এখন পড়ছেন
হোম > রাজনীতি > তৃণমূল > দলের ভাঙ্গন কেন আটকাতে পারছেন না মমতা! প্রশ্ন তৃণমূলের অন্দরে!

দলের ভাঙ্গন কেন আটকাতে পারছেন না মমতা! প্রশ্ন তৃণমূলের অন্দরে!



প্রিয় বন্ধু মিডিয়া রিপোর্ট – এককালে সিপিএমকে আটকাতে একাই যথেষ্ট ছিলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তখন তার সাথে নেতা অপেক্ষা বেশি ছিলেন তৃণমূল কংগ্রেসের নিচুতলার কর্মীরা। কিন্তু এবার সেই মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের দলে একের পর এক ভাঙ্গন ধরতে শুরু করেছে। আর এখানেই একাংশ প্রশ্ন তুলতে শুরু করেছেন, যে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় এককালে বাম শাসনের মত দোর্দন্ডপ্রতাপ শাসকবর্গকে চাপে ফেলে দিয়েছিলেন, সেই মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় কেন নিজের দলের ভাঙ্গন আটকাতে পারছেন না!

বিশ্লেষকরা বলছেন, এখন পরিস্থিতি পাল্টেছে, সময় পাল্টেছে। আগে বামেদের বিরূদ্ধে তৃণমূল কংগ্রেসকে লড়াই করতে হলেও এখন লড়াই করতে হচ্ছে বিজেপির বিরুদ্ধে। সেদিক থেকে বিজেপি অনেকটাই সাংগঠনিক দল হিসেবে পরিচিত। আর তাই সেই বিজেপির পক্ষ থেকে গত লোকসভা নির্বাচনে বাংলায় ভালো ফল করার পর একের পর এক তৃণমূল নেতাদের দলে টানা হলেও মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় তা আটকাতে পারছেন না। আর তার ফলেই মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের নেতৃত্ব নিয়ে অনেকেই সংশয় প্রকাশ করতে শুরু করেছেন।

বিশ্লেষকদের একাংশ বলছেন, শুভেন্দু অধিকারী থেকে শুরু করে মুকুল রায়ের মত তৃণমূল কংগ্রেসের শীর্ষ নেতারা এখন ভারতীয় জনতা পার্টিতে‌। এককালে তারা তৃণমূল কংগ্রেসের সেকেন্ড-ইন-কমান্ড ছিলেন। কিন্তু এখন তারা বিজেপিতে যোগদান করার পর নিজের প্রাক্তন দলের অস্বস্তি ক্রমাগত বাড়িয়েই চলেছেন। সেদিক থেকে বিগত বাম আমলে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে কারও সাহায্য নিয়ে পথ চলতে না হলেও, গত লোকসভা নির্বাচনের পর বিজেপিকে আটকানোর জন্য মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে রাজনৈতিক পরামর্শদাতা করতে হয়েছে বিহারের প্রশান্ত কিশোরকে।

ফেসবুকে আমাদের নতুন ঠিকানা, লেটেস্ট আপডেট পেতে আজই লাইক ও ফলো করুন – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের টেলিগ্রাম গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের সিগন্যাল গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে



আপনার মতামত জানান -

যার ফলে দলের অনেকেই প্রশ্ন তুলতে শুরু করেছেন এই প্রশান্ত কিশোর আসার ফলে দলে গোষ্ঠীদ্বন্দ্ব অনেকটাই বেড়েছে। এক নেতার সঙ্গে আর এক নেতার সম্পর্কের অধঃপতন হয়েছে। যার ফলে ভাঙ্গন অবশ্যম্ভাবী। যদি এক্ষেত্রে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় দায়িত্ব নিয়ে সবকিছু পরিচালনা করতেন, তাহলে এই সমস্যা হত না বলেই মনে করছেন একাংশ।

তৃণমূলের কর্মী থেকে সমর্থকদের কাছে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় আজও বড় আবেগ। তিনি ময়দানে নামলে সকলে চলে আসেন। কিন্তু মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের পরে মুকুল রায় থেকে শুরু করে শুভেন্দু অধিকারী তৃণমূল কংগ্রেসের অনেক নেতা কর্মীদের কাছে বড় অক্সিজেন ছিলেন। তবে তারা ভারতীয় জনতা পার্টিতে চলে যাওয়ায় দলের অনেক কর্মী সমর্থকদের মনে আত্মবিশ্বাস তলানিতে এসে ঠেকেছে।

যার ফলে এখন সকলেই বলতে শুরু করেছেন, অবিলম্বে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে দলের শৃঙ্খলা ফেরানোর জন্য আরও সচেষ্ট এবং সক্রিয় ভূমিকা পালন করতে হবে। যদি মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় এখন থেকেই দলের হাল না ধরেন এবং বিজেপিকে আটকানোর জন্য ঠিকমতো কৌশল তৈরি না করেন, তাহলে ভবিষ্যৎ তৃণমূল কংগ্রেসের পক্ষে খুব একটা ভালো হবে না বলেই আশঙ্কা করছেন বিশেষজ্ঞরা। সব মিলিয়ে বাস্তব পরিস্থিতি উপলব্ধি করে তৃণমূল নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় এখন শ্রীবৃদ্ধি করতে কি পদক্ষেপ গ্রহণ করেন, সেদিকেই নজর থাকবে সকলের।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!