এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > উত্তরবঙ্গ > CAA নিয়ে বাম আন্দোলন ভোঁতা করতে মাস্টারস্ট্রোক দিলীপ ঘোষের! চমকে গেল বঙ্গ-রাজনীতি

CAA নিয়ে বাম আন্দোলন ভোঁতা করতে মাস্টারস্ট্রোক দিলীপ ঘোষের! চমকে গেল বঙ্গ-রাজনীতি



নাগরিকত্ব সংশোধনী আইন নিয়ে ইতিমধ্যেই বিজেপির বিরুদ্ধে কমবেশি প্রতিটি রাজনৈতিক দলই সোচ্চার হতে শুরু করেছে। বাংলায় শাসক দল তৃণমূল কংগ্রেস যেমন এই আইন বাতিলের দাবিতে গেরুয়া শিবিরের বিরুদ্ধে সরব হয়েছে, ঠিক তেমনই বামফ্রন্ট এবং কংগ্রেস এই আইনের বিরুদ্ধে নিজেদের প্রতিবাদ জানাতে শুরু করেছে।

আর বাংলায় তিন রাজনৈতিক দলের বিজেপির বিরুদ্ধে এহেন প্রতিবাদে কিছুটা হলেও অস্বস্তিতে পড়েছে ভারতীয় জনতা পার্টি। তাই এই পরিস্থিতিতে ইতিমধ্যেই এই আইনের স্বপক্ষে সাধারণ মানুষের দুয়ারে দুয়ারে গিয়ে ভালো দিকগুলো তুলে ধরছেন বিজেপি নেতারা। তবে শুধু সাধারণ মানুষ নয়, বিরোধী রাজনৈতিক দলের নেতাকর্মীদের বাড়িতে গিয়েও বিজেপি নেতারা এই আইনের স্বপক্ষে বোঝাতে শুরু করেছেন।

আর এবার বামফ্রন্টের শরিকদল আরএসপির বিধায়ক বিশ্বনাথ চৌধুরী বাড়িতে গিয়ে নাগরিকত্ব আইনের স্বপক্ষে প্রচার করে এলেন বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ। যা বঙ্গ রাজনীতিতে নয়া মাত্রা নিয়ে এল বলেই মত একাংশের। সূত্রের খবর, রবিবার প্রজাতন্ত্র দিবসের দিন সকালে বালুরঘাটের বিভিন্ন এলাকায় ঘোরেন বিজেপির রাজ্য সভাপতি।

যেখানে তার সাথে উপস্থিত ছিলেন বালুরঘাটের বিজেপি সাংসদ সুকান্ত মজুমদার, জেলা বিজেপির সভাপতি বিনয় বর্মন, প্রাক্তন জেলা সভাপতি শুভেন্দু সরকার, নীলাঞ্জন রায় সহ অন্যান্যরা। আর ঘুরতে ঘুরতেই সাধারণ মানুষের কাছে গিয়ে নাগরিকত্ব আইনের সমর্থনে প্রচার করেন দিলীপ ঘোষ। এরপরই সকলকে চমক দিয়ে বাসস্ট্যান্ডে বালুরঘাটের বাম বিধায়ক বিশ্বনাথ চৌধুরীর বাড়িতে ঢুকে পড়েন তিনি।

ফেসবুকে আমাদের নতুন ঠিকানা, লেটেস্ট আপডেট পেতে আজই লাইক ও ফলো করুন – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের টেলিগ্রাম গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের সিগন্যাল গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে



আপনার মতামত জানান -

যেখানে বিশ্বনাথবাবুর ঘরে ঢুকে তার শরীর-স্বাস্থ্যের খবর নেওয়ার পাশাপাশি নাগরিকত্ব আইন সম্পর্কে ভালো দিকটি তুলে ধরেন বিজেপির রাজ্য সভাপতি। আর বিজেপি বিরোধী দল হিসেবে পরিচিত বামফ্রন্টের বিধায়কের বাড়িতে দিলীপ ঘোষের এভাবে আগমন এবং তাকে নাগরিকত্ব আইন সম্পর্কে বোঝানো নিয়ে এখন রাজনৈতিক মহলে তোলপাড় শুরু হয়ে গিয়েছে।

জানা যায়, এদিন বালুরঘাটের আরএসপি বিধায়ক বিশ্বনাথ চৌধুরীর বাড়িতে গিয়ে দিলীপ ঘোষ তাকে বোঝানোর চেষ্টা করেন যে, নাগরিকত্ব আইনে কারও নাগরিকত্ব কেড়ে নেওয়া হবে না। বিশেষজ্ঞরা বলছেন, বিরোধী বিধায়কের বাড়িতে গিয়ে দিলীপ ঘোষের এই আইনের স্বপক্ষে বোঝানো অন্য কারণ রয়েছে। কেননা ইতিমধ্যেই প্রতিটি বিজেপি বিরোধী রাজনৈতিক দল বাংলায় এই আইনের বিরুদ্ধে বিজেপির বিরুদ্ধে প্রচার করতে শুরু করেছে।

তাই সেই প্রচার যাতে বিজেপিকে কাবু করতে না পারে, তার জন্য এবার বামফ্রন্টের বিধায়কের বাড়িতে গিয়ে তাকে বোঝানোর চেষ্টা করলেন বিজেপি রাজ্য সভাপতি। কিন্তু এতে আদৌ কি কাজ হবে! এখন তা নিয়ে নানা মহলে উঠতে শুরু করেছে প্রশ্ন। তবে শুধু বিশ্বনাথ চৌধুরীর বাড়িতে যাওয়াই নয়, বালুরঘাটের বিশিষ্ট নাট্যব্যক্তিত্ব হরিমাধব মুখোপাধ্যায়ের বাড়িতে গিয়েও তাকে প্রণাম করে তার শরীর-স্বাস্থ্যের খোঁজখবর নিয়ে নাগরিকত্ব আইনের সম্পর্কে বোঝান দিলীপ ঘোষ।

পাশাপাশি বালুরঘাটের চায়ের দোকানে আড্ডা মেরে সাধারণ মানুষের কাছে এই আইনের সুফল তুলে ধরেন তিনি। পরে বুনিয়াদপুর অভিনন্দন যাত্রা থেকে দিলীপ ঘোষ বলেন, “এই আইন কারও নাগরিকত্ব কেড়ে নেওয়ার জন্য আসেনি। এটা পুরোপুরি প্রতিবেশী দেশ থেকে ধর্মীয় উৎপীড়নের শিকার হিন্দু, বৌদ্ধ, খ্রিষ্টানদের জন্য করা হয়েছে। যারা এদেশে আশ্রয় নিয়েছেন।”

তবে দিলীপ ঘোষ বালুরঘাটে গিয়ে বাম বিধায়কের বাড়ি সহ এলাকার বিভিন্ন বিশিষ্ট মানুষের বাড়ি গিয়ে এই আইনের স্বপক্ষে বোঝানোর চেষ্টা করলেও, আদৌ তাতে কাজ হয় কিনা! এখন সেদিকেই নজর থাকবে সকলের। তবে, রাজনৈতিকভাবে সম্পূর্ণ বিপরীত মেরুতে থাকা বাম-জনপ্রতিনিধির বাড়িতে গিয়েও যেভাবে বিজেপি রাজ্য সভাপতি সিএএ-এর প্রচার করছেন, তাতে করে এটাকে তাঁর মাস্টারস্ট্রোক বলেই মনে করছেন রাজনৈতিক বিশেষজ্ঞরা।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!