এখন পড়ছেন
হোম > রাজনীতি > তৃণমূল > দলীয় স্তরে মহাবৈঠক মমতার! শুভেন্দু ঘনিষ্ঠ নেতাকে বার্তা! বাড়ছে জল্পনা!

দলীয় স্তরে মহাবৈঠক মমতার! শুভেন্দু ঘনিষ্ঠ নেতাকে বার্তা! বাড়ছে জল্পনা!



প্রিয় বন্ধু মিডিয়া রিপোর্ট –একসময় গোটা মুর্শিদাবাদ জেলা তৃণমূলের হয়ে সামলাতেন শুভেন্দু অধিকারী। কিন্তু সেই শুভেন্দু অধিকারী এখন তৃণমূলের প্রতিপক্ষ ভারতীয় জনতা পার্টির হেভিওয়েট নেতা‌। স্বাভাবিকভাবেই তার অবর্তমানে মুর্শিদাবাদ জেলার সংগঠন কিভাবে পরিচালিত হবে এবং জেলার দলের সমস্যা কিভাবে সমাধান করা সম্ভব হবে, তার জন্য এবার সরাসরি রাশ ধরলেন তৃণমূল নেত্রী তথা মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

সূত্রের খবর, বৃহস্পতিবার তৃণমূল ভবনে অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় এবং প্রশান্ত কিশোরকে সঙ্গে নিয়ে মুর্শিদাবাদ জেলার নেতাদের নিয়ে বৈঠকে বসেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। আর এই বৈঠকে বেশ কিছু গুরুত্বপূর্ণ আলোচনা হয়েছে বলে খবর পাওয়া যাচ্ছে। প্রসঙ্গত উল্লেখ্য, একসময় মুর্শিদাবাদ জেলায় কংগ্রেসের ঘরে ভাঙন ধরাতে শুভেন্দু অধিকারীকে কাজে লাগিয়েছিলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

আর দায়িত্ব নিয়ে সেখানে কংগ্রেসের একাধিক জনপ্রতিনিধি থেকে শুরু করে হেভিওয়েট নেতাকে ঘাসফুল শিবিরের পতাকা ধরাতে সক্ষম হয়েছিলেন শুভেন্দু অধিকারী। তবে এখন পরিস্থিতি অনেকটাই পাল্টে গেছে। শুভেন্দু অধিকারী বিজেপিতে যোগ দেওয়ার পর সেই মুর্শিদাবাদ জেলার একাধিক হেভিওয়েট নেতা তার সঙ্গে যোগাযোগ রাখছেন বলে খবর পাওয়া যাচ্ছে। যার মধ্যে জল্পনা সবথেকে বেশি ছড়িয়েছে মোশারফ হোসেনকে নিয়ে।

এদিনের বৈঠকে প্রথমে মোশারফ হোসেনের অনুপস্থিত থাকার জল্পনা ছড়ালেও, পরবর্তীতে তিনি ভার্চুয়াল বৈঠকে যোগ দিয়েছেন। অন্যদিকে মুর্শিদাবাদ জেলায় তৃণমূলের গোষ্ঠীদ্বন্দ্ব এখন চরম আকার ধারণ করেছে। সেদিক থেকে এদিনের বৈঠকে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় গোষ্ঠীদ্বন্দ্ব বন্ধ করবার জন্য কড়া বার্তা দিয়েছেন।


ফেসবুকে আমাদের নতুন ঠিকানা, লেটেস্ট আপডেট পেতে আজই লাইক ও ফলো করুন – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের টেলিগ্রাম গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের সিগন্যাল গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে



আপনার মতামত জানান -

শুধু তাই নয়, তৃণমূলের কাছে মুর্শিদাবাদ জেলা নিয়ে বাড়তি চিন্তা হয়ে দাঁড়িয়েছে সংখ্যালঘু ভোট। ইতিমধ্যেই হায়দ্রাবাদের রাজনৈতিক দল এআইএমআইএমের বাংলায় প্রার্থী দেওয়ার ঘটনা নিয়ে জল্পনা ক্রমশ বৃদ্ধি পেতে শুরু করেছে। তাই এই পরিস্থিতিতে সেই জেলার নেতাদের সঙ্গবদ্ধ করতেই মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের মুর্শিদাবাদ জেলার সঙ্গে বৈঠক করলেন বলে মনে করছেন বিশেষজ্ঞরা।

এদিনের বৈঠকে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বলেন, “যারা দল ছাড়ছেন ছাড়ুক। বাকিরা ভালো করে কাজ করুন। সবাইকে একসঙ্গে চলতে হবে। যে যার এলাকায় কাজ করুন, অন্য এলাকায় মাথা ঘামাতে হবে না। মুর্শিদাবাদ থেকে সব আসন চাই। তাই সেই লক্ষ্যে এখন জেলার নেতাদের কাজ করতে হবে।” অর্থাৎ শুভেন্দু অধিকারী এতদিন মুর্শিদাবাদ জেলার সামলালেও তার অনুপস্থিতিতে যাতে দলের সংগঠন কোনোভাবেই ভেঙ্গে না পড়ে, এদিনের বৈঠক থেকে সেই বার্তাই দেওয়ার চেষ্টা করলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

একদিকে বিজেপিকে কুপোকাত করা অন্যদিকে শুভেন্দু অধিকারীকে বার্তা দিতেই আগামী নির্বাচনে যে মুর্শিদাবাদ জয় তার কাছে বড় লক্ষ্য, তা বলার অপেক্ষা রাখে না। তবে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় এদিনের বৈঠক থেকে জেলায় দলের সমন্বয় রাখতে বার্তা দিলেও, তা কতটা পালন করতে সক্ষম হন জেলার নেতারা, সেদিকেই নজর থাকবে সকলের।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!