এখন পড়ছেন
হোম > অন্যান্য > একমাত্র পেসার হিসাবে টেস্টের ‘এলিট ৬০০’ ক্লাবের সদস্য জেমস অ্যান্ডারসন! কুর্নিশ গোটা বিশ্বের

একমাত্র পেসার হিসাবে টেস্টের ‘এলিট ৬০০’ ক্লাবের সদস্য জেমস অ্যান্ডারসন! কুর্নিশ গোটা বিশ্বের



প্রিয় বন্ধু মিডিয়া রিপোর্ট – কথায় বলে, পঙ্গুর গিরি লঙ্ঘন। তবে সেটা তখনই সম্ভব হয়, যখন নাকি মনোবল থাকে সবচেয়ে বেশি। তেমনই বয়সটা যে কোনো বাঁধাই নয়, কেবল একটা সংখ্যা মাত্র তা আবারও প্রমাণ করে দিলেন ৩৮ বছর বয়সি ক্রিকেট তারকা জেমস্ মাইকেল অ্যান্ডারসন। বিশ্বের প্রথম এবং একমাত্র ফাস্ট বোলার হিসেবে যিনি টেস্ট ক্রিকেটে ৬০০টি উইকেট নিজের পকেটে পুরে নিয়েছেন।

করোনা পরিস্থিতি সামলে ক্রিকেট শুরু হয়েছে ইংল্যান্ডে। তবে সম্প্রতি টেস্ট খেলা চলছে ইংল্যান্ড বনাম পাকিস্তানের। আর সেখানেই এই দুর্দান্ত পাররম্যান্সের স্বাক্ষী হয়েছেন সকলে। শুধু তাই নয়, এর সঙ্গে জিতেছেন আরো একটি খেতাব। গ্লেন ম্যাগ্রার সঙ্গে পেসার হিসেবে যুক্ত হয়ে টেস্টে ২বার পাঁচটি করে উইকেট নেওয়ার রেকর্ডও গড়েছেন তিনি। আর সেই সঙ্গে সোশাল মিডিয়ায় শুভেচ্ছা বার্তায় মুখর হয়ে উঠেছে তাঁর অ্যাকাউন্ট। সেই তালিকায় প্রিয় জিমিকে শুভেচ্ছা জানানোর তালিকায় বিরাট কোহলি থেকে শুরু করে কে নেই !


WhatsApp-এ প্রিয় বন্ধু মিডিয়ার খবর পেতে – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের অন্যান্য সোশ্যাল মিডিয়া গ্রূপের লিঙ্ক – টেলিগ্রামফেসবুক গ্রূপ, ট্যুইটার, ইউটিউব, ফেসবুক পেজ

আমাদের Subscribe করতে নীচের বেল আইকনে ক্লিক করে ‘Allow‘ করুন।

এবার থেকে আমাদের খবর পড়ুন DailyHunt-এও। এই লিঙ্কে ক্লিক করুন ও ‘Follow‘ করুন।



আপনার মতামত জানান -

তাঁর এই ৬০০টি উইকেটের মধ্যে ১১০টিই ভারতীয় ক্রিকেটারদের মধ্যে রয়েছে। বাকি অনেকটাই অস্ট্রেলিয়া নেওয়া। তাঁর মধ্যে রয়েছে ১০৪টি উইকেট। এছাড়া দক্ষিণ আফ্রিকার ৮৩টি উইকেট, ওয়েস্ট ইন্ডিজের ৮৭টি উইকেট এবং পাকিস্তানের ৭৩টি উইকেট তাঁর দখলে। অর্থাৎ ৩৮৩টি উইকেট এখানেই পেয়েছেন তিনি। অস্ট্রেলিয়াতেও পেয়েছেন ৫০টিরও বেশি উইকেট। তাহলেই বুঝে দেখুন, এই তারকা কিভাবে নিজের খেলাকে দীর্ঘদিন ধরেই ভালো করার তাগিদ নিয়ে চলছেন।

ওইদিন পাকিস্তানের সঙ্গে ম্যাচে দ্বিতীয় ও তৃতীয় দিন দুটি করে উইকেট নেন তিনি। চতুর্থ দিন আসে ১টি উইকেট। তবে শেষ দিন একটি উইকেট নিয়েই নিজের নামে রেকর্ড করে ফেলেন অ্যান্ডারসন। তৃতীয় টেস্ট ড্র হওয়ায় পাকিস্তানের বিরুদ্ধে ১-০ ব্যবধানে ইংল্যান্ডই টেস্ট সিরিজে জয় লাভ করে। সত্যিই তিনি কার্নিশের যোগ্য দাবিদার।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!