এখন পড়ছেন
হোম > রাজনীতি > কংগ্রেস > পুরোহিত ভাতা থেকে পুজোয় ৫০ হাজার অনুদান! বিস্ফোরক অভিযোগে মমতার অস্বস্তি তীব্র করলেন অধীর

পুরোহিত ভাতা থেকে পুজোয় ৫০ হাজার অনুদান! বিস্ফোরক অভিযোগে মমতার অস্বস্তি তীব্র করলেন অধীর



প্রিয় বন্ধু মিডিয়া রিপোর্ট – অনেকেই প্রশ্ন তুলেছিলেন, দুর্গাপূজা উপলক্ষে ক্লাবগুলোকে রাজ কোষাগার থেকে 50000 টাকা এই করোনা আবহে অনুদান দেওয়া নিয়ে। আর এবার একই প্রশ্ন তুললেন রাজ্য প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতি অধীর চৌধুরী। এ বছরে দুর্গাপুজো হবে কি হবেনা, তা নিয়ে দীর্ঘদিন টানাপোড়েন চলার পর অবশেষে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় প্রশাসনিক বৈঠক ডেকে রাজ্যের ক্লাবগুলিকে করোনাবিধি মেনে পুজোর আয়োজন করার কথা বলেন। কিন্তু তার মধ্যেই তিনি যেভাবে অনুদান দিয়েছেন, তা নিয়ে বিভিন্ন মহলে প্রশ্ন উঠেছে।

অন্যদিকে কংগ্রেসের পক্ষ থেকে অধীর চৌধুরীও এদিন রাজ্যের তৃণমূল সরকারের দিকে দুর্নীতি নিয়ে অভিযোগ তুলেছেন। প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতি অধীর চৌধুরীর দাবি, সামনে আসছে একুশের বিধানসভা নির্বাচন, আর সেখান থেকে রাজনৈতিক লাভের কথা ভেবেই এবারের পুজোয় প্রতিটি ক্লাবকে 50000 টাকার অনুদান দেওয়া হয়েছে। এ প্রসঙ্গে তিনি হাইকোর্টের উক্তিকে সামনে এনেছেন। প্রসঙ্গত, রাজ্যের উচ্চ আদালত থেকেও প্রশ্ন তোলা হয়েছে, কোন একটি উৎসবের জন্য এভাবে টাকা দেওয়া যায় কিনা!


WhatsApp-এ প্রিয় বন্ধু মিডিয়ার খবর পেতে – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের অন্যান্য সোশ্যাল মিডিয়া গ্রূপের লিঙ্ক – টেলিগ্রামফেসবুক গ্রূপ, ট্যুইটার, ইউটিউব, ফেসবুক পেজ

আমাদের Subscribe করতে নীচের বেল আইকনে ক্লিক করে ‘Allow‘ করুন।

এবার থেকে আমাদের খবর পড়ুন DailyHunt-এও। এই লিঙ্কে ক্লিক করুন ও ‘Follow‘ করুন।



আপনার মতামত জানান -

অধীর চৌধুরী এদিন সাংবাদিক সম্মেলনে অভিযোগ করেন, বর্তমানে তৃণমূল এবং বিজেপি হিন্দুত্ববাদী প্রতিযোগিতায় নেমেছে। কে বেশি হিন্দুত্ববাদী তা দেখানোর চেষ্টা চালাচ্ছে দুই দল। অন্যদিকে, মুখ্যমন্ত্রীর বিভিন্ন অনুদান নিয়েও এদিন তীব্র কটাক্ষ করেন কংগ্রেস দলনেতা। তিনি বলেন, কখনো মুসলিমদের ইমাম ভাতা দেওয়া হচ্ছে, কখনো হিন্দুদের জন্য পুরোহিত ভাতা, আবার কখনো পুজো কমিটি অনুমোদন পাচ্ছে। এ প্রসঙ্গে অধীর চৌধুরী জানিয়েছেন তৃণমূল অনুদানের মধ্যে দিয়েই রাজ্যজুড়ে দুর্নীতি চালাচ্ছে।

অধীর চৌধুরীর দাবি, সরকারী প্রতিটি প্রকল্প এমনভাবে তৈরি করা হয়, যেখানে তৃণমূলের জনপ্রতিনিধি এবং নেতাকর্মীরা প্রত্যেকেই দুর্নীতি করার সুযোগ পান। মূলত অধীর চৌধুরী এদিন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কেই সর্বাগ্রে আক্রমণ করেছেন বলে মনে করা হচ্ছে। একুশের বিধানসভা নির্বাচনের পরিপ্রেক্ষিতে তৃণমূল বিজেপির পাশাপাশি কংগ্রেস এবার ঘুরে দাঁড়াচ্ছে বলে মনে করছেন রাজনৈতিক বিশেষজ্ঞরা। আর সেক্ষেত্রে রাজ্যের অন্যতম শক্তিধর দল তৃণমূলকে আক্রমণ করে কংগ্রেস শিবির থেকে অধীর চৌধুরী বুঝিয়ে দিলেন কংগ্রেস শিবিরও এত সহজে জায়গা ছাড়বেনা।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!