এখন পড়ছেন
হোম > রাজনীতি > তৃণমূল > ফের প্রকাশ্যে তৃণমূলের গোষ্ঠীদ্বন্দ্ব, ২০২১ ঘিরে ক্রমশ বাড়ছে অস্বস্তি

ফের প্রকাশ্যে তৃণমূলের গোষ্ঠীদ্বন্দ্ব, ২০২১ ঘিরে ক্রমশ বাড়ছে অস্বস্তি



প্রিয় বন্ধু মিডিয়া রিপোর্ট – আগামী ২০২১ এর বিধানসভা নির্বাচন শাসকদল তৃণমূল পক্ষে একটি প্রেস্টিজিয়াস ফাইট হয়ে উঠেছে। কারণ, রাজ্যে ব্যাপক ভাবে নিজেদের প্রভাব বিস্তার করেছে রাজ্যের প্রধান বিরোধী দল বিজেপি। এই পরিস্থিতিতে শাসকদল তৃণমূল রাজ্যের শাসন ক্ষমতা ধরে রাখতে মরিয়া হয়ে উঠেছে। রাজ্যে নিজেদের সাংগঠনিক শক্তি বৃদ্ধির চেষ্টা চলছে সর্বদা। কিন্তু এর মধ্যেই অশনিসংকেত হয়ে দেখা দিচ্ছে জেলায় জেলায় শাসকদলের গোষ্ঠীদ্বন্দ্ব। রাজ্যের বিভিন্ন স্থানে শাসক দল তৃণমূলের গোষ্ঠীদ্বন্দ্বের খবর পাওয়া গিয়েছিল। ইতিমধ্যে মালদা জেলা থেকে তৃণমূলের গোষ্ঠীদ্বন্দ্বের খবর সামনে এলো।

মালদহ জেলার চাঁচল ১ ব্লক অফিস ঘেরাও করে প্রবল বিক্ষোভে সামিল হলেন তৃণমূল দলেরই বেশকিছু সদস্য। দলের প্রতি বিক্ষুব্ধ এই স্থানীয় তৃণমূল সদস্যরা অভিযোগ করেছেন যে, সঠিকভাবে অঞ্চল কমিটি, বুথ কমিটি গঠন না করে অর্থের বিনিময়ে বেশকিছু মানুষকে কমিটিতে স্থান দেয়া হয়েছে। সেই সঙ্গে তাঁরা অভিযোগ করেছেন যে, কমিটি গঠনের ক্ষেত্রে অন্যান্য নেতৃত্বকে কোন ভাবেই গুরুত্ব দেয়া হয়নি।

গতকাল শুক্রবার রাতে বিক্ষুব্ধ তৃণমূল কর্মী সমর্থকদের বিক্ষোভে উত্তপ্ত হয়ে উঠলো এলাকা। তৃণমূলের দলীয় অফিসে সামনে বিক্ষোভ দেখালেন তৃণমূলের বেশ কিছু কর্মী সমর্থক। তাঁরা অভিযোগ করেছেন যে, গত দু’দিন ধরে তারা দলীয় কার্যালয়ে একাধিকবার এসেও ব্লক সভাপতি সচিদানন্দ চক্রবর্তীর সঙ্গে দেখা করতে পারেননি। তবে তাদের মূল অভিযোগ, অর্থ নিয়ে অঞ্চল কমিটি তৈরি করার চক্রান্ত করছেন দলের ব্লক সভাপতি সচ্চিদানন্দ চক্রবর্তী। এছাড়াও ব্লক সভাপতির নামে আরও অনেক অভিযোগ জানালেন বিক্ষুব্ধরা।


WhatsApp-এ প্রিয় বন্ধু মিডিয়ার খবর পেতে – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের অন্যান্য সোশ্যাল মিডিয়া গ্রূপের লিঙ্ক – টেলিগ্রামফেসবুক গ্রূপ, ট্যুইটার, ইউটিউব, ফেসবুক পেজ

আমাদের Subscribe করতে নীচের বেল আইকনে ক্লিক করে ‘Allow‘ করুন।

এবার থেকে আমাদের খবর পড়ুন DailyHunt-এও। এই লিঙ্কে ক্লিক করুন ও ‘Follow‘ করুন।



আপনার মতামত জানান -

তবে, অর্থের বিনিময়ে অঞ্চল কমিটি গঠন করার অভিযোগকে সম্পূর্ণরূপে অস্বীকার করলেন ব্লক সভাপতি সচ্চিদানন্দ চক্রবর্তী। এ প্রসঙ্গে তিনি জানালেন যে, বিক্ষুব্ধ কিছু কর্মী সদস্যের এই বিক্ষোভের ফলে ক্ষতি হচ্ছে তৃণমূল দলেরই। আবার এই বিক্ষোভের ঘটনায় ব্লক সভাপতির পাশে এসে দাঁড়াতে দেখা গেল জেলা তৃণমূল নেতৃত্বকে। জেলা তৃণমূলের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে যে, যারা এভাবে তাঁর প্রতি বিক্ষোভ প্রদর্শন করছেন, তারা ভুল কাজ করেছেন। এ বিষয়ে জেলা নেতৃত্বের পক্ষ থেকে তাদেরকে সতর্ক করে দেয়া হবে বলে জানানো হয়েছে।

গতকাল রাতে তৃণমূলের কিছু সদস্যের এই বিক্ষোভ নিয়ে ব্যঙ্গ ও কটাক্ষ করলেন মালদা জেলা বিজেপির সহ সভাপতি অজয় গঙ্গোপাধ্যায়। এ প্রসঙ্গে তিনি জানালেন যে, কাটমানি ও তৃণমূল বর্তমানে সমার্থক শব্দ হয়ে দাঁড়িয়েছে। আবার গোষ্ঠীদ্বন্দ্ব ও তৃণমূলও সমার্থক শব্দ। তাঁর দাবি, আগামী ২০২১ এর বিধানসভা নির্বাচন যতই সামনে এগিয়ে আসতে থাকবে, ততই মালদা জেলা জুড়ে তৃণমূল দলের মধ্যে চলতে থাকবে এরকম গোষ্ঠীদ্বন্দ্ব।

প্রসঙ্গত শাসকদল তৃণমূলের ক্রমবর্ধমান গোষ্ঠীদ্বন্দ্ব দলের শীর্ষ নেতৃত্বকে যথেষ্ট চিন্তায় ফেলেছে। রাজ্যের স্থানে স্থানে দেখা দিচ্ছে দলের গোষ্ঠীদ্বন্দ্ব। যে মেটাতে অনেক সময় বেগ পেতে হচ্ছে দলের শীর্ষ নেতৃত্বকে। আগামী ২০২১ এর বিধানসভা নির্বাচনের আগে আগে যা ক্রমাগত উদ্বেগ বাড়াচ্ছে দলের।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!