এখন পড়ছেন
হোম > রাজনীতি > তৃণমূল > দল-সরকারের ভাবমূর্তি উজ্জ্বলে ভোটের আগে তৃণমূলের বড় ভরসা শিক্ষকরাই নেওয়া হচ্ছে বিশেষ পদক্ষেপ

দল-সরকারের ভাবমূর্তি উজ্জ্বলে ভোটের আগে তৃণমূলের বড় ভরসা শিক্ষকরাই নেওয়া হচ্ছে বিশেষ পদক্ষেপ



আপনাদের সুবিধার্থে খবরের শেষে বিধানসভা ২০২১ উপলক্ষে আমাদের করা সর্বশেষ সমীক্ষার প্রতিটির লিঙ্ক দেওয়া আছে।

আপনার মতামত জানান -

প্রিয় বন্ধু মিডিয়া রিপোর্ট – বাঁকুড়ার সভা থেকে ছাত্র থেকে যুব সকল সংগঠনকে আগামী বিধানসভা নির্বাচনের আগে আরও বেশি করে ময়দানে নামার নির্দেশ দিয়েছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। কিন্তু ছাত্র-যুব, মহিলাদের পাশাপাশি এবার সমাজ গড়ার কারিগর শিক্ষকদের সামনে রেখে তৃণমূল সরকার তাদের উন্নয়নের প্রচার মানুষের কাছে পৌঁছে দিতে উদ্যত হয়েছে। সূত্রের খবর, শনিবার প্রাথমিক শিক্ষকরা শিলিগুড়ির কমলপুর চা বাগানে ঘুরে বেড়িয়ে সরকারের নানা উন্নয়নমূলক প্রকল্পের প্রচার করেন।

জানা গেছে, ইতিমধ্যেই তৃণমূলের তরফে একটি কর্মসূচির ঘোষণা করা হয়েছে। যার নাম দেওয়া হয়েছে, “চলুন মাস্টারমশাই ঘুড়ি বাড়ি বাড়ি।” ইতিমধ্যেই এই প্রকল্পের অংশ হিসেবে 700 জন শিক্ষককে নিয়ে 100 টি দল গঠন করা হয়েছে। মূলত বিধানসভা নির্বাচনের আগে যখন বিজেপির পক্ষ থেকে তৃণমূলের বিরুদ্ধে নানা দুর্নীতির অভিযোগ করা হচ্ছে, তখন সমাজ গড়ার কারিগর শিক্ষকদের সামনে রেখে রাজ্য সরকারের উন্নয়নমূলক প্রচার করে তৃণমূল কংগ্রেস নিজেদের ভাবমূর্তি আরও স্বচ্ছ করতে উদ্যত হয়েছে বলে মনে করছেন বিশেষজ্ঞরা।

তবে শিক্ষকরা শুধুমাত্র বাড়ি বাড়ি গিয়ে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সরকারের বিভিন্ন উন্নয়নমূলক প্রকল্পের প্রচার করাই নয়, বিভিন্ন পড়ুয়াদের তারা পাঠদানও করেছেন। অর্থাৎ শিক্ষকদের যা কাজ শিক্ষাদান করা, সেই কাজ করতে দেখা যাচ্ছে তৃণমূলের প্রাথমিক শিক্ষক সংগঠনের সদস্যদের। বিশেষজ্ঞরা বলছেন, এর ফলে তৃণমূল কংগ্রেস এক ঢিলে দুই পাখি মারার চেষ্টা করছে। একদিকে শিক্ষকদের মধ্যে দিয়ে যেমন বার্তা দেওয়া হচ্ছে সমাজের প্রতিটি মানুষকে, ঠিক তেমনই জনসংযোগের একটা অভিনব রূপ এর মধ্যে দিয়ে বেছে নিয়েছে রাজ্যের শাসক দল।

একাংশের দাবি, বিজেপি যখন তৃণমূলের বিরুদ্ধে নানা অভিযোগ করতে ব্যস্ত, তখন মানুষ তৃণমূল থেকে কিছুটা হলেও মুখ ফিরিয়ে নিতে শুরু করেছে। যার ফলে অস্বস্তিতে পড়েছে শাসক দল। তাই এই পরিস্থিতিতে বিধানসভা নির্বাচনের আগে শিক্ষকদের মধ্যে দিয়ে প্রচার প্রক্রিয়া করে মানুষের কাছে নিজেদের ভাবমূর্তি ভালো করার চেষ্টায় এখন সবথেকে বেশি নজর দিয়েছে ঘাসফুল শিবির।

তৃণমূলের আশা, এই কর্মসূচির মধ্য দিয়ে মানুষ অনেকটাই তাদের প্রতি আস্থা রাখতে শুরু করবেন। এদিন এই প্রসঙ্গে শাসকদলের এক শিক্ষক নেতা বলেন, “করোনা পরিস্থিতির জন্য এখনও প্রাথমিক স্কুলে পঠনপাঠন বন্ধ। অনলাইনে প্রাথমিক স্কুলের ছাত্রছাত্রীদের পড়াশোনা করার ব্যবস্থা নেই। তাই বাড়িতে গিয়ে ছাত্র-ছাত্রীদের পঠন-পাঠনের খোঁজখবর নেওয়া হচ্ছে তাদেরকে পড়ানো হচ্ছে।”


দেশে যে কোনো দিন ব্যান হয়ে যেতে পারে হোয়াটস্যাপ। তাই এখন থেকে আমরা শুধুমাত্র টেলিগ্রাম ও সিগন্যাল অ্যাপে। প্রিয় বন্ধু মিডিয়ার নিউজ নিয়মিতভাবে পেতে যোগ দিন –

টেলিগ্রাম গ্রূপটাচ করুন এখানে

সিগন্যাল গ্রূপটাচ করুন এখানে



আপনার মতামত জানান -

এদিকে গোটা বিষয় নিয়ে তৃণমূল এবং বিজেপির মধ্যে শুরু হয়েছে রাজনৈতিক তরজা। তৃণমূলের এই অভিনব উদ্যোগকে কড়া ভাষায় আক্রমণ করেছে ভারতীয় জনতা পার্টি। এদিন এই প্রসঙ্গে শিলিগুড়ি সাংগঠনিক জেলা বিজেপির সাধারণ সম্পাদক আনন্দময় বর্মন বলেন, “রাজনৈতিক জমি আলগা হওয়ায় শিক্ষকদেরও রাজনীতির ময়দানে নামিয়ে এনেছে তৃণমূল কংগ্রেস। এসব করে এবার বিধানসভা ভোটে ওরা গদি বাঁচাতে পারবে না।”

যদিও বা তৃণমূলের পক্ষ থেকে বিজেপির এই অভিযোগকে সম্পূর্ণরূপে নস্যাৎ করা হয়েছে। তাদের পাল্টা দাবি, এর সঙ্গে রাজনীতির কোনো সম্পর্ক নেই। এদিন এই প্রসঙ্গে দার্জিলিং জেলা তৃণমূল সভাপতি বলেন, “লাগাতার অপপ্রচার করেও মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের উন্নয়নের জোয়ার গেরুয়া বাহিনী রুখতে পারছে না।” তবে তৃণমূল মুখে এর সঙ্গে রাজনৈতিক সম্পর্ক নেই বলে যতই প্রচার করুক না কেন, নিজেদের ভাবমূর্তি স্বচ্ছ করতে এবং বিজেপিকে কোণঠাসা করতে যে শিক্ষকদের পথে নামিয়েছে শাসক দল, তা বলার অপেক্ষা রাখে না।

তবে যখন বিজেপির প্রভাব দিনকে দিন বাড়ছে, তখন শিক্ষকরা পথে নেমে তৃণমূলের উন্নয়নের প্রচার করলেও, তা কতটা কাজে দেবে, তা আগামী ভোটবাক্স খোলার পরই প্রমাণ হয়ে যাবে বলে মনে করছেন বিশেষজ্ঞরা। সব মিলিয়ে গোটা পরিস্থিতি কোথায় গিয়ে দাঁড়ায়, সেদিকেই নজর থাকবে সকলের।

একনজরে দেখে নিন আমাদের সর্বশেষ বিধানসভা ২০২১ ওপিনিয়ন পোল –

# মুর্শিদাবাদ জেলার ওপিনিয়ন পোল – দ্বিতীয় পর্ব – 

# মুর্শিদাবাদ জেলার ওপিনিয়ন পোল – প্রথম পর্ব – 

# মালদহ জেলার ওপিনিয়ন পোল –

# দক্ষিণ দিনাজপুর জেলার ওপিনিয়ন পোল –

# উত্তর দিনাজপুরে জেলার ওপিনিয়ন পোল –

# জলপাইগুড়ি ও কালিম্পঙ জেলার ওপিনিয়ন পোল –

# আলিপুরদুয়ার ও দার্জিলিং জেলার ওপিনিয়ন পোল –

# কুচবিহার জেলার ওপিনিয়ন পোল –

আপনার মতামত জানান -
আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!