এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > কলকাতা > রামভক্তদের আটকাতে মরিয়া সায়নী বাংলায় বাক-স্বাধীনতা হারানোর ভয়ে ভুগছেন! নতুন করে শুরু বিতর্ক

রামভক্তদের আটকাতে মরিয়া সায়নী বাংলায় বাক-স্বাধীনতা হারানোর ভয়ে ভুগছেন! নতুন করে শুরু বিতর্ক



প্রিয় বন্ধু মিডিয়া রিপোর্ট – কিছুদিন ধরেই সংবাদ শিরোনামে উঠে এসেছেন টলিউডের অন্যতম বিখ্যাত অভিনেত্রী সায়নী ঘোষ। কিছুদিন আগেই হেভিওয়েট গেরুয়া শিবিরের নেতা তথাগত বসুর সঙ্গে একচোট লড়াই হয়ে যায় সায়নী ঘোষের সাথে ভার্চুয়ালি। তথাগত যেমন সায়নীকে ছাড়েননি, সেরকম সায়নীও তথাগত বসুকে ছেড়ে কথা বলেননি। আর তারপর থেকেই সায়নী ঘোষের নাম ছড়িয়ে পড়ে। ইতিমধ্যেই আবার আরেক টেলি অভিনেত্রী দেবলিনা ঘোষের নাম উঠে আসে সংবাদমাধ্যমে। কারণ আমিষ, নিরামিষ নিয়ে বিতর্কের জেরে তাঁকে হুমকি দেওয়া চলছে বলে অভিযোগ উঠেছে। আর এসব কিছুরই বিরুদ্ধে তারকাদের ধর্মতলার অস্থায়ী মঞ্চে চলল প্রতিবাদ।

রাজনৈতিক রং ভুলে একই সুরে সুর মিলিয়েছেন টলিউডের অধিকাংশ তারকা। এই অনুষ্ঠানে বিজেপির বিরুদ্ধে জোরালো প্রতিবাদ করলেন সায়নী ঘোষ। বক্তব্যের শুরুতেই যারা মঞ্চে উপস্থিত ছিলেন, তাঁদেরকে কুর্নিশ জানিয়ে সায়নী বক্তব্য শুরু করেন। শুরুতেই তিনি জানান, সময় থাকতে সাবধান না হলে এরপর আর নিজেদের কথা বলার স্বাধীনতা থাকবেনা বাংলার মানুষের। পাশাপাশি গেরুয়া শিবিরকে আক্রমণ করে তীব্র কটাক্ষ করে সায়নী বলেন, এ রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রীকেও অপমানিত করতে ছাড়েনা। সায়নী যে ভিক্টোরিয়ায় প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির অনুষ্ঠানে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে নিয়ে বিতর্কিত ঘটনার কথা বললেন তা বুঝতে কারোর কষ্ট হয়নি।

আমাদের নতুন ফেসবুক পেজ (Bloggers Park) লাইক ও ফলো করুন – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের টেলিগ্রাম গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের সিগন্যাল গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে



আপনার মতামত জানান -

অন্যদিকে ভিক্টোরিয়ার ঘটনা নিয়ে ইতিমধ্যেই সরব হয়েছেন সমাজের বিভিন্ন স্তরের মানুষ। এমনকি রাজনৈতিকভাবে দূরত্ব থাকা সত্বেও বাম-কংগ্রেসও মুখ্যমন্ত্রীর হয়েই একই সুরে কথা বলেছে। অন্যদিকে সায়নীর অভিযোগ, বিজেপির বিরুদ্ধে কথা বলায় তাঁকে ধর্ষণের, অ্যাসিড আক্রমণের হুমকি দেওয়া হচ্ছে। সেই প্রসঙ্গ তুলে সায়নী এদিন বললেন, রাম কে ব্যবহার করে কিছু মানুষ মশকরা করছে। এরকম ভক্তদের দেখলে শ্রীরামচন্দ্র নিজেই লজ্জা পেতেন। এরপরে সায়নীর বার্তা বিজেপিকে, বাংলার মানুষদের নিয়ে যখন এত চিন্তা তখন তাঁদের মূল সমস্যা দূর করার চেষ্টা করা উচিত। পাশাপাশি মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের ভূয়শী প্রশংসা করেন এদিন সায়নী ঘোষ।

মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের ধাঁচেই জয় বাংলা, জয় হিন্দু বলে তাঁর বক্তব্য শেষ করেন সায়নী ঘোষ। সায়নী ঘোষের বক্তব্য যে আবারও বিতর্ক সৃষ্টি করবে সেকথা বলাইবাহুল্য। যথারীতি গেরুয়া শিবির কিন্তু মোটেই ভালো চোখে দেখছেনা সায়নীর এই বার্তা। তবে যথারীতি তৃণমূল কিন্তু ইতিমধ্যেই সায়নী, দেবলীনার পাশে এসে দাঁড়িয়েছে বলে জানা যাচ্ছে। এদিকে রুদ্রনীল ঘোষ বিজেপিতে যাচ্ছে বলে শোনা যাচ্ছে। তাই মনে করা হচ্ছে, রাজনীতির মঞ্চ থেকে এবার টলিউডেও আড়াআড়িভাবে দলভেদ তৈরি হতে চলেছে।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!