এখন পড়ছেন
হোম > রাজনীতি > তৃণমূল > দল ছাড়েননি বললেও দলের অন্দরেই প্রশ্ন উঠতে শুরু করল শুভেন্দুর ভূমিকা নিয়ে,

দল ছাড়েননি বললেও দলের অন্দরেই প্রশ্ন উঠতে শুরু করল শুভেন্দুর ভূমিকা নিয়ে,



আপনাদের সুবিধার্থে খবরের শেষে বিধানসভা ২০২১ উপলক্ষে আমাদের করা সর্বশেষ সমীক্ষার প্রতিটির লিঙ্ক দেওয়া আছে।

আপনার মতামত জানান -

প্রিয় বন্ধু মিডিয়া রিপোর্ট –গত 19 নভেম্বর রামনগরের সভা থেকে তিনি স্পষ্ট করে দিয়েছিলেন, তিনি তৃণমূল কংগ্রেসেই আছেন। স্পষ্ট ভাষায় জানিয়ে দিয়েছিলেন, নীতি-আদর্শ বিসর্জন দিয়ে কাজ করার লোক তিনি নন। তারপর থেকে শুভেন্দু অধিকারীকে নিয়ে জল্পনা ধীরে ধীরে কমতে শুরু করবে বলে মনে করেছিল সকলে। কিন্তু কিছুতেই তাকে নিয়ে চর্চা থামছে না বাংলার রাজনৈতিক মহলে।মুখে তিনি তৃণমূলে আছেন বলে দাবি করলেও, শুভেন্দু অধিকারীর আচার-আচরণ অন্য কথা বলতে শুরু করেছে।

ইতিমধ্যেই বেশ কিছু প্রশ্ন তৈরি হয়েছে রাজ্যের পরিবহনমন্ত্রীকে নিয়ে। বস্তুত, দলের সঙ্গে দূরত্ব বাড়ার পর থেকেই বিভিন্ন জায়গায় শুভেন্দু অধিকারীর ছবি দিয়ে “আমরা দাদার অনুগামী” বলে পোস্টার পড়তে দেখা গেছে। যেখানে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বা তৃণমূল কংগ্রেসের কোনো চিহ্ন পর্যন্ত ছিল না। কিন্তু এই শুভেন্দু অধিকারী কিছুদিন আগেই তো জানিয়ে দিয়েছেন, তিনি তৃণমূল কংগ্রেসে আছেন। কিন্তু তারপরেও বিভিন্ন জায়গায় তার বড় বড় ছবি দেওয়া পোস্টার কেন পড়ছে। কেন সেই সমস্ত কিছু সরিয়ে নেওয়া হচ্ছে না!

স্বাভাবিকভাবেই এই প্রশ্ন তুলে শুভেন্দু অধিকারীর উপর ভরসা রাখতে পারছে না তৃণমূলের অনেক কর্মী সমর্থক। অন্যদিকে একাংশ বলছেন, শুভেন্দু অধিকারী নিজেকে তৃণমূলের সৈনিক বলে দাবি করলেও, বর্তমানে কল্যাণ বন্দ্যোপাধ্যায় শুরু থেকে শুরু করে অখিল গিরির মত হেভিওয়েট তৃণমূল নেতারা এমন সব বক্তব্য দিতে শুরু করেছেন, যার ফলে শুভেন্দু অধিকারীর দলে সক্রিয় হওয়া কার্যত স্বপ্ন হয়েই থেকে যাবে বলে মনে করা হচ্ছে।

কেননা যেভাবে এই সমস্ত তৃণমূলের নেতা এবং সাংসদরা শুভেন্দু অধিকারীর বিরোধীতা করতে শুরু করেছেন, তাতে তিনি এই সমস্ত কিছুর উর্ধে উঠে আদৌ দলের সক্রিয় হবেন কিনা, তা বড় প্রশ্নের বিষয় হয়ে দাঁড়িয়েছে। তবে এত সব কিছু সত্ত্বেও শুভেন্দু অধিকারী যাতে দলত্যাগ না করেন, তার জন্য তৃণমূলের এক প্রবীণ সাংসদ মান ভাঙানোর চেষ্টা করছেন বলে খবর। তবে তাকে বেশ কিছু প্রস্তাব দিয়েছেন শুভেন্দু অধিকারী বলে মনে করা হচ্ছে।

যেখানে দলনেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সুব্রত বক্সীর নেতৃত্বে একটি দল করতে অসুবিধা বোধ না করলেও, প্রশান্ত কিশোর এবং অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়কে মেনে নিতে যে তার যথেষ্ট আপত্তি রয়েছে, তা জানিয়ে দিয়েছেন শুভেন্দু অধিকারী বলে বিশেষ সূত্রে খবর পাওয়া যাচ্ছে। স্বাভাবিকভাবেই তৃণমূল নেতৃত্বের পক্ষ থেকে শুভেন্দু অধিকারীর এই প্রস্তাব আদৌ হবে কিনা, তা নিয়ে যথেষ্ট সংশয় রয়েছে।


WhatsApp-এ প্রিয় বন্ধু মিডিয়ার খবর পেতে – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের অন্যান্য সোশ্যাল মিডিয়া গ্রূপের লিঙ্ক – টেলিগ্রামফেসবুক গ্রূপ, ট্যুইটার, ইউটিউব, ফেসবুক পেজ

আমাদের Subscribe করতে নীচের বেল আইকনে ক্লিক করে ‘Allow‘ করুন।

এবার থেকে আমাদের খবর পড়ুন DailyHunt-এও। এই লিঙ্কে ক্লিক করুন ও ‘Follow‘ করুন।



আপনার মতামত জানান -

আর যদি এই প্রস্তাব মানা না হয়, তাহলে শুভেন্দুবাবুর দলে সক্রিয় হওয়ার কোনো মতেই সম্ভব না বলে দাবি বিশেষজ্ঞদের। আর তাই কি তৃনমূলের শীর্ষ নেতৃত্ব এই সমস্ত প্রস্তাব মানবে না জেনেই শুভেন্দুবাবুর অনুগামীরা নিজেদের মত করে তার ছবি দিয়ে “আমরা দাদার অনুগামী” বলে প্রচার করতে শুরু করেছে?

রাজনৈতিক পর্যবেক্ষকরা বলছেন, যদি শুভেন্দু অধিকারীর এই প্রস্তাব তৃণমূল কংগ্রেস মেনে নেয় এবং শুভেন্দু অধিকারী দলে সক্রিয় হন, তাহলে অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় এবং তার গোষ্ঠীর নেতাদের তিনি কোণঠাসা করতে উদ্যত হবেন। যার ফলে বিধানসভা নির্বাচনের আগে কার্যত তৃণমূলের শীর্ষস্তরের অন্তর্কলহ বেধে যাবে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে। তাই এই পরিস্থিতিতে একদিকে কোন্দলের আশঙ্কা এবং অন্যদিকে শুভেন্দু অধিকারী যদি দলের সক্রিয় না হন, তাহলে ভাঙনের আশঙ্কা করতে শুরু করেছে তৃণমূল কংগ্রেস।

স্বাভাবিকভাবেই শুভেন্দু অধিকারীকে নিয়ে এখন ব্যাপক চাপে রাজ্যের শাসকদল। পরিস্থিতি বাগে আনার চেষ্টা হলেও কোনোভাবেই তা সম্ভব হচ্ছে না। তাই এমতাবস্থায় কিছুদিন আগে তৃণমূলের সৈনিক হিসেবে নিজেকে শুভেন্দু অধিকারী জানিয়ে দিলেও, তাকে নিয়ে যে চিন্তা বাংলার রাজনৈতিক বিশেষজ্ঞদের মধ্যে তৈরি হয়েছে, তা কার্যত স্পষ্ট। যেভাবে তৃণমূলে থেকেও বিভিন্ন জায়গায় পৃথকভাবে তার ফেস্টুন এবং ছবি পড়তে দেখা যাচ্ছে, তাতে তৃণমূলের সঙ্গে তার দূরত্ব যে তলায় তলায় অনেকটাই বৃদ্ধি হয়েছে, তাতে নিশ্চিত বিশ্লেষকরা। সব মিলিয়ে গোটা পরিস্থিতি কোথায় গিয়ে দাঁড়ায়, সেদিকেই নজর থাকবে সকলের।

একনজরে দেখে নিন আমাদের সর্বশেষ বিধানসভা ২০২১ ওপিনিয়ন পোল –

# মালদহ জেলার ওপিনিয়ন পোল –

# দক্ষিণ দিনাজপুর জেলার ওপিনিয়ন পোল –

# উত্তর দিনাজপুরে জেলার ওপিনিয়ন পোল –

# জলপাইগুড়ি ও কালিম্পঙ জেলার ওপিনিয়ন পোল –

# আলিপুরদুয়ার ও দার্জিলিং জেলার ওপিনিয়ন পোল –

# কুচবিহার জেলার ওপিনিয়ন পোল –

আপনার মতামত জানান -
আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!