এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > কলকাতা > ‘চিটফান্ড কেলেঙ্কারিও তো দিদির আমলেই!’ফের মমতাকে কাঠগড়ায় দাঁড় করলেন দিলীপ

‘চিটফান্ড কেলেঙ্কারিও তো দিদির আমলেই!’ফের মমতাকে কাঠগড়ায় দাঁড় করলেন দিলীপ



প্রিয় বন্ধু মিডিয়া রিপোর্ট – রাজ্যের দুই যুযুধান শিবির তৃণমূল এবং বিজেপি। এই দুই শিবিরের মধ্যে বিভিন্ন সময় দেখা যায় রাজনৈতিক বিতণ্ডা তুঙ্গে। সম্প্রতি রাজ্যের শাসক দল তৃণমূলের বিরুদ্ধে দুর্নীতি নিয়ে সবথেকে বেশি সরব হয়েছিল গেরুয়া শিবির বলে মনে করেন রাজনৈতিক মহলের একাংশ। যদিও প্রাথমিকভাবে বিরোধীদের অভিযোগ উড়িয়ে দিলেও পরবর্তীতে রাজ্যের সাধারণ মানুষের ক্ষোভের বহিঃপ্রকাশ দেখে বর্তমানে শাসক শিবির দুর্নীতির বিরুদ্ধে কড়া পদক্ষেপ গ্রহণ করেছে বলে দেখা যাচ্ছে।

কিন্তু বিরোধী শিবিরের দাবি, পুরোটাই সাধারণের চোখে আই ওয়াশ। এহেন বিবৃতির পরিপ্রেক্ষিতে সম্প্রতি রাজ্যের বিজেপি সভাপতি দিলীপ ঘোষ সরাসরি সমস্ত অভিযোগ নিয়ে মুখ্যমন্ত্রীকে চিঠি লিখেছেন বলে জানা গেছে। অন্যদিকে করোনা সংক্রমণের বাড়বাড়ন্তের জন্য মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়সহ তৃণমূলের নেতা-নেত্রীদের এদিন দায়ী করেছেন রাজ্য বিজেপি সভাপতি বলে জানা গেছে। বৃহস্পতিবার বিকেলে রাজ্য বিজেপি সভাপতি মুখোমুখি হন সাংবাদিকদের।

আর সেখানেই তিনি জানান দুর্নীতিসহ একাধিক বিষয়ে তিনি মুখ্যমন্ত্রীকে চিঠি লিখেছেন। শুধু তাই নয়, আমফান ক্ষতিপূরণ নিয়ে দুর্নীতির পাশাপাশি এদিন দিলীপ ঘোষ মিড-ডে-মিল নিয়েও অভিযোগ জানিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রীকে বলে জানা যায়। অন্যদিকে রাজ্যে ফেরত আসা পরিযায়ী শ্রমিকদের দুর্দশা যে এখনও বর্তমান, সে কথাও মনে করিয়ে দেন মুখ্যমন্ত্রীকে এদিন রাজ্য বিজেপি সভাপতি। এর সাথেই প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশিত এক দেশ এক রেশন কার্ড নীতিকে সমর্থন করার কথা বলেন দিলীপ ঘোষ।

আমাদের নতুন ফেসবুক পেজ (Bloggers Park) লাইক ও ফলো করুন – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের টেলিগ্রাম গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের সিগন্যাল গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে



আপনার মতামত জানান -

অন্যদিকে, সম্প্রতি তৃণমূল নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় দুর্নীতি নিয়ে সম্পূর্ণ দায়ভার চাপিয়ে দিয়েছেন বাম শিবিরের ঘাড়ে। এবং রাজ্য বিজেপি সভাপতি দিলীপ ঘোষ উল্লেখযোগ্যভাবে এদিন বাম শিবিরের পাশে দাঁড়িয়ে মন্তব্য করেন তৃণমূল নেত্রীর উদ্দেশ্যে। দিলীপ ঘোষের কথায়, ‘কোনও সিপিএম নেতা তো জেল খাটেননি। চিটফান্ড কেলেঙ্কারিও তো দিদির আমলেই!’ তবে এদিন পেট্রোপণ্যের মূল্যবৃদ্ধি নিয়ে বিশেষ কোন মন্তব্য করেননি রাজ্য বিজেপি সভাপতি বলে জানা গেছে।

অন্যদিকে কেন্দ্রীয় বেসরকারিকরণ নীতি নিয়েও কেন্দ্রকে সমর্থন যুগিয়েছেন দিলীপ ঘোষ এদিন। অন্যদিকে রাজ্যে হু হু করে বেড়ে চলা করোনা পরিস্থিতির ভয়াবহতা নিয়ে এদিন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে একহাত নেন দিলীপ ঘোষ বলে জানা গেছে। তাঁর কথায় মুখ্যমন্ত্রী এবং তাঁর সাঙ্গপাঙ্গরা যেভাবে লকডাউনের নীতি ভেঙ্গে রাস্তায় চলাচল করেছেন, সে কারণেই করোনার এত বাড়বাড়ন্ত। তবে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে তিনি প্রশাসনের ওপরেই নির্ভর করেছেন বলে জানা গেছে।

দিলীপ ঘোষের কথায়, পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে গেলে প্রশাসনের আরও কড় হওয়া প্রয়োজন। নিয়ম ভাঙলে পুলিশ ব্যবস্থা নিলে তবেই এই পরিস্থিতি মোকাবিলা করা যাবে। অন্যদিকে রাজনৈতিক মহলের একাংশের মতে, দিলীপ ঘোষ যেভাবে প্রতিটি পদক্ষেপে তৃণমূল নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে আক্রমণ করে গেছেন এদিন, তা যে 2021 এর বিধানসভা নির্বাচনের দিকে লক্ষ্য রেখে সে কথা বলাই বাহুল্য। আপাতত 2021 এর বিধানসভা নির্বাচনকে পাখির চোখ করেছে রাজ্যের সবকটি রাজনৈতিক দল। সে ক্ষেত্রে জনসমর্থন আদায় করতে কোন দল সমর্থ হবে, সে দিকেই এখন নজর সবার।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!