এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > উত্তরবঙ্গ > 34 বছরের সাড়ে 6 বনাম 7 বছরের 100 কে সামনে রেখে চা বাগানে ঝড় তুললেন দোলা সেন

34 বছরের সাড়ে 6 বনাম 7 বছরের 100 কে সামনে রেখে চা বাগানে ঝড় তুললেন দোলা সেন



উত্তরবঙ্গে চা শিল্পকে পুনরুজ্জিবীত করতে বদ্ধপরিকর মা মাটি মানুষের সরকার। বারে বারে উত্তরবঙ্গ সফরে চা শ্রমিক সংগঠন ও মালিকপক্ষদের নিয়ে বৈঠকে সেই কথা স্পষ্ট করে দিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ও। এবার সেই রাজ্যের শাসকদল তৃনমূল কংগ্রেসের 21 শে জুলাইয়ের প্রস্তুতি সভায় শিলিগুড়িতে এসে সরকারের এই উন্নয়নপ্রকল্পের কথাই তুলে ধরলেন তৃনমূল সাংসদ দোলা সেন।এদিন দার্জিলিং জেলা আইএনটিটিইউসির এক সভায় শিলিগুড়ির ইন্ডোর স্টেডিয়ামে উপস্থিত হন দোলা সেন। ছিলেন পর্যটনমন্ত্রী গৌতম দেবও।

আরো খবর পেতে চোখ রাখুন প্রিয়বন্ধু মিডিয়া-তে

——————————————————————————————-

 এবার থেকে প্রিয় বন্ধুর খবর পড়া আরো সহজ, আমাদের সব খবর সারাদিন হাতের মুঠোয় পেতে যোগ দিন আমাদের হোয়াটস্যাপ গ্রূপে – ক্লিক করুন এই লিঙ্কে

সেখানেই বিগত বাম সরকারকে তুলোধোনা করে দোলা সেন বলেন, “বামেরা 34 বছরে চা শ্রমিকদের মজুরি 6 টাকা বাড়িয়েছে । আর এই সাত বছরে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সরকার সেই শ্রমিকদের মজুরি 100 টাকা বৃদ্ধি করেছে।” পাশাপাশি তিনি বাম আমলে শ্রমিকদের দুরাবস্থার সাথে বর্তমান সরকারের আমলে শ্রমিকদের সুদিন ফিরে আসার প্রসঙ্গে বলেন, “আগে চা বাগানে মৃত্যু মিছিল হলেও এই সাত বছরে একটাও মানুষ মারা যায়নি।বাম আমলে 30-35 টি বাগান বন্ধ থাকলেও এখন সেই বন্ধ বাগানের সংখ্যা দাড়িয়েছে মোটে পাঁচটা।”

সূত্রের খবর, ফোরামের ডাকে আগামী 23 শে জুলাই থেকে তিনদিনের চা ধর্মঘটের ডাক দেওয়া হয়েছে উত্তরবঙ্গে। এদিন তারও বিরোধীতা করে সেই বনধ হতে দেওয়া যাবে না বলে কর্মী সমর্থকদের নির্দেশ দেন আইএনটিটিইউসির রাজ্য সভানেত্রী দোলা সেন। দলীয় সংগঠনে যে গোষ্টীদ্বন্দ্ব, তোলাবাজি চলছে ওআ আটকাতে তৃনমূলের এই দাপুটে নেত্রী এদিন বলেন, “রসিদ ছাপিয়ে ইউনিয়নের নামে কোনো চাঁদা তোলা যাবে না। কেউ এরকম করলে দল এবার আইনানুগ ব্যাবস্থা নেবে। জেলায় একটাই শ্রমিক সংগঠন থাকবে। কোনো গোষ্টীদ্বন্দ্ব বরদাস্ত করা হবে না।”

তবে এদিনের 21 শে জুলাইয়ের প্রস্তুতি সভা থেকে দলের জেলা নেতৃত্বের কিছুটা গাঢিলেমির জন্যেই যে দার্জিলিংয়ের কোনো আসনই জিততে পারেনি তৃনমূল সেই কথা মনে করিয়ে মানুষের পাশে থেকে আরও বেশি করে জনসংযোগের নির্দিশ দেন আইএনটিটিইউসির রাজ্য সভানেত্রী। জানা গেছে, এদিনের এই মিটিং শেষে আইএনটিটিইউসির জেলা নেতৃত্বের সঙ্গে 21 শে জুলাই নিয়ে একটি বৈঠকও করেন দোলা সেন। রাজনৈতিক মহলের মতে, একদা চা বাগানের অধিপতি বিমল গুরুং এখন কার্যত ফেরার। তাই এই সুযোগে দার্জিলিং জেলার হারানো সংগঠনকে মজবুত করতে 21 শে জুলাইয়ের প্রস্তুতি সভাকে বেছে নিয়েই বিগত বাম সকারকে কটাক্ষ করে নিজেদের অস্তিত্ব প্রমানে মরিয়া হয়ে উঠল ঘাসফুল শিবির।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!