এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > নদীয়া-২৪ পরগনা > ধর্ষণের বড়সড় অভিযোগ তৃণমূল নেতার বিরুদ্ধে, অস্বস্তি শাসকশিবিরে!

ধর্ষণের বড়সড় অভিযোগ তৃণমূল নেতার বিরুদ্ধে, অস্বস্তি শাসকশিবিরে!



মেয়েরা কোন জায়গাতেই নিরাপদ নয়, তা সে যে কোন পরিস্থিতি হোক না কেন। সম্প্রতি একটি ঘটনা তা চোখে আঙুল দিয়ে দেখিয়ে দিল। এ যুগের মেয়েরা এখনো ভোগ্যপণ্য হিসেবেই বিচার্য হয়। সমাজে মেয়েরা যতই উন্নতি করুক বা যতই কর্মক্ষম হোক, অবস্থা সেই একই জায়গাতেই রয়ে গেছে। পুরনো দিন আর নতুন দিনের মধ্যে বিশেষ কোনো পার্থক্য নেই। সম্প্রতি বেশ কিছুদিন আগে রাজ্যজুড়ে হয়ে গেছে বুলবুল ঘূর্ণিঝড়। ঘূর্ণিঝড়ের মাত্রা এতটাই বেশি ছিল যে সর্বস্ব হারাতে হয়েছে বেশকিছু পরিবারকে। এরকমই স্থানীয় একটি পরিবার থেকে এক গৃহবধূ যখন ক্ষতিপূরণ চাইতে যায় স্থানীয় শাসক দলের নেতার কাছে, তখন তাকে ধর্ষণ করা হয় বলে অভিযোগ।

লজ্জাজনক এ ঘটনাটি সামনে আসার সঙ্গে সঙ্গে তীব্র ধিক্কার শুরু হয়েছে সমস্ত রাজনৈতিক মহলে। বুলবুল ঘূর্ণিঝড়ে ক্ষতিগ্রস্ত হওয়ার পর রাজ্য সরকার শুরু করেছে ক্ষতিগ্রস্তদের ক্ষতিপূরণ দেওয়া। এদিন এই ক্ষতিপূরণ চাইতে গিয়েছিলেন স্থানীয় তৃণমূল নেতা দূর্গা দাসের কাছে দক্ষিণ ২৪ পরগনার বাসন্তীর চুনাখালি এলাকার ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারের এক গৃহবধূ। কিন্তু সে জানতো না কি নির্মম পরিণতি তার জন্য লুকিয়ে আছে। ক্ষতিপূরণ চাওয়ায় স্থানীয় তৃণমূল নেতা দুর্গাদাস ওই গৃহবধূকে ধর্ষণ করেছে বলে অভিযোগ।

স্থানীয় সূত্রের খবর হলো রাজ্য সরকার ক্ষতিপূরণ দেওয়ার ব্যবস্থা শুরু করতেই ওই গৃহবধূ তৃণমূল নেতা দুর্গাদাস এর দ্বারস্থ হয়। তাঁর কাছেই ক্ষতিপূরণের ব্যাপারে সাহায্য চাইতে যায় সে। কিন্তু দুর্গাদাস সে সময় তাঁকে জানায় সম্পূর্ণ ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ আগে সরকারি খাতায় রেকর্ড করা হবে এবং তারপর তাঁকে তিন হাজার টাকা মাত্র ক্ষতিপূরণ দেওয়া হবে। একথা শুনে স্বাভাবিকভাবেই ওই গৃহবধূ আকূল সাহায্য চেয়ে বসে। আর এরপরেই অভিযোগ ওঠে সুযোগের সদ্‌ব্যবহার করেন ওই তৃণমূল নেতা। ঘটে সেই মর্মান্তিক ঘটনা।

ফেসবুকে আমাদের নতুন ঠিকানা, লেটেস্ট আপডেট পেতে আজই লাইক ও ফলো করুন – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের টেলিগ্রাম গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের সিগন্যাল গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে



আপনার মতামত জানান -

পরের ঘটনা বর্ণনা করেন ওই ধর্ষিত গৃহবধূ। তিনি বলেন, তৃণমূল নেতা দুর্গাদাস এরপর তাঁকে সঙ্গে করে ঝড়খালির একটি বাংলোতে নিয়ে যান। এবং সেখানে ওই গৃহবধূটিকে জোর করে মদ্যপান করানো হয়। আর তারপর তাঁকে বন্দুক ঠেকিয়ে ধর্ষণ করা হয় এবং হুমকি দেওয়া হয় এই ঘটনা পরবর্তীতে কেউ জানতে পারলে ওই গৃহবধূর স্বামী ও ছেলেকে হত্যা করা হবে। ভীতসন্ত্রস্ত, নির্যাতিত, ধর্ষিত ওই গৃহবধূ ঘটনার কথা প্রথম অবস্থায় কাউকে না জানালেও পরবর্তীতে সে তাঁর নিজের মাকে সম্পূর্ণ ঘটনার বিবরণ দেয়। এবং তারপর ঝড়খালি থানায় অভিযোগ দায়ের করা হয় ওই তৃণমূল নেতার নামে। অভিযোগ পেয়ে পুলিশ ওই অভিযুক্ত নেতাকে গ্রেপ্তার করে।

এই ঘটনাটি সামনে আসার সাথে সাথে রাজনৈতিক মহলে তীব্র আলোড়ন সৃষ্টি হয়েছে। বলাইবাহুল্য, রাজ্যের বিরোধী দলগুলি একযোগে এবার শাসক দলকে আক্রমণ করতে শুরু করেছে এই ঘটনাটিকে কেন্দ্র করে। অন্যদিকে, শাসক দল তৃণমূল এই মুহূর্তে কোন রকম প্রতিক্রিয়া দেয়নি এই ঘটনায়। তবে রাজনৈতিক বিশেষজ্ঞদের মতে, ঘটনাটি খুব স্বাভাবিকভাবেই শাসক দলকে কিছুটা অস্বস্থিতে ফেলেছে। সামনেই পুরভোট এবং পরবর্তীতে বিধানসভা ভোট। এই অবস্থায় এই ধরনের ঘটনা ঘটা মোটেই সমীচীন নয় বলে মনে করছে রাজনৈতিক মহলের একাংশ। আপাতত এই ঘটনার পরিপ্রেক্ষিতে শাসকদল অভিযুক্তের বিরুদ্ধে কি ব্যবস্থা নেয়, সে দিকে লক্ষ্য রাখবে রাজনৈতিক মহল।

আপনার মতামত জানান -

ট্যাগড
Top
error: Content is protected !!