এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > কলকাতা > ভোট পিছোতে চায় রাজ্য? মনে করিয়ে চিঠি দিল কমিশন

ভোট পিছোতে চায় রাজ্য? মনে করিয়ে চিঠি দিল কমিশন



ক্যালেন্ডারের বিচারে এই বছরেই রাজ্যের ১৭ টি পুরসভার কার্যকালের মেয়াদ শেষ হয়ে যাচ্ছে। কিন্তু রাজ্য সরকারের সংশ্লিষ্ট দফতর সেই বিষয়ে নির্বিকার। রাজ্য সরকারের অবগতির জন্যেই রাজ্য নির্বাচন কমিশন এদিন রাজ্যের পুর ও নগরোন্নয়ন দফতরকে চিঠি দিল । জানা যাচ্ছে চলতি বছর অক্টোবর, নভেম্বর এবং ডিসেম্বর মাসে রাজ্যের ১৭টি পুরসভার কার্যকালের মেয়াদ শেষ হচ্ছে। পুর দফতর সূত্রে জানা গিয়েছে এইসব পুরসভার ওয়ার্ড সংরক্ষণ এবং ডিলিমিটেশন সংক্রান্ত বিষয়ে রাজ্যের মতামত চেয়ে গত মে মাসে রাজ্য নির্বাচন কমিশন একটি চিঠি দিয়েছিলো।

আরো খবর পেতে চোখ রাখুন প্রিয়বন্ধু মিডিয়া-তে

——————————————————————————————-

 এবার থেকে প্রিয় বন্ধুর খবর পড়া আরো সহজ, আমাদের সব খবর সারাদিন হাতের মুঠোয় পেতে যোগ দিন আমাদের হোয়াটস্যাপ গ্রূপে – ক্লিক করুন এই লিঙ্কে

এর পর বেশ কিছু দিন অতিবাহিত হলেও পুর ও নগরোন্নয়ন দফতরএর তরফ থেকে কোনো জবাবি চিঠি দেওয়া হয়নি নির্বাচন কমিশনকে। উল্লেখ্য গত দেড় বছর কলকাতা পুরসভার ১১৭ নম্বরও ওয়ার্ড কাউন্সিলরহীন অবস্থাতেই রয়েছে। এই বিষয়েও কমিশনের তরফে পাঁচটি চিঠি পুর দফতরে পাঠানো হলেও তার মধ্যে একটির জবাব দেওয়া হয়নি। পুর দফতকে পাঠানো নির্বাচন কমিশনের সাম্প্রতিক চিঠিতে ১৭টি পুরসভা, বিভিন্ন পুরসভার কয়েকটি ওয়ার্ডের পুনর্নির্বাচন এবং ১১৭ নম্বরের ওয়ার্ডের পুনর্নির্বাচন-তিনটি বিষয়েই একত্রে উল্লেখ করা হয়েছে। প্রসঙ্গতঃ পুর ও নগরোন্নয়ন দফতর প্রথমে নভেম্বরে ভোট করাতে আগ্রহী ছিল। কিন্তু বর্তমানে সব দিক বিচার করে বছরের শেষ মাস অর্থাৎ ডিসেম্বরে পুর নির্বাচন করার বিষয়ে আগ্রহ প্রকাশ করছে পুর ও নগর উন্নয়ন দফতর। গোপন সূত্রে জানা গিয়েছে এখনও বিষয়টি আলোচনার স্তরেই রয়েছে তাই এখনই কমিশনকে স্পষ্ট করে কিছু জানানো হয়নি । রাজ্যের বর্তমান পরিস্থিতির নিরিখে রাজনৈতিক বিশ্লেষকদের মতে, ডিসেম্বরে পুরভোট হলে অক্টোবর এবং নভেম্বরে মেয়াদ ফুরোনো পুরসভায় রাজ্য সরকারকে, প্রশাসক বসিয়ে কাজ চালাতে হবে । উল্লেখ্য বর্তমান সরকারের জমানায় এর আগেও একাধিক পুরসভায় প্রশাসক বসিয়ে কাজ চালানো হয়েছে। আর ওয়ার্ড সংরক্ষণ এবং ডিলিমিটেশনের জন্য প্রায় দু’মাস সময় লাগে।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!