এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > কলকাতা > এবার প্রার্থী নিজেই বেঁকে বসলেন, বলে দিলেন বিজেপিতে যোগই দেননি, তীব্র চাঞ্চল্য

এবার প্রার্থী নিজেই বেঁকে বসলেন, বলে দিলেন বিজেপিতে যোগই দেননি, তীব্র চাঞ্চল্য



প্রিয় বন্ধু মিডিয়া রিপোর্ট – কিছুদিন আগে সোমেন মিত্রর স্ত্রী শিখা মিত্রর সঙ্গে যোগাযোগ করে গেরুয়া শিবিরের নেতা শুভেন্দু অধিকারী। এরপর বিজেপির তরফ থেকে দাবি করা হয়, শিখা মিত্র বিজেপিতে যোগদান করেছেন। এবং আজকে চৌরঙ্গী থেকে শিখা মিত্রকে প্রার্থী পর্যন্ত ঘোষণা করে দেয় বিজেপি। আর তারপরেই তাল কাটে বিজেপির।

প্রার্থী তালিকা প্রকাশের পর শিখা মিত্র সামনে আসেন এবং জানান, বিজেপিতে তিনি যোগদান করেননি। তাঁকে অন্ধকারে রেখে প্রার্থীপদে তাঁর নাম তোলা হয়েছে। খুব স্বাভাবিকভাবেই সেখান থেকে শুরু হয়েছে নতুন বিতর্ক। আর এই ঘটনা নতুন করে রাজনৈতিক মহলে তীব্র আলোড়ন সৃষ্টি করেছে।

অন্যদিকে দেখা গেছে, এর আগে শিখা মিত্র এবং তাঁর ছেলে দুজনেই তৃণমূলের বিরুদ্ধে যথেষ্ট ক্ষোভ প্রকাশ করেছিলেন। সেখানে যখন বিজেপির বিরুদ্ধে মুখ খুললেন শিখা মিত্র প্রকাশ্যে প্রার্থী তালিকায় আসার পর, ঠিক সে সময় তাঁর বাড়িতে পৌঁছে গেলেন তৃণমূল কংগ্রেসের অন্যতম মুখপাত্র কুণাল ঘোষ। 

খুব স্বাভাবিকভাবেই নতুন করে আবার কোন সমীকরণ গড়ে উঠছে কিনা, সেদিকে নজর হয়েছে সবার। চৌরঙ্গী এলাকায় বিজেপি সোমেন মিত্রর স্ত্রী শিখা মিত্রকে প্রার্থী করেছে। এবার স্বাভাবিকভাবে ওই এলাকায় তাঁকে টিকিট দিয়ে চমক দিতে চেয়েছে বিজেপি। কিন্তু মনে করা হচ্ছে, চমক দিতে গিয়ে বিজেপি শেষে নিজেরাই বেকায়দায় পড়ল।

কারণ প্রার্থী তালিকায় নাম রয়েছে একথা জানার পরেই শিখা মিত্র বিজেপি শিবিরে অস্বস্তি বাড়িয়ে দিয়েছেন। প্রকাশ্যে অভিযোগ করেছেন, তাঁর নামে গুজব ছড়ানো হচ্ছে। কোনোভাবেই তিনি চৌরঙ্গী কেন্দ্র থেকে প্রার্থী হচ্ছেন না। প্রকাশ্যেই তিনি বিজেপির বিরুদ্ধে যাবতীয় ক্ষোভ উগড়ে দিয়েছেন। সোমেন মিত্রর ছেলেও প্রকাশ্যে এই নিয়ে বিজেপির বিরুদ্ধে মুখ খুলেছেন।

আমাদের নতুন ফেসবুক পেজ (Bloggers Park) লাইক ও ফলো করুন – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের টেলিগ্রাম গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের সিগন্যাল গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে



আপনার মতামত জানান -

যখন শিখা মিত্র বিজেপির বিরুদ্ধে ক্ষোভ উগরে দিচ্ছেন, ঠিক সেইসময় তাঁর বাড়িতে হাজির হয়ে যান তৃণমূল কংগ্রেসের মুখপাত্র কুণাল ঘোষ। যদি ওর পরিবারের সঙ্গে কুণল ঘোষের দীর্ঘদিনের সম্পর্ক বলে শোনা যায়। কুণাল ঘোষ দাবি করেছেন, পুরনো সম্পর্কের জেরে তিনি চা খেতে এসেছিলেন।

যদিও পুরো ঘটনাটি কাকতালীয় বলে দাবি করেছেন তৃণমূল কংগ্রেসের মুখপাত্র। এরপরেই শিখা মিত্রর রাজনৈতিক অবস্থান নিয়ে শুরু হয়েছে ব্যাপক জল্পনা। ঠিক এভাবেই একসময় শিখা মিত্রর বাড়িতে দেখা দিয়েছিল শুভেন্দু অধিকারীকে। জানা যায়, শিখা মিত্র তখন জানিয়েছিলেন, পরিস্থিতি নিয়ে চিন্তাভাবনা চলছে। 

কিন্তু বিজেপিতে যোগদানের কথা তিনি কখনোই স্পষ্ট করে বলেননি। সবমিলিয়ে 148 টি আসনের প্রার্থী ঘোষণার পর থেকেই শুরু হয়েছে আবারও রাজ্যজুড়ে বিজেপি শিবিরে অশান্তি। আর সেই অশান্তিকে আরও উস্কে দিলেন শিখা মিত্র। বিশেষজ্ঞদের মতে, ভোটের মুখে এসে বড়সড় অস্বস্তির মুখে বিজেপি।

আপনার মতামত জানান -

ট্যাগড
Top
error: Content is protected !!