এখন পড়ছেন
হোম > রাজনীতি > তৃণমূল > এবার উপনির্বাচন নিয়ে চাপের মুখে গেরুয়া শিবির, সৌজন্যে প্রতিপক্ষ তৃণমূল

এবার উপনির্বাচন নিয়ে চাপের মুখে গেরুয়া শিবির, সৌজন্যে প্রতিপক্ষ তৃণমূল



প্রিয় বন্ধু মিডিয়া রিপোর্ট –  দীর্ঘদিন ধরে পূর্ব মেদিনীপুরে অধিকারী পরিবারের একচেটিয়া রাজত্ব দেখা গিয়েছে। বিধায়ক থেকে সাংসদ পুরোটাই অধিকারী পরিবারের দখলে ছিল। 2019 এ লোকসভা নির্বাচনে দেখা গিয়েছিল, অধিকারী পরিবারের পক্ষ থেকে শিশির অধিকারী এবং দিব্যেন্দু অধিকারি সাংসদ পদ দখল করেছেন। কিন্তু এর পরেই 2021 এর বিধানসভা নির্বাচনের আগে বিধায়ক পদ থেকে ইস্তফা দেন শুভেন্দু অধিকারী। আর তারপরেই বিজেপিতে যোগ দেন তাঁর বাবা সাংসদ শিশির অধিকারী।

কিন্তু শিশির অধিকারী বিজেপিতে যোগ দিলেও নিজের সাংসদ পদটি কিন্তু এখনও ছাড়েননি। আর তাই নিয়েই এবার কড়া পদক্ষেপের পথে তৃণমূল। 2019 এর লোকসভা নির্বাচনে অধিকারী পরিবারের দুই সদস্য শিশির অধিকারী এবং তাঁর ছেলে দিব্যেন্দু অধিকারি যথারীতি কাঁথি এবং তমলুক থেকে সাংসদ পদে এসেছিলেন। শিশির অধিকারী দল ছেড়ে চলে গেলেও দিব্যেন্দু অধিকারী কিন্তু এখনও তৃণমূল শিবিরে রয়ে গেছেন। যদিও পারতপক্ষে তিনি এখন দলকে এড়িয়ে চলেন।

অন্যদিকে জানা গিয়েছে, শিশির অধিকারীর সাংসদ পদ বাতিল করার জন্য ইতিমধ্যেই লোকসভার স্পিকার ওম বিড়লার ওপর চাপ সৃষ্টি করেছে তৃণমূল। সেক্ষেত্রে তৃণমূলের দাবি, দল বিরোধী আইনের প্রয়োগ করা হোক শিশির অধিকারীর ওপর। তবে লোকসভার স্পিকার যদি আইন প্রণয়ন না করেন, তাহলে তৃণমূল যে আদালতের শরণাপন্ন হবে, সে কথাও জানিয়েছে। অন্যদিকে যদি শিশির অধিকারীর সাংসদ পদ বাতিল হয় তাহলে কাঁথি লোকসভা কেন্দ্রে উপনির্বাচন হবে। সেক্ষেত্রে বর্তমান রাজনৈতিক পরিস্থিতিতে বিজেপির জয় নিয়ে ব্যাপক সন্দেহ দেখা গিয়েছে।

আমাদের নতুন ফেসবুক পেজ (Bloggers Park) লাইক ও ফলো করুন – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের টেলিগ্রাম গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের সিগন্যাল গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে



আপনার মতামত জানান -

বিধানসভা নির্বাচনে পূর্ব মেদিনীপুর জেলায় 16 টি আসনে নির্বাচন হয়েছিল। যার মধ্যে মাত্র সাতটিতে বিজেপি জিততে পেরেছে। তার মধ্যে রয়েছে, ময়না, হলদিয়া, নন্দীগ্রাম, খেজুরি, কাঁথি উত্তর, কাঁথি দক্ষিণ ও ভগবানপুর যার মধ্যে শেষ চারটি পুরসভা কাঁথি লোকসভা কেন্দ্রের মধ্যে পড়ে। যথারীতি এই কেন্দ্রগুলিতে কিন্তু বিজেপি এগিয়ে রয়েছে। কিন্তু তা সত্বেও গেরুয়া শিবিরের একাংশের মতে, এই মুহূর্তে ওই কেন্দ্রে উপনির্বাচন হলে তাঁদের জয় হবে কিনা তা নিয়ে সন্দেহ থাকছে।

এ প্রসঙ্গে জানা যাচ্ছে, ভালো ব্যবধানে কাঁথি লোকসভা কেন্দ্রের মধ্যে থাকা চারটি বিধানসভা কেন্দ্রে বিজেপির জয় হয়েছে। কিন্তু তা সত্বেও বিধানসভা নির্বাচনের ফলাফল ব্যাপকভাবে প্রভাব বিস্তার করছে এলাকায়। কাঁথি লোকসভা কেন্দ্রের মধ্যে থাকা বিজেপির চারটি কেন্দ্রের জয় হলেও তিনটি কেন্দ্রে তৃণমূলের তৃণমূলের জয় হয়েছে। সেখানে তৃণমূল এগিয়ে আছে 35 হাজার 983 ভোটে। সামগ্রিকভাবে দেখতে গেলে কিন্তু বিজেপি এগিয়ে রয়েছে। কিন্তু তাও বিধানসভা নির্বাচনের পরে এবার উপনির্বাচন, পুরনির্বাচন পরপর হতে চলেছে। সেক্ষেত্রে জেলার পুর নির্বাচনে যদি তৃণমূলের জয় হয়, তাহলে কাঁথি লোকসভা কেন্দ্রে উপনির্বাচনে বিজেপির জয় বড় প্রশ্নের মুখে পড়তে চলেছে বলে ইঙ্গিত দেওয়া হচ্ছে।

একই সাথে রাজ্যে বর্তমানে তৃণমূল সরকার ব্যাপক ভোটে ক্ষমতায় এসেছে। পাশাপাশি 2024 এর লোকসভা নির্বাচনে কেন্দ্রের হাতে আর ক্ষমতা থাকবে কিনা তা নিয়েও কিন্তু গুঞ্জন শুরু হয়েছে রাজনৈতিক মহলে। এই অবস্থায় বিজেপির ভোট পাওয়াটাই এখন চাপের বলে মনে করছেন বিশেষজ্ঞরা। অন্যদিকে নন্দীগ্রামে শুভেন্দু অধিকারীর তৃণমূল নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের বিরুদ্ধে জয় বিজেপি কর্মীদের আত্মবিশ্বাস বাড়ানোর কাজ করবে বলে মনে করেন বিশেষজ্ঞরা। তবে এই পরিস্থিতিতে যদি শিশির অধিকারীর সাংসদ পদ বাতিল হয়, তাহলে উপ-নির্বাচন অবশ্যম্ভাবী। সে ক্ষেত্রে দুই পক্ষই যে মারাত্মক ভাবে চেষ্টা করবে জয় নিয়ে আসার সে কথা বলাই বাহুল্য।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!