এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > বর্ধমান > এবার ‘বাংলার গর্ব মমতা’ কর্মসূচীকে কেন্দ্র করে শাসক দলের গোষ্ঠীকোন্দল চরমে

এবার ‘বাংলার গর্ব মমতা’ কর্মসূচীকে কেন্দ্র করে শাসক দলের গোষ্ঠীকোন্দল চরমে



আর কিছুদিনের মধ্যেই রাজ্যে আসতে চলেছে পুরসভার নির্বাচন। তারপরেই আছে এই মুহূর্তের সব থেকে গুরুত্বপূর্ণ বিধানসভা নির্বাচন। এই নির্বাচনকে লক্ষ্য রেখে ইতিমধ্যে রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দোপাধ্যায় তৃণমূলের গোষ্ঠী কোন্দল পুরোপুরি বন্ধ করার নির্দেশ দিয়েছেন। তিনি নির্দেশ দিয়েছেন একযোগে সবাইকে কাজ করার। কিন্তু তা সত্ত্বেও বারেবারেই বিভিন্ন জায়গায় প্রকাশ্যে এসে পড়ছে দলীয় কোন্দলের ঘটনা। লোকসভা নির্বাচনের পর দলের শৃঙ্খলা আনা অত্যন্ত জরুরি তা অনুধাবন করেই দলনেত্রী জেলায় জেলায় দলীয় গোষ্ঠী কোন্দল বন্ধ করার নির্দেশ দিয়েছেন।

তবে অবস্থার যে বিশেষ কিছু হেরফের হয়নি তা এদিন বর্ধমান 1 ব্লকের দলীয় কর্মসূচির ঘটনায় আবার প্রকাশ্যে এলো। বৃহস্পতিবার বর্ধমান 1 ব্লক তৃণমূল কংগ্রেসের একাংশ ‘বাংলার গর্ব মমতা’ কর্মসূচিকে কেন্দ্র করে একটি জলযোগ কর্মসূচি পালন করে। সূত্রের খবর, পূর্ব বর্ধমান জেলা পরিষদের সদস্য নুরুল হাসান এই কর্মসূচির নেতৃত্ব দেন। কিন্তু এই কর্মসূচিকে নিয়ে ইতিমধ্যে শুরু হয়েছে এলাকায় তুমুল বিতর্ক। নুরুল হাসানের বিরোধিতা করতে আসরে নেমেছেন স্থানীয় বর্ধমান উত্তর কেন্দ্রের তৃণমূল বিধায়ক নিশীথ মালিক।

তিনি এই কর্মসূচিকে অবৈধ বলে ঘোষণা করেছেন বলে জানা গেছে। যদিও নিশীথ মালিকের বিরুদ্ধেও জলযোগ কর্মসূচি পালনকারী নেতা-নেত্রীরা অভিযোগের আঙ্গুল তুলেছেন। ঘটনা পরম্পরায় আবারো প্রকাশ্যে এলো তৃণমূলের অন্দরের গোষ্ঠীদ্বন্দ্ব। জানা গেছে এ দিন ‘বাংলার গর্ব মমতা’ নিয়ে যে কর্মসূচি ছিল তা সফল করতে বিজয়রামের একটি অনুষ্ঠান বাড়িতে আয়োজন করা হয় জলযোগ কর্মসূচির। সেই অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন পূর্ব বর্ধমান জেলা পরিষদের সদস্য নুরুল হাসান।

এছাড়াও সেখানে ছিলেন দলের রায়ান-১ অঞ্চলের নেতা শেখ শুকুর আলি, ব্লকের অন্যতম নেতা অনুপকুমার মণ্ডল, লালমোহন শেখ, জেলা যুব নেতা শিবশঙ্কর ঘোষ, ব্লকের মহিলা নেত্রী তথা পঞ্চায়েত সদস্য সইফুন্নিসা বেগম, সুতপা রাজমল্য, পঞ্চায়েত সদস্য ভানু মাহিলি, সিরাজুন্নেসা খাতুন প্রমুখরা। অন্যদিকে একইভাবে বিধায়ক নিশীথ মালিকও বর্ধমান 2 ব্লকের হাট গোবিন্দপুরে তৃণমূলের কার্যালয়ে জলযোগ কর্মসূচীর আয়োজন করেছিলেন।


ফেসবুকে আমাদের নতুন ঠিকানা, লেটেস্ট আপডেট পেতে আজই লাইক ও ফলো করুন – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের টেলিগ্রাম গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের সিগন্যাল গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে



আপনার মতামত জানান -

সূত্রের খবর, সেখানে বিভিন্ন সংবাদমাধ্যমের প্রতিনিধিদের সংবর্ধনা জানানো হয় এবং তৃণমূলের কর্মকাণ্ড নিয়ে এক মনোজ্ঞ আলোচনা চলে। কিন্তু আলাদা আলাদা ভাবে দু জায়গায় ‘বাংলার গর্ব মমতা’র কর্মসূচির অংশ হিসেবে জলযোগ কর্মসূচিকে কেন্দ্র করে দুই পক্ষের দ্বন্দ্ব নিয়ে রাজনৈতিক মহলে শুরু হয়েছে তুমুল বিতর্ক। এই ঘটনা প্রসঙ্গে নুরুল হাসান জানিয়েছেন, ‘বিধায়ক বর্ধমান-২ ব্লকে ওই কর্মসূচি পালন করেছেন আমাদের ব্লকের কয়েকজন নেতাকে নিয়ে। সেখানে আমাদের ডাকা হয়নি। তাই আমাদের ব্লকেও আমরা বাংলার গর্ব মমতা কর্মসূচিতে জলযোগের আয়োজন করেছি। দলের শীর্ষ নেতৃত্বের নির্দেশেই এই কর্মসূচি নেওয়া হয়েছে।’

অন্যদিকে বিধায়ক নিশীথ মালিক এরই পরিপ্রেক্ষিতে বলেছেন, ‘এদিন যে কর্মসূচি বিজয়রামে করা হয়েছে তা দল বিরোধী কাজ। বিধায়করাই এই কর্মসূচি করবেন বলে দলের নির্দেশ রয়েছে। বেআইনিভাবে কেউ কেউ তা করেছে। শীর্ষ নেতৃত্ব ওদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে বলব আমরা।’ এই কথার প্রসঙ্গে পাল্টা নুরুল হাসান জানিয়েছেন, ‘বিধায়ক যে জলযোগ কর্মসূচি করেছিলেন সেখানে প্রথম সারির অধিকাংশ সংবাদপত্র ও চ্যানেলকেই আমন্ত্রণ করেননি। উনি সংবাদ মাধ্যমকেও সম্মান দিচ্ছেন না। দলের নেতা-কর্মীদেরও অসম্মান করছেন।’

এ প্রসঙ্গে তিনি আরও জানিয়েছেন, নেত্রীর নির্দেশে বাংলার গর্ব মমতা কর্মসূচি করতে যা যা প্রয়োজন প্রয়োজনীয় নির্দেশ দেয়া হয়েছে তা মেনে আগামী দিনে বর্ধমানের বিভিন্ন জায়গায় একই কায়দায় এই কর্মসূচি পালন হবে। বারংবার এই গোষ্ঠীদ্বন্দ্বকে নিয়ন্ত্রণ করার চেষ্টা করলেও তা কিছুতেই আয়ত্তে আসছেনা বলে দাবি তৃণমূলের অন্দরের বেশ কিছু জনের। অন্যদিকে জানা যাচ্ছে, এই গোষ্ঠীদ্বন্দ্বকে ঘিরে শাসকদল ইতিমধ্যেই চরম বিব্রত। প্রতিনিয়ত তাঁরা গোষ্ঠী কোন্দলকে কেন্দ্র করে বিরোধীদের প্রবল কটাক্ষের শিকার হচ্ছেন।

তবে এ প্রসঙ্গে রাজনৈতিক বিশেষজ্ঞদের দাবি, আগামী দিনের রাজনৈতিক পরিস্থিতির কথা মাথায় রেখেই শাসকদলের গোষ্ঠীদ্বন্দ্বকে ব্যাপকভাবে মাথাচাড়া দেওয়া রুখতেই হবে। যদি তা না হয়, তাহলে তার সুযোগ অবশ্যই কাজে লাগাবে বিরোধী দলগুলি। এবার দেখার রাজনৈতিক বিশেষজ্ঞদের দেওয়া এই সাবধান বাণী পাওয়ার পর আগামী দিনে তৃণমূল নেত্রী মমতা ব্যানার্জ্জী কোন বিশেষ ব্যবস্থা গ্রহণ করছেন কিনা গোষ্ঠীদ্বন্দ্ব সামলাতে। সেদিকে লক্ষ্য রাখবে রাজ্যের ওয়াকিবহাল মহল।

আপনার মতামত জানান -

ট্যাগড
Top
error: Content is protected !!