এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > কলকাতা > রাজ্যের মন্ত্রীর বিরুদ্ধে বিক্ষোভ দেখানোয় বদলি একের পর এক ডাক্তার! চিকিৎসা পরিষেবা শিকেয়!

রাজ্যের মন্ত্রীর বিরুদ্ধে বিক্ষোভ দেখানোয় বদলি একের পর এক ডাক্তার! চিকিৎসা পরিষেবা শিকেয়!



“রাজ্যে গণতন্ত্র বলে কিছু নেই” দীর্ঘদিন ধরেই বিরোধীদের এই দাবি বঙ্গ রাজনীতির আকাশকে মেঘাচ্ছন্ন করে তুলেছিল। এমনকি অনেকক্ষেত্রে বিরোধীদের তরফে অভিযোগ করা হয়েছিল যে, সরকারি ক্ষেত্রে যদি কোনো অফিসার সরকারের কোনো সিদ্ধান্তের বিরোধিতা করেন, তাহলে তাকেও শাস্তিস্বরুপ অন্যত্র বদলি করে দেওয়া হয়। যা সত্যিই গণতন্ত্রের পক্ষে অত্যন্ত ভয়াবহ বলেই দাবি করেন বিশেষজ্ঞরা।

কিন্তু সরকারের বিরুদ্ধে বিরোধীরা এই রকম অভিযোগ করলেও, তাকে বরাবরই নস্যাৎ করে দিয়েছে সরকারপক্ষ। তবে এবার একটি ঘটনা সরকারের দিকেই অভিযোগের আঙুল তুলতে শুরু করল। বস্তুত, সম্প্রতি বেশ কিছুদিন আগে কলকাতা মেডিকেল কলেজের হাসপাতালে প্রতিষ্ঠা দিবসের অনুষ্ঠানে উপস্থিত হয়েছিলেন শ্রম দপ্তরের প্রতিমন্ত্রী তথা রোগী কল্যাণ সমিতির চেয়ারম্যান নির্মল মাজি।

জানা যায়, সেদিন নির্মলবাবুকে ঘিরে প্রবল স্লোগান এবং গো ব্যাক ধ্বনী উঠতে দেখা যায়। আর প্রকাশ্যে এভাবে বিক্ষোভের মুখে পড়ে রীতিমত অস্বস্তিতে পড়েন নির্মলবাবু। আর এবার সেই বিক্ষোভ দেখানো ব্যক্তিরা কি সরকারের রোষানলে পড়লেন! সূত্রের খবর, ইতিমধ্যেই ফিজিওলজি বিভাগের ডাক্তার অর্ণব সেনগুপ্ত সহ বেশ কয়েকজন শিক্ষক চিকিৎসককে অন্যত্র বদলি করার জন্য নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

ফেসবুকে আমাদের নতুন ঠিকানা, লেটেস্ট আপডেট পেতে আজই লাইক ও ফলো করুন – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের টেলিগ্রাম গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের সিগন্যাল গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে



আপনার মতামত জানান -

আর এই ঘটনা নানা মহলে তুলে দিচ্ছে অনেক প্রশ্ন। অনেকে বলছেন, নির্মলবাবুকে বিক্ষোভ দেখানোই কাল হয়েছে। আর তার কারণেই তার রোষানলে পড়ে বদলির শিকার হচ্ছেন এই শিক্ষক চিকিৎসকরা। ইতিমধ্যেই এই ব্যাপারে সরব হয়েছে সিপিএমের ডাক্তার সংগঠন অ্যাসোসিয়েশন অফ হেলথ সার্ভিস ডক্টরস, ওয়েস্টবেঙ্গল ডক্টর্স ফোরাম সহ বিভিন্ন সংগঠনগুলো।

তবে বিরোধীদের তরফে নির্মলবাবুকে বিক্ষোভ দেখানোর জন্যই সেই সমস্ত চিকিৎসকদের বদলি করে দেওয়া হল বলে দাবি তোলা হলেও, তা মানতে নারাজ সেই নির্মাল মাঝি। এদিন তিনি বলেন, “যতটুকু শুনেছি 60 জনের বেশি চিকিৎসক বদলি হয়েছেন এবং এই বদলি সংক্রান্ত নির্দেশ জারী করার কথা বেশ কিছুদিন আগেই ছিল। বুঝতে পারছি না, এখানে আমার নাম জরালো কোথা থেকে!”

তিনি আরও বলেন, “আমি কোনো স্বাস্থ্যকর্তা নই যে বদলির নির্দেশ করাব। অবান্তর সব কথাবার্তা বলা হচ্ছে।” কিন্তু নির্মলবাবু যে কথাই বলুন না কেন, তাকে বিক্ষোভ দেখানোর পরই যেভাবে সেই বিক্ষোভকারীদের বদলি আসতে শুরু করেছে, তাতে রাজ্যের শাসকদলের প্রতিহিংসাপরায়ণ আচরণ নিয়ে নানা মহলে উঠতে শুরু করেছে প্রশ্ন।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!