এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > রেশন ব্যাবস্থায় নয়া নিয়ম, জেনে নিন, নাহলে আর পাবেন না এই সুবিধা

রেশন ব্যাবস্থায় নয়া নিয়ম, জেনে নিন, নাহলে আর পাবেন না এই সুবিধা



এবার থেকে নতুন পদ্ধতিতে গ্রাহকরা রেশন তুলতে পারবেন। কেন্দ্রীয় সরকারের নিয়ম অনুযায়ী আগামী এপ্রিল মাস থেকে শুরু হচ্ছে গ্রাহকদের আঙ্গুলের ছাপ মিলিয়ে রেশন দেওয়ার ব্যবস্থা। আর কেন্দ্রের এই ফরমানেই অনিশ্চিত হতে বসেছে গরিবের দু টাকা কেজি চাল বলে মনে করছেন রাজনৈতিক মহল। অন্যদিকে, রেশন কার্ডের সঙ্গে যদি আধার কার্ড সংযুক্ত না হয় তাহলে পরবর্তীতে আর রেশন তুলতে পারবেন না কেউ এবং এই রেশন কার্ড এবং আধার কার্ডের সংযুক্তিকরণ এর কাজ সম্পন্ন হলেই আঙ্গুলের ছাপ দিলে তবেই পাওয়া যাবে রেশন।

এবার থেকে রেশন ব্যবস্থায় স্বচ্ছতা আনার জন্য রাজ্য খাদ্য দপ্তর আঙ্গুলের ছাপ মিলিয়ে সরকারি ভর্তুকিতে চাল গম দেওয়ার ব্যবস্থা করেছেন। সূত্রের দাবি, রেশনিং ব্যবস্থায় যাতে কোনরকম অনিয়ম না হয়, তার জন্যই এই আঙুলের ছাপ দিয়ে রেশন তোলার ব্যবস্থা করা হচ্ছে। শুধু তাই নয়, যাতে প্রকৃত কোন গ্রাহক রেশনের খাদ্যপণ্য পেতে বঞ্চিত না হন, তার জন্য এই আঙ্গুলের ছাপ দিয়ে রেশন তোলার ব্যবস্থা করা হয়েছে।

বর্তমানে রাজ্য জুড়ে রেশন এবং আধার সংযুক্তিকরণ এর কাজ চলছে। ইতিমধ্যে রাজ্যের প্রায় 7 কোটি 80 লক্ষ গ্রাহক এই সংযুক্তিকরণ এর আওতায় এসে গেছেন। 15 ই ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত বাকিদের সংযুক্তিকরণ এর কাজ হয়ে যাবে বলে আশা রাখছে রাজ্য খাদ্য দপ্তর। অন্যদিকে, কেন্দ্রীয় সরকার এই সংযুক্তিকরণ এর সময়সীমা আগামী 31 মার্চ পর্যন্ত বাড়িয়ে দিয়েছে।

ভবিষ্যতে যাতে গ্রাহকরা আঙুলের ছাপ দিয়ে রেশন দোকান থেকে মাল তুলতে পারেন তার জন্যই আধার এবং রেশন কার্ডের সংযুক্তিকরণ করা হচ্ছে বলে জানা গেছে। সূত্রের খবর, খাদ্য দপ্তর থেকে ঠিক করা হয়েছে আগামী দিনে সপ্তাহের দুদিন গ্রাহকদের আঙ্গুলের ছাপ নথিভূক্ত করা হবে ই পস যন্ত্রের মাধ্যমে। ইতিমধ্যে জানা গেছে, পরিবারের যাদের রেশন কার্ড আছে, তাদের প্রত্যেককেই আঙ্গুলের ছাপ দেওয়ার যন্ত্রে নাম নথিভুক্ত করতে হবে।


দেশে যে কোনো দিন ব্যান হয়ে যেতে পারে হোয়াটস্যাপ। তাই এখন থেকে আমরা শুধুমাত্র টেলিগ্রাম ও সিগন্যাল অ্যাপে। প্রিয় বন্ধু মিডিয়ার নিউজ নিয়মিতভাবে পেতে যোগ দিন –

টেলিগ্রাম গ্রূপটাচ করুন এখানে

সিগন্যাল গ্রূপটাচ করুন এখানে



আপনার মতামত জানান -

এর ফলে রেশন দোকান থেকে মাল সংগ্রহ করার সময় পরিবারের যেকোনো একজনের আঙুলের ছাপ দিয়ে রেশন তোলা যাবে বলে জানা গেছে। ফলে রেশন সরবরাহ করতে গিয়ে যে পরিমাণ খাদ্যদ্রব্য পাচার হয়, সেগুলি আটকানো যাবে বলে মত রাজ্য খাদ্য দপ্তরের। এদিকে জানুয়ারি মাসের শেষের দিকে রেশন কার্ড আবেদনকারীদের কাছে কার্ড পাঠানোর প্রক্রিয়া শুরু হবে বলে জানা গেছে। প্রায় কুড়ি লক্ষ আবেদনকারীরা নতুন রেশন কার্ড পাবেন।

অতএব ভবিষ্যতে রেশন পেতে হলে মিলতে হবে আঙুলের ছাপ। প্রতিবার রেশন তোলার সময় দোকানে গিয়ে আঙ্গুলের ছাপ মিললেই পাওয়া যাবে প্রাপ্য রেশন। কিন্তু আঙ্গুলের ছাপ না মিললে পাওয়া যাবে না তা। রাজ্যে এখন রেশন দোকানে ই পস মেশিন বসানোর কাজ প্রায় শেষ। এখন থেকে এই মেশিনের মাধ্যমে সংযুক্ত করতে হবে আধার কার্ড। প্রথম পর্যায়ে আধার কার্ডের নম্বর দিয়ে আধার সিডিং করাতে হবে।

তারপর পর্যায়ক্রমে আঙ্গুলের ছাপ দিলে তবে আধার কার্ড অথেন্টিকেশন হবে রেশন দোকানে। এরপর থেকে রেশন দোকানে গিয়ে আঙ্গুলের ছাপ মিলিয়ে ওই পরিবার বা ব্যক্তির প্রাপ্য চাল, গম, আটা দেওয়া হবে। মেশিন থেকে দামের রশিদ বেরিয়ে আসবে। সে কাগজ বের হবে তখনই যখন আঙ্গুলের ছাপ মিলবে। ফিঙ্গারপ্রিন্ট না মিললে কোনভাবেই সামগ্রী পাওয়া যাবে না বলে জানা গিয়েছে। আপাতত খবর, কেন্দ্রের সিদ্ধান্তের সঙ্গে সহমত হয়ে খাদ্য দপ্তর ফিঙ্গারপ্রিন্ট ব্যবহার করায় সম্মত হয়েছে।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!