এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > বর্ধমান > নিয়ম ভেঙে খোদ ডিএসপির গাড়ির ধাক্কায় আহত বাইক-আরোহী, এলাকায় তীব্র উত্তেজনা

নিয়ম ভেঙে খোদ ডিএসপির গাড়ির ধাক্কায় আহত বাইক-আরোহী, এলাকায় তীব্র উত্তেজনা



শনিবার বিকেলে জেলার প্রধান সড়কে পথ দুর্ঘটনার কারণে ব্যাপক উত্তেজনা ছড়ালো। এদিন বিকেলে বর্ধমান শহরে কালীবাজার এলাকায় জিটি রোডে উল্টো দিক থেকে আসা পুলিশের ডিএসপি-র(ক্রাইম) গাড়ির ধাক্কায় এক বাইক আরোহী জখম হলেন। জানা যাচ্ছে এই দুর্ঘটনার সময়ে গাড়িতে ডিএসপি ছিলেন না। ঘটনার পরে এলাকার উত্তেজিত জনতা ঐ পুলিশ কর্তার গাড়িকে ঘিরে ক্ষোভ প্রদর্শন করে। সেইসময়েই পুলিশের গাড়ির চালকের সাথে আহত বাইক আরোহীর কথা কাটাকাটি হয়। গাড়ির চালক আহত যুবককে মারধর করে বলে অভিযোগ।

আরো খবর পেতে চোখ রাখুন প্রিয়বন্ধু মিডিয়া-তে

——————————————————————————————-

 এবার থেকে প্রিয় বন্ধুর খবর পড়া আরো সহজ, আমাদের সব খবর সারাদিন হাতের মুঠোয় পেতে যোগ দিন আমাদের হোয়াটস্যাপ গ্রূপে – ক্লিক করুন এই লিঙ্কে

ওই যুবক ও প্রতি আক্রমন করে হেলমেট দিয়ে পুলিশের গাড়ির কাচ ভেঙে দেয়। তখন স্থানীয় জনতা ঘটনাস্থলে এসে উপস্থিত হয়। তাঁরা পুলিশের এই অমানবিক আচরণে অত্যন্ত অসন্তোষ প্রকাশ করেন। এই সময়ে স্থানীয় মানুষ জনই আহত যুবককে বর্ধমান মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসার জন্যে নিয়ে যায়। কিন্তু ভাগ্যের এমন পরিহাস যে সেখান থেকে পুলিশ তাঁকে আটক করে।

এদিকে এদিনের দুর্ঘটনার সম্পর্কে প্রত্যক্ষদর্শীদের বিররণ থেকে জানা যাচ্ছে শনিবার বিকেল ৫টা নাগাদ বীরহাটার দিক থেকে ডিএসপি-র(ক্রাইম) গাড়ি কার্জনগেটের দিকে যাচ্ছিল। অন্যদিকে ওই বাইক চালক কার্জনগেটের দিক থেকে বীরহাটার দিকে আসছিলেন। কালীবাজার মোড় এলাকায় রাস্তায় সামান্য জ্যাম থাকায় পুলিসের গাড়িটি বাঁ দিকের লেন ছেড়ে ডান দিক দিয়ে যাওয়ার সময়ই বাইকে ধাক্কা মারে। দুর্ঘটনার জেরে বাইক চালক রাস্তার ধারে পড়ে যান। এরপরেই পরিস্থিতি ক্রমশ জটিল হয়ে ওঠে।

স্থানীয় সূত্রে জানা গিয়েছে উত্তেজিত জনতা আহত বাইক আরোহী পক্ষ নিয়ে বিক্ষোভ দেখান এবং সওয়াল করতে থাকেন। তাদের অভিযোগ রাস্তায় সামান্য জ্যাম থাকলেই পুলিশেরর গাড়ি কিংবা বাইক প্রায়ই ট্রাফিক আইন অগ্রাহ্য করে উল্টো লেনে চলাচল করে। শুধু তাই নয় বাইক চালানোর সময়ে খোদ পুলিশ কর্মীরা মাথায় হেলমেট ব্যবহার করেন না। এদিন দুর্ঘটনার পর পরিস্থিতি খতিয়ে দেখতে ডিএসপি(ট্রাফিক) প্রদীপকুমার মণ্ডল ঘটনাস্থলে যান।

এই দুর্ঘটনা প্রসঙ্গে ব্যাখ্যা করে অতিরিক্ত পুলিস সুপার(হেডকোয়ার্টার) প্রিয়ব্রত রায় বললেন, “আমাদের গাড়ির সঙ্গে বাইক চালকের ধাক্কা লাগেনি। বাইক চালক ইমার্জেন্সি ব্রেক কষার সময় পড়ে যান। এরপর আমাদের গাড়ির চালকের সঙ্গে বাইক চালকের বাদানুবাদ বাধে। সেই সময় ওই বাইক চালক আমাদের ডিএসপির গাড়ির কাচ ভেঙে দেয়। বাইক চালককে আটক করা হয়েছে। বাইকটিও বাজেয়াপ্ত করা হয়েছে।”

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!