এখন পড়ছেন
হোম > রাজনীতি > কংগ্রেস > এবার মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে নোবেল পুরস্কার দাবি জানালেন অধীর চৌধুরী! কারণ জানলে চমকে যাবেন!

এবার মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে নোবেল পুরস্কার দাবি জানালেন অধীর চৌধুরী! কারণ জানলে চমকে যাবেন!



প্রিয় বন্ধু মিডিয়া রিপোর্ট – পশ্চিমবঙ্গের সাম্প্রতিক বিধানসভা নির্বাচনের প্রাক্কালে বিভিন্ন রাজনৈতিক দলগুলোর মধ্যে যখন পারস্পরিক মতবিরোধ, সংঘর্ষ, পারস্পরিক কাদা ছোড়াছুড়ি অহরহ বাড়ছে সেই পরিস্থিতিতে দাঁড়িয়ে মুখ্যমন্ত্রীর বিরুদ্ধে এক গুরুতর অভিযোগ করলেন বহরমপুর এর কংগ্রেস সংসদ অধীর চৌধুরী। বহরমপুরের এই সাংসদ মুখ্যমন্ত্রীর একজন রাজনৈতিক প্রতিদ্বন্দ্বী হিসেবে যথেষ্ট পরিচিত আছেন।

প্রসঙ্গত, গত দুদিন আগেই পশ্চিমবঙ্গের বেকার সমস্যা দেশের অন্যান্য স্থানের তুলনায় অনেকটাই কম বলে দাবি করেছিলেন মুখ্যমন্ত্রী। রীতিমতো পরিসংখ্যান দেখিয়ে নিয়ে মুখ্যমন্ত্রীর দাবি করেছিলেন সারা দেশের মোট বেকারত্ব ২৪ শতাংশ বৃদ্ধি পেলেও বাংলার বেকারত্ব ৪০ শতাংশ হ্রাস পেয়েছে।

তিনি আরও জানিয়েছিলেন যে, সরকারের উদ্দেশ্যই হলো সমস্যার সমাধান করা। আর মুখ্যমন্ত্রীর এই দাবি নিয়েই তাকে বিঁধলেন অধীর চৌধুরী।মুখ্যমন্ত্রীকে কটাক্ষের সুরে তিনি জানালেন, পশ্চিমবঙ্গের বেকার যুবকদের জন্য মুখ্যমন্ত্রী আর কিছুই করতে নাই বা পারুন, কিন্তু তাদেরকে নিয়ে তিনি নিষ্ঠূুরভাবে তির্যকতা করেছেন।


ফেসবুকে আমাদের নতুন ঠিকানা, লেটেস্ট আপডেট পেতে আজই লাইক ও ফলো করুন – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের টেলিগ্রাম গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের সিগন্যাল গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে



আপনার মতামত জানান -

প্রসঙ্গত, মুখ্যমন্ত্রী বাংলার বেকার সমস্যার হ্রাস পাওয়ার যে বিরাট দাবি করেছিলেন, সেই দাবি সূত্র ধরে অধীর চৌধুরী জানালেন, গত কয়েক মাস ধরে বিভিন্ন রাজ্য থেকে পশ্চিমবঙ্গের ফিরে এসেছেন লক্ষ লক্ষ পরিযায়ী শ্রমিক। কখনো কখনো বা সাইকেলে চেপে তারা নিজেদের বাড়ি ফিরেছেন।

কিন্তু মুখ্যমন্ত্রী করোনা সংক্রমণ বৃদ্ধি পাবার ভয়ে এই পরিযায়ী শ্রমিকদের রাজ্যে ফেরাতে নারাজ ছিলেন। অধীর চৌধুরী অভিযোগ করেছেন, এই শ্রমিকদের সঙ্গে মুখ্যমন্ত্রী অপরাধীর মতো আচরণ করেছেন। সম্প্রতি পশ্চিমবঙ্গ সরকার রাজ্যে তাদের কর্মসংস্থান করতে ব্যর্থ হওয়ায় পরিযায়ী শ্রমিকরা পুনরায় অন্যান্য রাজ্যে ফিরে যেতে শুরু করেছেন।

অধীর চৌধুরী কটাক্ষের সুরে মুখ্যমন্ত্রীকে জানিয়েছেন যে, মুখ্যমন্ত্রীর যদি বাংলার বেকারত্ব ৪০ শতাংশ হ্রাস করতে পারেন তবে পশ্চিমবঙ্গের যুবকেরা কেন কাজের সন্ধানে অন্যান্য রাজ্যে চলে যাচ্ছেন? মুখ্যমন্ত্রীকে কটাক্ষ করে তিনি বলেছেন, ” দিদিভাইয়ের এই কৃতিত্ব বাংলার মধ্যে সীমাবদ্ধ রাখলে চলবে না।” বর্তমানের করোনা পরিস্থিতিতে সারা পৃথিবীতে জুড়ে যেভাবে বেকারত্ব বাড়ছে, সেখানে বাংলায় বেকারত্ব কিভাবে হ্রাস পাচ্ছে। মুখ্যমন্ত্রীর এই বেকারত্ব হ্রাসের দাবির উপরে গবেষণা করে মুখ্যমন্ত্রীকে নোবেল পুরস্কার দানের দাবি জানালেন কংগ্রেস নেতা অধীর চৌধুরী।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!