এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > কলকাতা > দিল্লির উস্কানিমূলক স্লোগান এবার বাংলার রাজপথে তীব্র আকারে শোনা গেল

দিল্লির উস্কানিমূলক স্লোগান এবার বাংলার রাজপথে তীব্র আকারে শোনা গেল



সম্প্রতি দিল্লিতে সংশোধিত নাগরিকত্ব আইন এবং জাতীয় নাগরিকপঞ্জি সমর্থক ও বিরোধীদের সংঘর্ষে রীতিমতো অগ্নিগর্ভ পরিস্থিতি তৈরি হয়েছে।   এবার বাংলার বুকে উস্কানিমূলক স্লোগান উঠল বিজেপি মিছিলের মধ্য থেকে। গতকাল কলকাতায় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহের সভাকে কেন্দ্র করে কলকাতায় একটি বিজেপি মিছিল বের হয়, যেখান থেকে বিতর্কিত ‘গোলি মারো’ স্লোগানটি শোনা যায় বলে জানা গেছে। এখনো দিল্লির সংঘর্ষের আগুন পুরোপুরি নিভেছে বলা যাচ্ছে না, তার মধ্যেই নতুন করে বিতর্কিত শ্লোগানটি এবার বাংলার রাজপথে শুনতে পাওয়া গেল। এই ঘটনায় তীব্র সমালোচনার সৃষ্টি হয়েছে রাজনৈতিক মহলে।

সম্প্রতি কেন্দ্রীয় মন্ত্রী অনুরাগ ঠাকুর দিল্লী বিধানসভা নির্বাচনের আগে বিতর্কিত ‘গোলি মারো’ স্লোগানটি দিয়েছিলেন। এবার কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহের সভায় যাওয়ার পথে রবিবার ধর্মতলা চত্ত্বরে বিজেপি মিছিল থেকে একইভাবে স্লোগান উঠল। ঘটনার কথা প্রশাসনের কানে যাওয়ার সাথে সাথেই তাঁরা সক্রিয় হয়ে উঠে বলে খবর। এ ধরনের স্লোগানকে উস্কানিমূলক মন্তব্যের সাথে তুলনা করা হচ্ছে বলে জানা গেছে। ইতিমধ্যে স্লোগান কর্তাদের সিসিটিভি ফুটেজ দেখে চিহ্নিত করে পুলিশ ও তাঁদের বিরুদ্ধে নিউমার্কেট থানায় ফৌজদারি দণ্ডবিধির 153 এ, 505, 506 এবং 34 নম্বর ধারায় মামলা রুজু করেছে পুলিশ। এগুলির মধ্যে দুটি জামিন অযোগ্যধারাও রয়েছে বলে জানা গেছে।

উস্কানিমূলক স্লোগান দেওয়ার অপরাধে সিসিটিভি ফুটেজ দেখে ইতিমধ্যে পুলিশ 3 বিজেপি কর্মীকে গ্রেপ্তার করেছে বলে খবর। ধৃত তিনজন হলেন কলকাতার সদর স্ট্রিট লাগোয়া টোটি লেন থেকে সুরেন্দ্র তিওয়ারি, হরিদেবপুর থেকে ধ্রুব বসু ও ভবানীপুর এলাকা থেকে পঙ্কজ প্রসাদ। সূত্রের খবর, ধৃত 3 বিজেপি সদস্য বিজেপির আইনজীবীর সেলের সক্রিয় সদস্য। অন্যদিকে পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, ধৃত 3 বিজেপি সদস্যকে ব্যাঙ্কশাল কোর্টে তোলা হবে। এদিকে এই ঘটনাকে কেন্দ্র করে রাজ্য বিজেপি শিবিরে তীব্র ক্ষোভ দেখা গেছে প্রশাসনের বিরুদ্ধে।

ফেসবুকে আমাদের নতুন ঠিকানা, লেটেস্ট আপডেট পেতে আজই লাইক ও ফলো করুন – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের টেলিগ্রাম গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের সিগন্যাল গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে



আপনার মতামত জানান -

রবিবার কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ ধর্মতলা চত্বরে সভা করতে আসেন। অন্যদিকে এই সভায় যোগ দিতে আসা বিজেপি কর্মীরা পুলিশের সামনেই কেন্দ্রীয় মন্ত্রী অনুরাগ ঠাকুরের দেওয়া বিতর্কিত স্লোগানটি দিতে দিতে সভাস্থলের দিকে এগিয়ে যান। এই উস্কানিমূলক স্লোগানটি রাজ্যের বুকে শুনতে পাওয়ার পর থেকেই তুমুল সমালোচনা শুরু হয় রাজ্যের রাজনৈতিক মহলে। অন্যদিকে, দিল্লী বিধানসভা নির্বাচনের আগে এ ধরনের উস্কানিমূলক মন্তব্য বিজেপির ওপর থেকে সাধারণ নাগরিকদের বিশ্বাস উঠে যাওয়ার অন্যতম কারণ বলে মনে করা হচ্ছে। এমনকি দিল্লির শাহীনবাগের আন্দোলনে্র প্রতিবাদ করতে গিয়েও এ ধরনের উস্কানিমূলক স্লোগানকে হাতিয়ার করেছিল বিজেপি নেতা কর্মীরা।

দিল্লির সংঘর্ষের ঘটনায় ইতিমধ্যে 42 টি প্রাণ গিয়েছে বলে জানা গেছে। শান্তি ফিরেছে কি ফেরেনি তা নিয়েও সন্দেহ রয়েছে। তার মধ্যেই এবার পশ্চিমবঙ্গে ‘গোলি মারো’ স্লোগানকে কেন্দ্র করে ধুন্ধুমার অবস্থা। অন্যদিকে রাজনৈতিক বিশেষজ্ঞদের মতে, এ ধরনের উস্কানিমূলক মন্তব্যের ফলে যেকোনো জায়গায় যেকোন সময় সাম্প্রদায়িক হিংসা শুরু হয়ে যেতে পারে। তাই বিজেপি নেতা কর্মীদের যথেষ্ট সাবধান হয়ে মন্তব্য করা উচিত জনসমক্ষে। যদিও রাজনৈতিক মহলের দাবি, বিজেপি এই মুহূর্তে ‘গোলি মারো’ স্লোগানকে হাতিয়ার করেই রাজনৈতিক ময়দানে নেমেছে লড়াই জেতার উদ্দেশ্যে। আপাতত পরিস্থিতির ওপর নজর রাখছে ওয়াকিবহাল মহল।

আপনার মতামত জানান -

ট্যাগড
Top
error: Content is protected !!