এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > কলকাতা > প্রশ্ন ফাঁস রুখতে পদক্ষেপ, কিন্তু তা সত্ত্বেও নিয়ম আলগা, আশঙ্কা প্রবল!

প্রশ্ন ফাঁস রুখতে পদক্ষেপ, কিন্তু তা সত্ত্বেও নিয়ম আলগা, আশঙ্কা প্রবল!



কথায় আছে, “আইন যেমন আছে, তেমন আইনের ফাকও আছে।” গত বছর থেকে মাধ্যমিক এবং উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষা শুরু হওয়ার পরেই প্রশ্নপত্র ফাঁসের মত ঘটনা ঘটে গিয়েছিল। যা নিয়ে উষ্মা প্রকাশ করেছিল বিভিন্ন মহল। ছাত্র-ছাত্রীদের পরীক্ষায় কেন নিরাপত্তা বিঘ্নিত, তা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছিলেন সকলেই। তবে এবার মাধ্যমিক পরীক্ষায় ফেল এই ঘটনা ঘটায় উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষার আগে এই ব্যাপারে কড়া পদক্ষেপ নিয়েছে উচ্চমাধ্যমিক শিক্ষা সংসদ। কোনভাবেই পরীক্ষা কক্ষে ঢোকার আগেই যাতে কেউ মোবাইল না নিয়ে যায়, তার জন্য তাদের সতর্ক করে দেওয়া হবে বলে জানা গেছে।

কিন্তু আশ্চর্যজনকভাবে যদি কেউ এরপরেও মোবাইল নিয়ে যায় এবং তাদের কার্যসিদ্ধি সফল করে, তাহলে কিছুই করার নেই। কেননা উচ্চমাধ্যমিক শিক্ষা সংসদের বিজ্ঞপ্তিতে স্পষ্টভাবে বলে দেওয়া হয়েছে, কোনোভাবেই কারো শরীরে সেই মোবাইল আছে কিনা, তার জন্য সার্চ করা যাবে না। ফলে কারও যদি অসৎ উদ্দেশ্য থাকে এবং সে যদি সেই মোবাইল নিয়ে যায়, তাহলে সংসদের কিছুই করার নেই।

প্রসঙ্গত উল্লেখ্য সম্প্রতি মাধ্যমিক পরীক্ষায় উত্তর দিনাজপুরের একটি পরীক্ষা কেন্দ্রে তল্লাশিতে বডি স্ক্যানার ব্যবহার করায় তীব্র বিতর্ক তৈরি হয়েছিল যেখানে অভিভাবকদের প্রশ্ন তোলা হয়েছিল মোবাইল ধরার জন্য এভাবে স্ক্যানার কেন ব্যবহার করা হল। তাহলে কি ছাত্র-ছাত্রীদের অপরাধী ভাবা হচ্ছে! আর অভিভাবকদের তরফে এই প্রশ্ন তোলার পরেই নিঃসন্দেহে বিতর্কের মুখে পড়তে হয় মধ্যশিক্ষা পর্ষদকে। তাই এবার সেই বিতর্ক ঢাকতে উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষার আগে উচ্চমাধ্যমিক শিক্ষা সংসদের পক্ষ থেকে নেওয়া হয়েছে সতর্কতামূলক পদক্ষেপ। মোবাইল নিয়ে যাতে কেউ ভিতরে না ঢুকতে পারে, তার জন্য গেটের কাছেই পুলিশ প্রশাসনের পক্ষ থেকে সমস্ত পরীক্ষার্থীদের সতর্ক করে দেওয়া হবে। এমনকি তাদের জানিয়ে দেওয়া হবে যে, ভেতরে পরীক্ষাকক্ষে যদি কেউ মোবাইল হাতে ধরা পড়ে, তাহলে তাদের পরীক্ষা বাতিল হবে।

ফেসবুকে আমাদের নতুন ঠিকানা, লেটেস্ট আপডেট পেতে আজই লাইক ও ফলো করুন – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের টেলিগ্রাম গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের সিগন্যাল গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে



আপনার মতামত জানান -

কিন্তু এক্ষেত্রে বডি সার্চ করার মতো কোনো পদক্ষেপ নিচ্ছে না সংসদ। মাধ্যমিকে যে বিতর্ক তৈরি হয়েছে, সেই বিতর্ক যাতে আর উচ্চমাধ্যমিকে না হয়, তার জন্যই তাদের এই পদক্ষেপ বলে মনে করছে একাংশ। অনেকে বলছেন, যেভাবে পরীক্ষা কেন্দ্রে মোবাইল নিয়ে ঢুকলে কড়া পদক্ষেপ নেওয়া হবে বলে প্রচার করা হয়েছে, তাতে সেভাবে এবার আর কোনো পরীক্ষার্থী সেই মোবাইল নিয়ে ঢোকার মত সাহস পাবে না।

তবে যদি তারা ঢোকেন, তাহলে তাদেরকে সেই পরিণতি ভোগ করতে হবে। কিন্তু যদি তারা সেই মোবাইল নিয়ে ঢোকার পরেও তাদের কার্যসিদ্ধি সফল করে নেয়, তাহলে শিক্ষা সংসদের কিছুই করার থাকবে না। সেদিক থেকে সংসদের এই কড়াকড়ির পরেও তা ফস্কা গেরোর মত আলগা হয়ে যাবে বলেই মত বিশেষজ্ঞদের। এখন গোটা পরিস্থিতি কোথায় গিয়ে দাঁড়ায়, মাধ্যমিকের মতই উচ্চমাধ্যমিকেও প্রশ্ন ফাঁসের প্রক্রিয়া অব্যাহত থাকে, নাকি সুষ্ঠুভাবেই হয় উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষা, সেদিকেই নজর থাকবে সকলের।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!