখন থেকেই জল্পনা ছড়িয়ে পড়েছিল, হয়ত বা মিহিরবাবুর মান ভঙ্গ করতে রবিবাবু উদ্যত হলেন। এমনকি বাইরে বেরিয়ে এসে মিহিরবাবু ললে থাকুক, এটা তিনি চান বলে জানিয়ে দিয়েছিলেন রবীন্দ্রনাথ ঘোষ। স্বাভাবিকভাবেই রবিবাবুর এই উদ্যোগের পেছনে তৃণমূল শীর্ষ নেতৃত্বের নির্দেশ রয়েছে বলেই মনে করেছিলেন একাংশ।


দেশে যে কোনো দিন ব্যান হয়ে যেতে পারে হোয়াটস্যাপ। তাই এখন থেকে আমরা শুধুমাত্র টেলিগ্রাম ও সিগন্যাল অ্যাপে। প্রিয় বন্ধু মিডিয়ার নিউজ নিয়মিতভাবে পেতে যোগ দিন –

টেলিগ্রাম গ্রূপটাচ করুন এখানে

সিগন্যাল গ্রূপটাচ করুন এখানে



আপনার মতামত জানান -

কিন্তু শেষ পর্যন্ত দলের কাছে তিনি ঠিক কী পেয়েছেন, এমনকি আগামী দিনে তার সিদ্ধান্ত কি হবে, তা পরিষ্কার করে দিলেন মিহির গোস্বামী। যেখানে নিজের সিদ্ধান্তে অনড় থাকার কথা জানিয়ে দিলেন তিনি। আর এই ঘটনায় এখন ব্যাপক চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়েছে। ঠিক কি বললেন মিহির গোস্বামী? এদিন এই প্রসঙ্গে মিহিরবাবুর সঙ্গে সাক্ষাৎ করার পর রবীন্দ্রনাথ ঘোষ বলেন, “আমি আগেও এসেছিলাম। দলে ফেরা না ফেরা উনি ঠিক করবেন। আমরা চাই মিহিরদা তৃণমূলেই থাকুক।” কিন্তু সত্যি কি তাহলে তিনি আবার তৃণমূল কংগ্রেসে ফিরে যাবেন?

এদিন এই প্রসঙ্গে মিহির বাবু বলেন, “গত 10 বছর বিশেষ করে ক্ষমতায় আসার পর তৃণমূলের কাছ থেকে আমি ন্যূনতম মর্যাদা পাইনি। দলের কাছে আমি প্রয়োজনীয় ভাবলে বোকামি হবে, আমি আগেও যা বলেছি, আজও বলছি‌, আগামী দিনেও বলব।” স্বাভাবিকভাবেই মিহির গোস্বামীর মানভঙ্গ করতে রবীন্দ্রনাথ ঘোষ আসলেও, কাজের কাজ কিছুই হল না, তা কার্যত পরিষ্কার।

রবিবাবুর সঙ্গে আলোচনার পর মিহিরবাবু যেভাবে দলের বিরুদ্ধে বিদ্রোহ পোষন করলেন, তাতে একটা জিনিস পরিষ্কার হয়ে গেল যে, এই বিধায়ক আর কোনোমতেই তৃণমূল কংগ্রেসে ফিরে যাবেন না। দলের পক্ষ থেকে তিনি বিন্দুমাত্র মর্যাদা পাননি বলে কার্যত দলের শীর্ষ নেতৃত্বকে বার্তা দেওয়ার চেষ্টা করলেন মিহির গোস্বামী বলে মনে করছেন বিশ্লেষকরা। সব মিলিয়ে গোটা পরিস্থিতি কোথায় গিয়ে দাঁড়ায়, সেদিকেই নজর থাকবে সকলের।

একনজরে দেখে নিন আমাদের সর্বশেষ বিধানসভা ২০২১ ওপিনিয়ন পোল –

# মুর্শিদাবাদ জেলার ওপিনিয়ন পোল – দ্বিতীয় পর্ব – 

# মুর্শিদাবাদ জেলার ওপিনিয়ন পোল – প্রথম পর্ব – 

# মালদহ জেলার ওপিনিয়ন পোল –

# দক্ষিণ দিনাজপুর জেলার ওপিনিয়ন পোল –

# উত্তর দিনাজপুরে জেলার ওপিনিয়ন পোল –

# জলপাইগুড়ি ও কালিম্পঙ জেলার ওপিনিয়ন পোল –

# আলিপুরদুয়ার ও দার্জিলিং জেলার ওপিনিয়ন পোল –

# কুচবিহার জেলার ওপিনিয়ন পোল –

আপনার মতামত জানান -
আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!