এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > দার্জিলিং-এর ছায়া মালদহে, ঘোর অস্বস্তিতে দিলীপ ঘোষ

দার্জিলিং-এর ছায়া মালদহে, ঘোর অস্বস্তিতে দিলীপ ঘোষ



ফের অস্বস্তিতে দিলীপ ঘোষ। দার্জিলিংয়ের পর মালদহ তৃণমূলের প্রমীলা বাহিনীর বাধার মুখে পরে প্রচার না করেই ফিরতে হলো বিজেপি সভাপতিকে। জানা গেছে এদিন মালদহের ইংরেজবাজারের ফুলবেড়িয়া গ্রাম পঞ্চায়েত এলাকায় দিলীপ ঘোষ পঞ্চায়েত নির্বাচনে দলীয় প্রার্থীদের সমর্থনে প্রচারে গিয়েছিলেন সেখানে যাওয়া মাত্রই গ্রামের মেয়েদের বাধার মুখে পড়েন তিনি। গ্রামে জোকার মুখেই তাঁর গাড়ি আটকে তাঁকে ঘিরে ধরে প্রমীলা বাহিনী। জানা যাচ্ছে এই সময় এক মহিলা নাকি তাঁকে অনুরোধ করেন যে , এই গ্রামে কোনো অশান্তি নেই, সবাই শান্তিতে রয়েছেন। তাই দিলীপবাবু যেন গ্রামে উসকানিমূলক কথা বলতে না আসেন। গ্রাম থেকে যেন চলে যান।

আরো খবর পেতে চোখ রাখুন প্রিয়বন্ধু মিডিয়া-তে

এর পর এখানেই না থেমে কয়েকজন দিলীপবাবুর হাতে কন্যাশ্রী প্রকল্পের পুস্তিকা তুলে দেওয়ার চেষ্টা করেন। এই সময় দিলীপবাবু রেগে যান ও বলেন,”কে তোমাদের এসব বলার অধিকার দিল ? দিদির চামচাগিরি হচ্ছে।” এই শুনেই প্রমীলা বাহিনী গো ব্যাক স্লোগান তোলেন এরপর প্রচার না করেই ফিরে আসতে হয় দিলীপবাবুকে। এদিকে বিজেপির কর্মীরা পরিস্থিতি সামাল দেয়। এই নিয়ে বিজেপির অভিযোগ তৃণমূলের উস্কানিতেই তৃণমূলের প্রমীলা বাহিনী এই কাজ করেছে। যাতে প্রচার করতে না দেওয়া হয় তাই এই ঘটনা ঘটিয়েছে তারা। যদি তৃণমূলের উস্কানি না থাকবে তবে গ্রামের মহিলারা এই কাজ করতেন না। তাদের যদি বিজেপি সভাপতিত্বে আপত্তি ছিল তবে তাঁরা কন্যাশ্রী প্রকল্পের পুস্তিকা তুলে দেওয়ার চেষ্টা করলেন কেন? তাঁরা তো অন্য কোনো কথা বলেও আটকাতে পারতেন। আসলে ওঁদের হাতে কন্যাশ্রীর পুস্তিকা প্রমাণ করেছে যে ওঁরা তৃণমূলের প্ররোচনাতেই এই কাজ করেছে। আসলে বিজেপিকে তৃণমূল ভয় পাচ্ছে। অবশ্য সমস্ত অভিযোগ অস্বীকার করেছেন ইংরেজবাজার ব্লক তৃণমূল সভাপতি কল্যাণ মণ্ডল। তিনি দাবি করেছেন যে বিজেপি -কে কেউ চাইছে না। ওরা শুধু উসকানিমূলক কথা বলে অশান্তি পাকাতে চাইছে। গ্রামবাসীরা তারই প্রতিবাদ করেছেন।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!