এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > কলকাতা > তৃণমূল বিধায়কদের ক্ষোভের আগুনে ঘি ঢেলে মাস্টারস্ট্রোক দিলীপের? শেষমেশ সামলাতে পারবেন পিকে?

তৃণমূল বিধায়কদের ক্ষোভের আগুনে ঘি ঢেলে মাস্টারস্ট্রোক দিলীপের? শেষমেশ সামলাতে পারবেন পিকে?



প্রিয় বন্ধু মিডিয়া রিপোর্ট – শাসকদল তৃণমূল কংগ্রেসে দিনে দিনে বাড়ছে গৃহযুদ্ধ, বাড়ছে দলের ভাঙ্গন। একের পর এক বিধায়ক দলের প্রতি ক্ষোভ প্রকাশ করেই চলেছেন। যা নিয়ে অস্বস্তি বাড়ছে শাসক দলের। এবার দলের ভাঙ্গন রোধ করতে ময়দানে নেমেছেন প্রশান্ত কিশোর। গতমাসে দলের ভাঙ্গনরোধে পিকে উত্তরবঙ্গে গিয়েছিলেন, সম্প্রতি তিনি গেলেন শুভেন্দু অধিকারীর বাড়িতে। তবে, এ প্রসঙ্গে বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ জানালেন যে, এভাবে দলের ভাঙ্গন রোধ করতে পারবেন না পিকে। সেই সঙ্গে তিনি তৃণমূলের ভাঙ্গনের আগুনে ঘি ঢেলে দিলেন, বিক্ষুব্ধদের বিজেপিতে আমন্ত্রণ জানিয়ে।যা করে তিনি আরও অস্বস্তি বাড়িয়ে দিলেন শাসকদল তৃণমূলের।

গতমাসে দলের ভাঙ্গন রোধ করতে তৃণমূলের সেকেন্ড ইন কমান্ড অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়কে নিয়ে উত্তরবঙ্গ গিয়েছিলেন ভোট কুশলী পিকে। সম্প্রতি পরিবহনমন্ত্রী শুভেন্দু অধিকারীর বাড়িতে গিয়েছিলেন পিকে। উদ্দেশ্য ছিল শুভেন্দু অধিকারীর মান ভাঙানোর। তবে তাঁর সঙ্গে দেখা করতে পারেননি পিকে, তবে তাঁর সঙ্গে ফোনে কথা বলেছিলেন তিনি। তবে, তাতে কাজ কতদূর হয়েছে, তা নিয়ে প্রশ্ন আছে। তৃণমূল দলের ভাঙ্গন রোধ পিকে এভাবে রোধ করতে পারবেন না বলে মন্তব্য করলেন বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ।

সম্প্রতি উত্তর থেকে দক্ষিনে দেখা যাচ্ছে তৃণমূল দলের ভাঙ্গন।দলের প্রতি ক্ষুব্ধ হয়ে কোচবিহার দক্ষিনের বিধায়ক মিহির গোস্বামী দলের সমস্ত সাংগঠনিক পদ থেকে ইস্তফা দিয়েছেন। প্রয়োজনে তিনি বিধায়ক পদ ছেড়ে দেওয়ারও ইচ্ছা প্রকাশ করেছেন। দলের প্রতি ক্ষুব্ধ হয়ে নির্বাচনে লড়বেন না বলে জানিয়েছেন বিধায়ক শীলভদ্র দত্ত। সিঙ্গুরের বিধায়ক রবীন্দ্রনাথ ভট্টাচার্য দল ত্যাগের হুমকি দিয়েছেন। অন্যদিকে শুভেন্দু অধিকারী দলের প্রতি মুখ ফিরিয়ে নিয়েছেন। একাধিক সভা থেকে সরাসরি নাম না করেও একের পর এক বক্তব্য রাখছেন তিনি। এই প্রসঙ্গে তৃণমূল দলের বিরুদ্ধে একাধিক মন্তব্য করতে দেখা গেল বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষকে।


ফেসবুকে আমাদের নতুন ঠিকানা, লেটেস্ট আপডেট পেতে আজই লাইক ও ফলো করুন – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের টেলিগ্রাম গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের সিগন্যাল গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে



আপনার মতামত জানান -

তৃণমূলের একাধিক হেভিওয়েট বিধায়ক যখন দলের বিরুদ্ধে ক্ষুব্ধ, তখন সে আগুনে ঘি ঢাললেন বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ। তাঁর বার্তায় ঘুম ছুটে গেল শাসকদল তৃণমূলের। দলের বিক্ষুব্ধদের তিনি বিজেপিতে আসার আমন্ত্রণ জানালেন। তাঁর বক্তব্য, তৃণমূলের বিভাজন শুরু হয়ে গিয়েছে। দল রয়েছে বিভাজনের মুখে দাঁড়িয়ে। এ কারণেই পিকেকে মাঠে নামান হয়েছে। তাঁর কথায় পিকে বাড়ি বাড়ি গিয়ে বিক্ষুব্ধ নেতাদের বুঝিয়ে তাদের মান ভাঙানোর চেষ্টা করছেন। কিন্তু এতে কোনো লাভ হবে না বলেই তাঁর দাবি। কারণ পিকে নিজেই প্রমাণ দিচ্ছেন যে, দলে আড়াআড়ি বিভাজন শুরু হয়ে গিয়েছে।

দিলীপ ঘোষ জানালেন যে, শাসকদল তৃণমূলের বিভাজন রোধ করতে পারছেন না পিকে। কিন্তু বিজেপিতে বিভাজনের চেষ্টা করছেন তিনি। কোনো কূলকিনারা না পেয়েই এমন কাজ তিনি করছেন বলে জানালেন দিলীপ ঘোষ। সেই সঙ্গে তিনি জানান যে, তৃণমূল দলে থেকে যাঁরা কাজ করতে পারছেন না, যারা কাজ করতে চান তাদের বিজেপিতে চলে আসতে। তিনি জানালেন যে, আবর্জনাতে ভরে উঠেছে তৃণমূল। এই দলকে যারা তাড়াতে চান, যারা বাংলায় পরিবর্তন আনতে চান, তাদের জন্য সঠিক মাধ্যম হলো বিজেপি।

প্রসঙ্গত, লকডাউন পর্বে বিজেপিকে বারবার ভেঙেছিল তৃণমূল। এবার বিজেপি তৃণমূলে ভাঙ্গনের চেষ্টায় আছে। এদিকে আগামী বিধানসভা নির্বাচনে সম্মুখে দাঁড়িয়ে ক্রমশ ভাঙ্গন বাড়ছে তৃণমূল দলে। দলের বিক্ষুব্ধদের বিজেপিতে চলে আসার বার্তা দিয়ে শাসকদলের অস্বস্তিকে আরো বাড়িয়ে দিলেন বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!