এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > উত্তরবঙ্গ > দলে গুরুত্ব পাচ্ছেন না! এবার কি বিদ্রোহের পথে মমতা মন্ত্রিসভার এই হেভিওয়েট মন্ত্রী?

দলে গুরুত্ব পাচ্ছেন না! এবার কি বিদ্রোহের পথে মমতা মন্ত্রিসভার এই হেভিওয়েট মন্ত্রী?



আপনাদের সুবিধার্থে খবরের শেষে বিধানসভা ২০২১ উপলক্ষে আমাদের করা সর্বশেষ সমীক্ষার প্রতিটির লিঙ্ক দেওয়া আছে।

আপনার মতামত জানান -

প্রিয় বন্ধু মিডিয়া রিপোর্ট –  শাসক দল তৃণমূলে যখন চলছে তীব্র অন্তর্দ্বন্দ্ব। দলের একাধিক বিধায়ক দলের বিরুদ্ধে ক্ষোভ প্রকাশ করেই চলেছেন। সেই আবহে দলের বিরুদ্ধে ক্ষোভ প্রকাশ করলেন দক্ষিণ দিনাজপুরের তপনের বিধায়ক ও সেইসঙ্গে উত্তরবঙ্গ উন্নয়ন প্রতিমন্ত্রী বাচ্চু হাঁসদা। ইতিমধ্যে দলের বিরুদ্ধে এমনই অভিযোগ এনেছেন দক্ষিণ দিনাজপুর তৃণমূলের এসসি-এসটি সেলের জেলা সভাপতি সত্যেন রায়। তাঁর এই অভিযোগের কথা জানিয়ে দলত্যাগের হুমকিও তিনি দিয়েছেন। এবার, দলের বিরুদ্ধে একই ধরনের অভিযোগ আনলেন জেলার মন্ত্রী বাচ্চু হাঁসদা। দলের প্রতি তীব্র ক্ষোভ ও হতাশা প্রকাশ করলেন তিনি গতকাল।

গতকাল শনিবার টেলিফোনে মন্ত্রী বাচ্চু হাঁসদা জানালেন যে, সাংগঠনিকভাবে দল তাঁকে কোন গুরুত্বই দিচ্ছে না। তিনি নিজের মতই দলে আছেন। তাঁর ঘনিষ্ঠমহলে এ বিষয় নিয়ে তীব্র ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন তিনি। একারণে, উত্তরবঙ্গে মিহির গোস্বামীর দলত্যাগের পর গঙ্গারামপুরের প্রাক্তন বিধায়ক সত্যেন রায় ও তপনের বিধায়ক বাচ্চু হাঁসদাকে নিয়ে অস্বস্তি বাড়লো শাসকদল তৃণমূলের। দলের প্রতি ক্ষুব্ধ হয়ে তিনি বিজেপিতে যোগদান করতে পারেন বলেও শোনা যাচ্ছে। তবে, এ ব্যাপারে মন্ত্রী জানালেন, ” যা হওয়ার হবে। দল আমাকে গুরুত্বই দিল না। এ সব নিয়ে আমার বলার কিছু নেই। আমি আপাতত আমার বিধানসভা নিয়েই রয়েছি।’’

প্রসঙ্গত, গত ২০১১ সালে তপন কেন্দ্র থেকে প্রথমবার দাঁড়িয়েছিলেন বাচ্চু হাঁসদা। প্রথমবারেই নির্বাচনে তিনি জয়লাভ করেছিলেন। এরপর তাঁকে ডিপিএসসির চেয়ারম্যান করা হয়েছিল। পরবর্তীতে ২০১৬ সালের বিধানসভা নির্বাচনেও তিনি জয়লাভ করেন। এরপর তাঁকে উত্তরবঙ্গ উন্নয়ন দপ্তরের প্রতিমন্ত্রী করা হয়েছিল। কিন্তু, এরপর থেকেই সে সময়কার দক্ষিণ দিনাজপুর জেলা তৃণমূল সভাপতি বিপ্লব মিত্রের সঙ্গে তাঁর বিরোধ বাধে। বিপ্লব মিত্রের বিরোধী গোষ্ঠী বলে পরিচিত অর্পিতা ঘোষের গোষ্ঠীতে তিনি যোগদান করেছিলেন। পরবর্তীকালে অর্পিতা ঘোষকে জেলা সভাপতি করা হলে, তাঁর সঙ্গেও বিরোধ বাধে বাচ্চু হাঁসদার।

আমাদের নতুন ফেসবুক পেজ (Bloggers Park) লাইক ও ফলো করুন – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের টেলিগ্রাম গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের সিগন্যাল গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে



আপনার মতামত জানান -

এরপর, কয়েক মাস আগে অর্পিতা ঘোষকে অপসারিত করে গঙ্গারামপুরের বিধায়ক গৌতম দাসকে তৃণমূলের জেলা সভাপতি করা হয়। জেলা চেয়ারম্যান করা হয় শংকর চক্রবর্তীকে। যুগ্ম কোঅর্ডিনেটর করা হয় সুভাষ চাকি ও ললিতা টিগ্গা। তবে বাচ্চু হাঁসদাকে গুরুত্বহীন করেই রাখা হয়েছে বলে অভিযোগ। এরপর দলের নতুন জেলা কমিটি গঠন হলেও, তিনি ব্রাত্যই থেকে যান। নতুন জেলা নেতৃত্ব পরিচালিত একাধিক অনুষ্ঠানে অনুপস্থিত থাকেন তিনি।

মন্ত্রী বাচ্চু হাঁসদার অনুগামীরা জানিয়েছেন যে, জেলা পরিষদের প্রাক্তন সভাধিপতি ললিতা টিগ্গাকে জেলা কমিটিতে রাখা হলেও, তাকে রাখা হয়নি কমিটিতে। যে কারণে দলের প্রতি যথেষ্ঠ ক্ষুব্ধ তিনি। তৃণমূল সূত্রের খবর, তপনে তাঁর বিলাসবহুল বাড়ি দেখে পিকের নির্দেশে আগামী বিধানসভা নির্বাচনে ভোটের টিকিট পাওয়া তাঁর কার্যত অসম্ভব। তাই দলের বিরুদ্ধে গিয়ে তিনি দল ছাড়তে পারেন। এমন একটা আশঙ্কা আছে।

অন্যদিকে বাচ্চু হাঁসদার ব্যাপারে জানতে তৃণমূল জেলা সভাপতি গৌতম দাস, কোঅর্ডিনেটর ললিতা টিগ্গা, প্রাক্তন জেলা সভাপতি বিপ্লব মিত্রকে একাধিকবার সাংবাদিকরা ফোন করেছিলেন। কিন্তু তারা নীরব ছিলেন। এ প্রসঙ্গে দক্ষিণ দিনাজপুর জেলা তৃণমূল মুখপাত্র জয়ন্ত দাস জানান, দলে তাঁকে গুরুত্ব দেওয়া হয় না, এটা একান্তই তাঁর ব্যক্তিগত মতামত। তিনি আশা করছেন বাচ্চু হাঁসদা, সত্যেন রায় কেউই দল ছেড়ে যাবেন না। দলের মধ্যে কিছুটা ভুল বোঝাবুঝি হওয়ার কারণে তাঁরা এমন কথা বলেছেন।

একনজরে দেখে নিন আমাদের সর্বশেষ বিধানসভা ২০২১ ওপিনিয়ন পোল –

# মুর্শিদাবাদ জেলার ওপিনিয়ন পোল – দ্বিতীয় পর্ব – 

# মুর্শিদাবাদ জেলার ওপিনিয়ন পোল – প্রথম পর্ব – 

# মালদহ জেলার ওপিনিয়ন পোল –

# দক্ষিণ দিনাজপুর জেলার ওপিনিয়ন পোল –

# উত্তর দিনাজপুরে জেলার ওপিনিয়ন পোল –

# জলপাইগুড়ি ও কালিম্পঙ জেলার ওপিনিয়ন পোল –

# আলিপুরদুয়ার ও দার্জিলিং জেলার ওপিনিয়ন পোল –

# কুচবিহার জেলার ওপিনিয়ন পোল –

আপনার মতামত জানান -
আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!