এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > উত্তরবঙ্গ > বিজেপিতে যোগ দিয়েই ‘অমিত বলে’ শক্তিশালী হয়ে তৃণমূলের দুর্নীতি নিয়ে পর্দাফাঁস মিহির গোস্বামীর

বিজেপিতে যোগ দিয়েই ‘অমিত বলে’ শক্তিশালী হয়ে তৃণমূলের দুর্নীতি নিয়ে পর্দাফাঁস মিহির গোস্বামীর



আপনাদের সুবিধার্থে খবরের শেষে বিধানসভা ২০২১ উপলক্ষে আমাদের করা সর্বশেষ সমীক্ষার প্রতিটির লিঙ্ক দেওয়া আছে।

আপনার মতামত জানান -

প্রিয় বন্ধু মিডিয়া রিপোর্ট – তৃণমূলের তরফে অনেক চেষ্টা করা হয়েছিল তাকে দলে রাখবার জন্য। কিন্তু শেষরক্ষা হয়নি। শুক্রবার দিল্লিতে গিয়ে বিজেপির সদর দপ্তরে উপস্থিত থেকে গেরুয়া শিবিরে নাম লেখান কোচবিহার দক্ষিণের বিধায়ক মিহির গোস্বামী। বিধানসভা নির্বাচনের আগে নিঃসন্দেহে একজন তৃণমূল বিধায়কের বিজেপিতে যোগদান তৃণমূল কংগ্রেসের কাছে চাপের কারণ। তবে দীর্ঘদিন ধরে তৃণমূল দলে থাকা এই বিধায়ক বিজেপিতে যোগদান করে শাসকদলের বিরুদ্ধে কোন কোন বিষয়ে সরব হবেন, তা দেখার বিষয় হয়ে দাঁড়িয়েছিল রাজনৈতিক মহলের কাছে।

এদিকে বিজেপিতে যোগ দেওয়ার পরেরদিন অর্থাৎ শনিবার কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহের সঙ্গে দেখা করেন মিহির গোস্বামী। যেখানে তার সাথে উপস্থিত ছিলেন কোচবিহারের বিজেপি সাংসদ নিশীথ প্রামানিক। জানা গেছে, অমিত শাহর কাছে উত্তরবঙ্গের মানুষের জন্য নানা উন্নয়নের দাবি দাওয়া করেছেন মিহিরবাবু।

সূত্রের খবর, শনিবার একটি ফেসবুক পোস্টে মিহিরবাবু উল্লেখ করেন, কেন তিনি তৃণমূল কংগ্রেস ত্যাগ করেছেন। যেখানে কোচবিহার দক্ষিণের এই বিজেপি বিধায়ক লেখেন, “আমার বিজেপিতে যাওয়ার সিদ্ধান্ত মূলত অনাচারের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ। একটি দল ক্রমাগত তোলাবাজি ও চাকরি পাইয়ে দেওয়ার জন্য কাটমানি খাওয়ার অভিযোগে অভিযুক্ত, যেখানে সম্মান শব্দটি অনুপস্থিত। যেখানে মানুষের জন্য কাজ করাটা আসল উদ্দেশ্য নয়। যে দলে অধিকাংশ নেতা দুর্নীতিপরায়ন হয়ে ওপরতলা থেকে প্রশ্রয় পান, সেই দলে আমার মত মানুষের প্রয়োজন নেই।”

অর্থ্যাৎ এই বিজেপি বিধায়ক নিজের বক্তব্যের মধ্য দিয়ে পরিষ্কার করে দিলেন যে, তার তৃণমূল কংগ্রেস ত্যাগ করার পেছনে দুর্নীতি সবথেকে বেশি দায়ী। স্বাভাবিকভাবেই দল থেকে বেড়িয়ে বিজেপিতে যোগদান করার পরদিনই মিহিরবাবু যেভাবে দুর্নীতি ইস্যুতে তৃণমূলের বিরুদ্ধে সরব হলেন, তাতে তৃণমূল কংগ্রেস ব্যাপক চাপে পড়ল বলেই মনে করছেন বিশেষজ্ঞরা। আগামী বিধানসভা নির্বাচনের আগে সদ্য-প্রাক্তন এই তৃণমূল নেতা তাঁর প্রাক্তন দলের বিরুদ্ধে যে আরও অনেক বিষয় নিয়ে সরব হবেন, তা বলার অপেক্ষা রাখে না। যা বিজেপিকে নতুনভাবে মাইলেজ পাইয়ে দেবে বলেই মনে করছেন রাজনৈতিক বিশেষজ্ঞরা।

আমাদের নতুন ফেসবুক পেজ (Bloggers Park) লাইক ও ফলো করুন – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের টেলিগ্রাম গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের সিগন্যাল গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে



আপনার মতামত জানান -

কিন্তু বিজেপিতে যোগদানের পরের দিনই যেভাবে তিনি অমিত শাহর সঙ্গে দেখা করলেন, তাতে দুই নেতার মধ্যে কি কথা হল! এদিন এই প্রসঙ্গে মিহির গোস্বামী বলেন, “একটি সংক্ষিপ্ত পত্রে বাংলাদেশ-ভুটান সীমান্তের বিভিন্ন অপরাধমূলক কাজকর্ম নিয়ে মাননীয় অমিত শাহর দৃষ্টি আকর্ষণ করেছি।” পাশাপাশি পিছিয়ে পড়া উত্তরবঙ্গের মানুষের কথা বলার এবং কাজ করার সুযোগ পেতেই তিনি বিজেপিতে যোগ দিয়েছেন বলে দাবি করেন মিহির গোস্বামী।

একাংশ বলছেন, বিজেপিতে যোগদানের পরেরদিনই মিহিরবাবু অমিত শাহের সঙ্গে দেখা করে শুধুমাত্র এলাকা গত সমস্যার কথা বলেছেন, এমনটা ভাবলে ভুল হবে। আগামী বিধানসভা নির্বাচনের ব্যাপারে ও উত্তরবঙ্গের রাজনৈতিক সমীকরণ নিয়েও দুই নেতার মধ্যে বিস্তর আলোচনা হয়েছে বলে দাবি করছেন একাংশ। অর্থাৎ বিধানসভা নির্বাচনের আগে উত্তরবঙ্গের এই হেভিওয়েট তৃণমূল বিধায়ক বিজেপিতে যোগ দেওয়ার সাথে সাথেই তার মধ্যে দিয়ে তৃণমূলকে ভাঙ্গানোর চেষ্টা করতে পারে গেরুয়া শিবির বলে দাবি বিশেষজ্ঞদের।

যার পরিপ্রেক্ষিতে বিজেপিতে যোগ দেওয়ার পরের দিনই বিজেপির সর্বভারতীয় চাণক্যের সঙ্গে দেখা করলেন মিহির গোস্বামী। সব মিলিয়ে গোটা পরিস্থিতি কোথায় গিয়ে দাঁড়ায়, আগামী দিনে মিহিরবাবু তৃণমূলের বিরুদ্ধে আর কোন কোন বিষয়ে সরব হয়ে ঘাসফুল শিবিরের অস্বস্তি বাড়িয়ে দেন, সেদিকেই নজর থাকবে সকলের।

একনজরে দেখে নিন আমাদের সর্বশেষ বিধানসভা ২০২১ ওপিনিয়ন পোল –

# মুর্শিদাবাদ জেলার ওপিনিয়ন পোল – দ্বিতীয় পর্ব – 

# মুর্শিদাবাদ জেলার ওপিনিয়ন পোল – প্রথম পর্ব – 

# মালদহ জেলার ওপিনিয়ন পোল –

# দক্ষিণ দিনাজপুর জেলার ওপিনিয়ন পোল –

# উত্তর দিনাজপুরে জেলার ওপিনিয়ন পোল –

# জলপাইগুড়ি ও কালিম্পঙ জেলার ওপিনিয়ন পোল –

# আলিপুরদুয়ার ও দার্জিলিং জেলার ওপিনিয়ন পোল –

# কুচবিহার জেলার ওপিনিয়ন পোল –

আপনার মতামত জানান -
আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!