এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > মমতার শহীদ দিবসের পাল্টা শুভেন্দুর শহীদ দিবস, উত্তাল রাজ্য রাজনীতি!

মমতার শহীদ দিবসের পাল্টা শুভেন্দুর শহীদ দিবস, উত্তাল রাজ্য রাজনীতি!



প্রিয় বন্ধু মিডিয়া রিপোর্ট-এই প্রথম শুভেন্দু অধিকারীকে বাদ দিয়ে অনুষ্ঠিত হচ্ছে তৃণমূলের বাৎসরিক বড় কর্মসূচি একুশে জুলাইয়ের শহীদ দিবস। গত বিধানসভা নির্বাচনের আগে শুভেন্দু অধিকারী তৃণমূল কংগ্রেস ছেড়ে যোগ দিয়েছিলেন ভারতীয় জনতা পার্টিতে। এখন তিনি মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের প্রধান প্রতিপক্ষ হিসেবেই পরিচিত। রাজ্য বিধানসভার বিরোধী দলনেতা। প্রতি সময় সরকারের বিরুদ্ধে সোচ্চার হতে দেখা যায় তাকে। আর ধর্মতলায় একুশে জুলাইয়ের সভা গতবারের মতো এবারেও করোনা পরিস্থিতির কারণে করা সম্ভব হচ্ছে না।

সেদিক থেকে ভার্চুয়ালি বক্তব্য রাখবেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। আর তার এই বক্তব্যের প্রধান বিষয় থাকবে বিজেপির বিরোধিতা বলেই মনে করা হচ্ছে। তবে তৃণমূল কংগ্রেসকে পাল্টা টেক্কা দিতে এই শহীদ দিবস নিয়ে নয়া পরিকল্পনা করেছে ভারতীয় জনতা পার্টি। যেখানে কাঁটা দিয়ে কাঁটা তোলার কর্মসূচি গ্রহণ করেছে তারা। মূলত, নির্বাচনের পরবর্তী সময়কালে বিজেপির প্রচুর নেতাকর্মীরা প্রাণ হারিয়েছেন বলে খবর। তাই তাদের প্রতি সম্মান জানাতেই তৃণমূলের একুশে জুলাইয়ের দিনেই পাল্টা শহীদ দিবস করে শাসককে চাপে রাখতে চাইছে ভারতীয় জনতা পার্টি। এক্ষেত্রে বিজেপির পক্ষ থেকে একুশে জুলাইয়ের আয়োজন করা হবে। যেখানে প্রধান নেতৃত্ব দেবেন, মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের একসময়কার সতীর্থ কথা তৃণমূলের একুশে জুলাইয়ে দীর্ঘদিন ধরে প্রধান বক্তার ভূমিকায় থাকা বর্তমান রাজ্য বিজেপির অন্যতম প্রধান মুখ শুভেন্দু অধিকারী।

 

আমাদের নতুন ফেসবুক পেজ (Bloggers Park) লাইক ও ফলো করুন – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের টেলিগ্রাম গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের সিগন্যাল গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে



আপনার মতামত জানান -

 

সূত্রের খবর, আজ কলকাতার হেস্টিংসের বিজেপি রাজ্য দপ্তরের শুভেন্দু অধিকারীর নেতৃত্বে শহীদ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হবে। আর এখানেই নানা মহলে প্রশ্ন তৈরি হয়েছে। বিজেপির এত নেতা থাকতে কেন তৃণমূল থেকে আগত শুভেন্দু অধিকারীর হাতে তৃণমূলের পাল্টা একুশে জুলাইয়ের সহিত কর্মসূচির দায়িত্ব দিতে চলেছে ভারতীয় জনতা পার্টি? একাংশের মতে, মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের দীর্ঘদিনের সঙ্গী শুভেন্দু অধিকারীর হাতে একুশে জুলাইয়ের পাল্টা বিজেপির এই শহীদ দিবসের দায়িত্ব দেওয়ার পিছনে বড় কারণ রয়েছে। এক্ষেত্রে শুভেন্দু অধিকারী তৃণমূলের শহীদ দিবসকে যেমন কটাক্ষ করবেন, ঠিক তেমনই নিজেদের প্রাণ হারানো নেতা কর্মীদের কথা তুলে ধরে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে এই শহীদ দিবসের মঞ্চ থেকে পাল্টা প্রশ্নের মুখে ফেলে দেবেন।

কেননা শুভেন্দু অধিকারী বিজেপিতে যোগদান করার পর দেখিয়ে দিয়েছেন, মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের অস্বস্তি তিনি কতটা বাড়িয়ে দিতে পারেন। বিরোধী দলনেতা হওয়ার পর বিধানসভার ভেতরে এবং বাইরে তার প্রতিবাদ বিজেপির রাজ্য থেকে শুরু করে কেন্দ্রীয় নেতৃত্বের কাছে বাড়তি অক্সিজেন যুগিয়েছে। তাই এহেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের এক সময়কার সঙ্গী তথা বর্তমানে তার প্রধান বিরোধী মুখেই তৃণমূলের একুশে জুলাইয়ের পাল্টা সমাবেশের দায়িত্ব দিয়ে কার্যত তৃণমূল নেত্রীর বিড়ম্বনা বাড়িয়ে দেওয়ার কৌশল নিল ভারতীয় জনতা পার্টি বলেই মনে করছেন রাজনৈতিক বিশেষজ্ঞরা।

 

অনেকেই বলতে শুরু করেছেন, আজ রাজ্য রাজনীতিতে দেখার মতো লড়াই হতে চলেছে। একদিকে কালিঘাট থেকে শহীদ দিবসের স্বপক্ষে বক্তব্য রাখবেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়, অন্যদিকে এতদিন তার শহীদ দিবসের মঞ্চে যিনি আলো করে থাকতেন, সেই শুভেন্দু অধিকারী হেস্টিংসের বিজেপির রাজ্য দপ্তর থেকে প্রাণ হারানো বিজেপি নেতা কর্মীদের স্মরণ করে পাল্টা তৃণমূলকে চাপে রাখতে পালন করবেন শহীদ দিবস। অর্থাৎ এতদিন তৃণমূলের পক্ষ থেকে একুশে জুলাই শুধুমাত্র তাদের বলেই দাবি করা হত। কিন্তু এবার যে শাসক দলের পাশাপাশি 21 শে জুলাই শহীদ দিবস হিসেবে কেড়ে নিল ভারতীয় জনতা পার্টিও, তা শুভেন্দু অধিকারীর নেতৃত্বে এই কর্মসূচির মধ্যে দিয়েই অন্যমাত্রা পেতে চলেছে বলেই মনে করা হচ্ছে। সব মিলিয়ে গোটা পরিস্থিতি কোথায় গিয়ে দাঁড়ায়, সেদিকেই নজর থাকবে সকলের।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!