এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > কলকাতা > কৃষকদের জন্য একগুচ্ছ সুখবর নিয়ে এলেন মুখ্যমন্ত্রী

কৃষকদের জন্য একগুচ্ছ সুখবর নিয়ে এলেন মুখ্যমন্ত্রী



রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বরাবরই বাংলার অন্নদাতা কৃষকের কথা চিন্তা করে একাধিক প্রকল্প তৈরি করেছেন। মূলত 2011 সালে রাজ্যের ক্ষমতায় আসার পরই মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় কিষাণ মান্ডি, থেকে শুরু করে হিমঘর, নির্মাণ সহায়ক মূল্যে ধান কেনা সহ একাধিক প্রকল্প শুরু করেছেন রাজ্যের কৃষকদের জন্য।

পাশাপাশি কৃষকদের যেন মহাজনদের কাছ থেকে ঋণ গ্রহণ করতে না হয় এবং ঋণের দায়ে জর্জরিত না হতে হয়, সেই কারণে মুখ্যমন্ত্রীর তরফ থেকে কৃষকদের জন্য কৃষক বন্ধু প্রকল্পের সূচনা করা হয়েছিল। আর এই প্রকল্পের পরিকল্পনা অনুযায়ী রাজ্যের কৃষকরা নিজেদের চাষবাস করার জন্য সরকারের কাছ থেকে গোটা বছরে রবিশস্যের জন্য আড়াই হাজার এবং খারিফ শস্যের জন্য আড়াই হাজার, অর্থাৎ গোটা বছরে মোট 5000 টাকা অর্থনৈতিক অনুদান পাবেন।

ইতিমধ্যেই প্রত্যেকটি জেলার কৃষি দপ্তরের তরফ থেকে জেলার কৃষকদেরকে 5000 টাকা করে সরকারি আর্থিক অনুদান দেওয়ার কাজ শুরু করা হয়েছে। এই প্রকল্প অনুসারে উত্তর দিনাজপুর জেলার রায়গঞ্জ ব্লকে গতকাল শুরু হয়েছে কৃষক বন্ধু প্রকল্পের আর্থিক অনুদান দেওয়ার প্রক্রিয়া। কৃষক বন্ধু প্রকল্পের আর্থিক অনুদান গ্রহণ করতে উদয়পুরে এদিন কৃষকদের উপস্থিতি ছিল রীতিমতো বৃহৎ আকৃতির।

ফেসবুকে আমাদের নতুন ঠিকানা, লেটেস্ট আপডেট পেতে আজই লাইক ও ফলো করুন – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের টেলিগ্রাম গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের সিগন্যাল গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে



আপনার মতামত জানান -

সরকারের এই প্রকল্প নিয়ে উত্তর দিনাজপুর জেলার তৃণমূল কংগ্রেস পরিচালিত রায়গঞ্জ পঞ্চায়েত সমিতির সহ-সভাপতি মানষ ঘোষ বলেন, “রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের উদ্যোগে কৃষকবন্ধু প্রকল্পের টাকা দেওয়ার কাজ শুরু করা হয়েছে। আজ রায়গঞ্জ ব্লকের মোট 21 হাজার 767 জন কৃষকের হাতে আর্থিক সাহায্য 5000 টাকা করে তুলে দেওয়া হয়েছে।”

পাশাপাশি তিনি আরও বলেন, “রায়গঞ্জ ব্লককে মোট সাত কোটি 63 লক্ষ 41 হাজার 262 টাকা অনুদান দেওয়া হবে। যার ফলে কৃষকদেরকে আর মহাজনের কাছ থেকে চড়া সুদে ঋণ করে চাষবাস করতে হবে না। মুখ্যমন্ত্রী রাজ্যের কৃষকদের জন্য বহু জনমুখি প্রকল্প গ্রহণ করেছেন।” এছাড়াও এদিন রায়গঞ্জ ব্লক কৃষি দপ্তরের পক্ষ থেকে ইতিমধ্যেই 60 বছরের কম বয়সী মৃত কৃষকদের পরিবারের হাতে এককালীন দু’লক্ষ টাকা করে চেক তুলে দেওয়া হয়েছে।

বিশেষজ্ঞদের মতে, রাজ্যের কৃষকদের জন্য এরকম জনমুখী যোজনা রীতিমত সারা ফেলেছে কৃষক পরিবারগুলির মধ্যে। সারাবছর চাষবাস করে রাজ্যের খাদ্যদ্রব্যের সরবরাহ যে কৃষক করে থাকে, তার সুখ দুঃখের কথা চিন্তা করে রাজ্য সরকারের এই জনমুখি প্রকল্প আগামী দিনে সর্বসাধারণ কৃষকের কাছে সরকারের ভাবমূর্তিকে আরও উজ্জ্বল করবে বলেই মনে করছে ওয়াকিবহাল মহল‌।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!