এখন পড়ছেন
হোম > রাজনীতি > তৃণমূল > এবার দলীয় কর্মীকেই মিথ্যা মামলায় ফাঁসানোর অভিযোগ প্রভাবশালী তৃণমূল নেতার বিরুদ্ধে!

এবার দলীয় কর্মীকেই মিথ্যা মামলায় ফাঁসানোর অভিযোগ প্রভাবশালী তৃণমূল নেতার বিরুদ্ধে!



আপনাদের সুবিধার্থে খবরের শেষে বিধানসভা ২০২১ উপলক্ষে আমাদের করা সর্বশেষ সমীক্ষার প্রতিটির লিঙ্ক দেওয়া আছে।

আপনার মতামত জানান -

প্রিয় বন্ধু মিডিয়া রিপোর্ট –  পুলিশ প্রশাসন তথা শাসকদলের বিরুদ্ধে বিরোধী পক্ষ থেকে বারবার মিথ্যা মামলায় ফাঁসিয়ে দেয়ার অভিযোগ এনেছে। কিন্তু, এবারে উত্তর ২৪ পরগনার দেগঙ্গায় শাসক দল তৃণমূলের জনৈক কর্মীকে তৃণমূল প্রধান মিথ্যা মামলায় ফাঁসিয়ে দিয়েছেন বলে অভিযোগ উঠেছে। দলের প্রধানের বিরুদ্ধে তীব্র ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন তিনি। বিষয়টি তিনি মুখ্যমন্ত্রী ও জেলা তৃণমূল সভাপতির কাছে জানিয়ে, এর বিচারের দাবি করেছেন। এই ঘটনায় শোরগোল পড়ে যায় এলাকাজুড়ে। তবে, এই ঘটনায় অভিযুক্ত প্রধান সমস্ত অভিযোগ অস্বীকার করেছেন। তৃণমূল কর্মীকে মিথ্যা মামলায় ফাঁসিয়ে দেবার অভিযোগ অস্বীকার করেছেন তিনি।

স্থানীয় সূত্রের খবর, দেগঙ্গার চাকলা পঞ্চায়েতের অন্তর্গত রায়পুর এলাকার জনৈক বাসিন্দা হলেন বাকিবিল্লা মন্ডল। যিনি দীর্ঘদিন ধরে শাসক দল তৃণমূলের একজন সক্রিয় কর্মী। তৃণমূলের জন্ম থেকেই তিনি দলের সঙ্গে জড়িত আছেন। দলের প্রার্থীর সমর্থনে বহুবার দেয়াল লিখনের কাজে যোগ দিয়েছেন তিনি। এছাড়া দলের প্রচার কার্যেও তিনি সক্রিয়ভাবে অংশগ্রহণ করেছেন। দলের যেকোনো কাজেই একেবারে সামনে থেকে অংশগ্রহণ করেন তিনি।

তৃণমূল কর্মী বাকিবিল্লা মন্ডল তাঁর বন্ধু রাজেশ মন্ডলের বাবার মৃত্যুর শংসাপত্র সংশোধন করতে পঞ্চায়েতে গিয়েছিলেন। পুরনো শংসাপত্রতে বেশ কিছু ভুল থাকায় নতুন শংসাপত্রের প্রয়োজন হয়েছিল। তিনি অভিযোগ করেছেন যে, এই শংসাপত্রের জন্য পঞ্চায়েত প্রধান মৌমিতা দাস কাহার তাঁকে ছ’মাস ধরে ঘুরিয়েছেন। শেষমেষ গত ২৩ সে নভেম্বর শংসাপত্র দেবেন বলে জানিয়েছেন তিনি। কিন্তু সেদিন পুরোনো শংসা পত্র সংশোধন করে নেওয়ার কথা জানালেন প্রধান। একথা জানার পর প্রধানের সঙ্গে বচসা বাধে বাকিবিল্লা মন্ডলের। বাকিবিল্লা মন্ডল অভিযোগ করেছেন যে, এরপরই তাঁর নামে একাধিক মামলা দায়ের করা হয়েছে।

আপনার মতামত জানান -

তৃণমূল কর্মী বাকিবিল্লা মন্ডল অভিযোগ করেছেন যে , শাসকদল তৃণমূলের একেবারে সূচনা কাল থেকে তিনি দলের একজন সক্রিয় কর্মী। কিন্তু তাঁর যে এমন দিন আসবে, তা স্বপ্নেও ভাবতে পারেননি তিনি। একটি শংসাপত্রের জন্য তাকে ছমাস ঘুরতে হয়েছে বলে তিনি অভিযোগ করেছেন। নতুন শংসাপত্র দেবেন বলে, তাকে ডেকে নিয়ে গিয়ে পুরোনোটাই সংশোধন করে নিতে বলা হয়েছে। সে ব্যাপারে বচসা বাধে। তার জন্য তাকে এতগুলো ধারায় কেস দেওয়া হবে তা তিনি ভাবেন নি এ বিষয়ে তিনি প্রথমে স্থানীয় নেতৃত্বকে জানিয়েছেন কিন্তু তাতে কোনো ফল হয়নি তাই বাধ্য হয়ে সোশ্যাল মিডিয়াতে মুখ্যমন্ত্রী ও জেলা সভাপতির কাছে এর বিচার চেয়েছেন

তবে, পঞ্চায়েত প্রধান মৌমিতা দাস কাহার জানিয়েছেন যে, শংসাপত্রের জন্য ছ’মাস ঘোরানো হয়নি তাঁকে। শংসাপত্রের জন্য তারা প্রধানের কাছে তিনদিন এসেছিলেন। প্রধান জানিয়েছেন যে, ১৭ বছর আগে আগের মৃত্যুর শংসাপত্রের নথিপত্র বের করতে সময়ের প্রয়োজন। তিনি অভিযোগ করেছেন, শংসাপত্র সংশোধন করার পরও তাকে গালাগালি করা হয়েছে এমনকি তাকে মারতে উদ্যত হয়েছিলেন তারা এরপর পঞ্চায়েত অফিস ভাঙচুর করার চেষ্টা করেছিলেন। তাই থানায় তাঁর নামে অভিযোগ দায়ের করেছেন তাঁরা।

এই ঘটনা প্রসঙ্গে দেগঙ্গা পঞ্চায়েত সমিতির সভাপতি মফিদুল হক সাহাজি জানালেন যে, বিষয়টি তিনি শুনেছেন। এ ব্যাপারে প্রধান, উপপ্রধান, স্থানীয় নেতৃত্বের সঙ্গে আলোচনা করে সমস্যার সমাধান হবে বলে আশা করছেন তিনি। এই ঘটনার মধ্যে শাসকদল তৃণমূলের গোষ্ঠীদ্বন্দ্বের ছায়া দেখতে পেয়েছেন অনেকে।


ফেসবুকে আমাদের নতুন ঠিকানা, লেটেস্ট আপডেট পেতে আজই লাইক ও ফলো করুন – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের টেলিগ্রাম গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের সিগন্যাল গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে



আপনার মতামত জানান -

একনজরে দেখে নিন আমাদের সর্বশেষ বিধানসভা ২০২১ ওপিনিয়ন পোল –

# মুর্শিদাবাদ জেলার ওপিনিয়ন পোল – দ্বিতীয় পর্ব – 

# মুর্শিদাবাদ জেলার ওপিনিয়ন পোল – প্রথম পর্ব – 

# মালদহ জেলার ওপিনিয়ন পোল –

# দক্ষিণ দিনাজপুর জেলার ওপিনিয়ন পোল –

# উত্তর দিনাজপুরে জেলার ওপিনিয়ন পোল –

# জলপাইগুড়ি ও কালিম্পঙ জেলার ওপিনিয়ন পোল –

# আলিপুরদুয়ার ও দার্জিলিং জেলার ওপিনিয়ন পোল –

# কুচবিহার জেলার ওপিনিয়ন পোল –

আপনার মতামত জানান -
আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!