এখন পড়ছেন
হোম > রাজনীতি > তৃণমূল > এবার বিদ্রোহের ইঙ্গিত বাবুলের খাসতালুক থেকে? বেসুরো হয়ে তৃণমূলের অস্বস্তি বাড়াচ্ছেন বিধায়ক?

এবার বিদ্রোহের ইঙ্গিত বাবুলের খাসতালুক থেকে? বেসুরো হয়ে তৃণমূলের অস্বস্তি বাড়াচ্ছেন বিধায়ক?



আপনাদের সুবিধার্থে খবরের শেষে বিধানসভা ২০২১ উপলক্ষে আমাদের করা সর্বশেষ সমীক্ষার প্রতিটির লিঙ্ক দেওয়া আছে।

আপনার মতামত জানান -

প্রিয় বন্ধু মিডিয়া রিপোর্ট – একের পর এক বিধায়ক দলের বিরুদ্ধে প্রকাশ্যে মন্তব্য করতে শুরু করেছেন। ইতিমধ্যেই কোচবিহারের হেভিওয়েট তৃণমূল বিধায়ক মিহির গোস্বামী যোগদান করেছেন ভারতীয় জনতা পার্টিতে। বিধানসভা নির্বাচনের সময় যত এগিয়ে আসছে, ততই তৃণমূলের জনপ্রতিনিধিদের প্রকাশ্যে করা মন্তব্য অস্বস্তিতে ফেলে দিচ্ছে শাসক দলকে। কিভাবে দলের শৃঙ্খলা রক্ষা করা যাবে, এখন সেটাই প্রধান চ্যালেঞ্জ হয়ে দাঁড়িয়েছে তৃণমূলের কাছে।

আর এই পরিস্থিতিতে এবার তৃণমূলের অস্বস্তি বাড়িয়ে দিয়ে দলের বিরুদ্ধে ক্ষোভ উগরে দিলেন দুর্গাপুর পশ্চিমবঙ্গ বিধায়ক বিশ্বনাথ পারিয়াল। যেখানে দলের অস্বস্তি বাড়িয়ে তিনি দলে স্বাধীনভাবে কাজ করতে পারছেন না বলে জানিয়ে দিলেন এই তৃণমূল নেতা। স্বাভাবিকভাবেই তার এই মন্তব্যে আসানসোলে তৃণমূল কংগ্রেস যে যথেষ্ট অস্বস্তির মুখে পড়ল, সেই ব্যাপারে নিশ্চিত বিশেষজ্ঞরা।

সূত্রের খবর, মঙ্গলবার পূর্ব বর্ধমান জেলা তৃণমূলের শ্রমিক সংগঠনের সভাপতি তথা তৃণমূল বিধায়ক বিশ্বনাথ পারিয়াল একটি সাংবাদিক বৈঠক করেন। যেখানে প্রকাশ্যেই দলের বিরুদ্ধে বেশ কিছু অভিযোগ করতে দেখা যায় তাকে। বিশ্বনাথবাবু বলেন, “আমি স্বাধীনভাবে কাজ করতে পারছি না। যদি শ্রমিক সংগঠনে স্বাধীনভাবে কাজ করতাম, তাহলে শ্রমিক নিয়োগ প্রক্রিয়া থেকে শুরু করে শ্রমিকস্বার্থ সম্পর্কিত যাবতীয় সমস্যা মিটিয়ে দিতে পারতাম। যখনই ভালো কোনো কাজ করতে যাচ্ছি, ঠিক তখনই পেছন থেকে টেনে ধরা হচ্ছে। এইভাবে চলতে থাকলে দল সম্পর্কে জনগণের কাছে ভুল বার্তা যাবে। দুর্গাপুরের সমস্ত কারখানায় শ্রমিক সমস্যাগুলোকে জিইয়ে রাখা হচ্ছে। নেতারা দলের ভাবমূর্তি নষ্ট করে দিচ্ছে। উচ্চ নেতৃত্বকে সব রিপোর্ট দিয়েছি। এখন সেদিকে তাকিয়ে রয়েছে সবাই। কারণ সামনে নির্বাচন। মাথায় রাখতে হবে সেই কথা।” আর বিশ্বনাথ পারিয়ালের এই মন্তব্যকে কেন্দ্র করে এবার ব্যাপক চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়েছে গোটা জেলাজুড়ে।


ফেসবুকে আমাদের নতুন ঠিকানা, লেটেস্ট আপডেট পেতে আজই লাইক ও ফলো করুন – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের টেলিগ্রাম গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের সিগন্যাল গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে



আপনার মতামত জানান -

অনেকে বলছেন, বিশ্বনাথবাবু এই কথা বলে তার দলের বেশকিছু জেলা নেতাদের বিরুদ্ধেই যে এই অভিযোগ করলেন, তা বলাই যায়। স্বাভাবিকভাবেই এই ঘটনায় তৃণমূলের গোষ্ঠীদ্বন্দ্ব যেমন প্রকাশ্যে চলে এল, ঠিক তেমনই বিধায়ক তথা শ্রমিক সংগঠনের জেলা সভাপতির এই মন্তব্য যে শাসক দলের কাছে বিড়ম্বনার কারণ হয়ে দাঁড়ালো, সেই ব্যাপারে নিশ্চিত পর্যবেক্ষকরা। আর তৃণমূল বিধায়কের এই মন্তব্যের পর জল্পনা ক্রমশ বাড়তে শুরু করেছে।

অনেকে বলছেন, ইতিমধ্যেই শাসক দলের অনেক বিধায়ক দলের নানা নীতির বিরুদ্ধে সরব হয়েছেন। আর বিশ্বনাথবাবুর এই মন্তব্যের পর আসানসোল যেহেতু বিজেপির শক্ত ঘাঁটি, সেহেতু কি তিনি দলের বিরুদ্ধে মন্তব্য করে বিজেপিতে যোগ দেওয়ার জল্পনা বাড়িয়ে দিলেন! এখন তা নিয়ে তৈরি হয়েছে প্রশ্ন। কেন তিনি হঠাৎ করে এই ধরনের মন্তব্য করলেন?

যদিও বা বিশ্বনাথবাবু স্পষ্ট ভাষায় জানিয়ে দিয়েছেন, তিনি দলের অনুগত সৈনিক। তার মন্তব্যের ভুল ব্যাখ্যা করা হচ্ছে। কিন্তু তৃণমূল বিধায়ক যে কথাই বলুক না কেন, শাসকদলের যে বিভিন্ন জেলায় গোষ্ঠীদ্বন্দ্ব চরম আকার ধারণ করেছে এবং তার ফলে জনপ্রতিনিধিরা প্রকাশ্যে দলের বিরুদ্ধে মন্তব্য করতে শুরু করেছেন, সেই বিষয়টি পরিষ্কার রাজনৈতিক বিশেষজ্ঞদের কাছে। সব মিলিয়ে গোটা পরিস্থিতি কোথায় গিয়ে দাঁড়ায়, সেদিকেই নজর থাকবে সকলের।

একনজরে দেখে নিন আমাদের সর্বশেষ বিধানসভা ২০২১ ওপিনিয়ন পোল –

# মুর্শিদাবাদ জেলার ওপিনিয়ন পোল – দ্বিতীয় পর্ব – 

# মুর্শিদাবাদ জেলার ওপিনিয়ন পোল – প্রথম পর্ব – 

# মালদহ জেলার ওপিনিয়ন পোল –

# দক্ষিণ দিনাজপুর জেলার ওপিনিয়ন পোল –

# উত্তর দিনাজপুরে জেলার ওপিনিয়ন পোল –

# জলপাইগুড়ি ও কালিম্পঙ জেলার ওপিনিয়ন পোল –

# আলিপুরদুয়ার ও দার্জিলিং জেলার ওপিনিয়ন পোল –

# কুচবিহার জেলার ওপিনিয়ন পোল –

আপনার মতামত জানান -
আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!