এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > নদীয়া-২৪ পরগনা > ডায়মন্ডহারবারের কঠিন আসনেও অভিষেককে এক ইঞ্চি জমি ছাড়তে রাজি নয় বিজেপি

ডায়মন্ডহারবারের কঠিন আসনেও অভিষেককে এক ইঞ্চি জমি ছাড়তে রাজি নয় বিজেপি



আসন্ন লোকসভা নির্বাচনে বাংলার 42 টি আসনের মধ্যে 22 থেকে 23 টি আসন নিজেদের দখলে রাখবার জন্য রাজ্য নেতৃত্বকে ইতিমধ্যেই টার্গেট বেঁধে দিয়েছেন বিজেপির কেন্দ্রীয় নেতৃত্ব। আর সেই মতো বেছে বেছে রাজ্যের বেশ কয়েকটি কেন্দ্রে ভোটার তৎপর হয়েছে গেরুয়া শিবির।

আর তার মধ্যে অন্যতম তৃণমূল কংগ্রেসের সেকেন্ড-ইন-কমান্ড তৃণমূলের সর্বভারতীয় সভাপতি অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ের কেন্দ্র হিসেবে পরিচিত ডায়মন্ডহারবার। এখানে অভিষেকবাবুর মত হেভিওয়েটের বিরুদ্ধে বিজেপির তরফে প্রার্থী করা হয়েছে উত্তরবঙ্গের বালুরঘাটের বিজেপি নেতা বলে পরিচিত কিছুটা বহিরাগত নীলাঞ্জন রায়কে।

ইতিমধ্যেই সেই নিলাঞ্জন রায়কে কটাক্ষ করে দলের কর্মীসভায় অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় বলেন, “বিজেপি প্রার্থী এলাকাকেই চেনেন না। ফলে মানুষ তাকে কেন ভোট দেবে! কয়েকদিন ঘুরে একদিন নিঃশব্দে ট্রেন করে বাড়ি চলে যাবে। এই লোকসভা কেন্দ্রে আমাকে হারানোর জন্য সিপিএম ও বিজেপি মিলে গোপন আঁতাত করেছে। কিন্তু এতে কিছুই লাভ হবে না।”

কিন্তু তৃণমূলের হেভিওয়েট প্রার্থী ডায়মন্ডহারবার লোকসভা কেন্দ্রের বিদায়ী সাংসদ অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় বিজেপির বিরুদ্ধে তোপ দাগলেও এদিন পাল্টা সেই তৃণমূলের বিরুদ্ধে সরব হতে দেখা যায় ডায়মন্ডহারবার লোকসভা কেন্দ্রের বিজেপি প্রার্থী নীলাঞ্জন রায়কে।


WhatsApp-এ প্রিয় বন্ধু মিডিয়ার খবর পেতে – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের অন্যান্য সোশ্যাল মিডিয়া গ্রূপের লিঙ্ক – টেলিগ্রামফেসবুক গ্রূপ, ট্যুইটার, ইউটিউব, ফেসবুক পেজ

আমাদের Subscribe করতে নীচের বেল আইকনে ক্লিক করে ‘Allow‘ করুন।

এবার থেকে আমাদের খবর পড়ুন DailyHunt-এও। এই লিঙ্কে ক্লিক করুন ও ‘Follow‘ করুন।



আপনার মতামত জানান -

সূত্রের খবর, এদিন বিজেপি সভাপতি অভিজিৎ দাসকে সঙ্গে নিয়ে একটি কর্মীসভা করে অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়কে কটাক্ষ করে নীলাঞ্জন রায় বলেন, “তৃণমূল প্রার্থী আমাকে নিয়ে কটাক্ষ করছেন। কিন্তু বিগত নির্বাচনগুলোতে ডায়মন্ডহারবার লোকসভা কেন্দ্রে উনি কোনো নির্বাচনের পরিবেশ রাখেননি।” পাশাপাশি অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ের রাজনৈতিক আদর্শ নিয়েও প্রশ্ন তুলে দেন নীলাঞ্জন বাবু।

তিনি বলেন, “আমি ওনার মত কারো দয়ায় কোন সংগ্রাম ছাড়াই রাজনীতিতে আসিনি। লড়াই করে রাজনীতিতে এসেছি। এখানে আমাদের ভোটার আছে কিনা তা মানুষই বলে দেবে। তবে মানুষ যদি স্বাধীনভাবে ভোট দিতে পারে তাহলে অনেকেরই অহংকার মাটিতে মিশে যাবে। তৃণমূলের প্রার্থী উন্নয়নের কথা বলে যাচ্ছেন। তার সঙ্গে বাস্তবের কোনো মিল নেই। কে কার সঙ্গে কিভাবে আঁতাত করেছে তা সাধারণ মানুষ জানে।”

রাজনৈতিক পর্যবেক্ষকদের মতে, মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ভাইপো তথা যুব তৃণমূল সর্বভারতীয় সভাপতি অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ের কেন্দ্র ডায়মন্ডহারবারে কিছুটা বহিরাগত হলেও বালুরঘাটের নীলাঞ্জন রায় এখানে প্রার্থী হয়ে সেই অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ের বিরুদ্ধে মুখ খুলে তৃণমূলের বিপক্ষে আওয়াজ তুলে ঘাসফুল শিবিরের উদ্দেশ্যে জোর লড়াইয়ের বার্তা দিলেন। যা অত্যন্ত তাৎপর্যপূর্ণ বলেই মনে করছেন একাংশ।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!