এখন পড়ছেন
হোম > জাতীয় > দিল্লি নির্বাচনের আগেই সামনে এলো এবিপি নিউজ এবং সি ভোটারের সমীক্ষা, বিজেপির ভাগ্যে কি আছে?

দিল্লি নির্বাচনের আগেই সামনে এলো এবিপি নিউজ এবং সি ভোটারের সমীক্ষা, বিজেপির ভাগ্যে কি আছে?



2019 সালের লোকসভা নির্বাচনে ঐতিহাসিক বিজয় পাওয়ার পরেই একের পর এক বিধানসভা নির্বাচনে ধাক্কা খেতে শুরু করেছে কেন্দ্রের শাসক দল ভারতীয় জনতা পার্টি। আর এবার বিজেপির চিন্তা আরো বাড়িয়ে দিল্লী বিধানসভা নির্বাচনের ভোট পূর্ব সমীক্ষা। যা রীতিমত অস্বস্তিতে ফেলে দিয়েছে পদ্ম শিবিরকে। সমীক্ষা অনুযায়ী, দিল্লিতে ক্ষমতা দখল তো অনেক দূরের কথা, সংখ্যাগুণিতের হিসাবে দশের কম বিধায়ক লাভ করতে পারে ভারতীয় জনতা পার্টি।

এবিপি নিউজ এবং সি ভোটার জনমত সমীক্ষায় ভারতীয় জনতা পার্টির দিল্লি দখলের আশাকে এই ভাবেই দিবাস্বপ্ন বলা হয়েছে। সমীক্ষা অনুযায়ী, একদিকে যেমন ভারতীয় জনতা পার্টি দশের কম আসন লাভ করতে পারেন, তেমনই রীতিমতো নিরঙ্কুশ সংখ্যাগরিষ্ঠতা লাভ করে তৃতীয়বারের জন্য সরকার গঠন করতে পারে আম আদমি পার্টি।

এক্ষেত্রে প্রধান বিরোধী দল হলেও সংখ্যার দিক থেকে আম আদমি পার্টির কাছে অনেকটাই পিছিয়ে থাকতে হবে ভারতীয় জনতা পার্টিকে। এবিপি সি ভোটারের জনমত সমীক্ষায় দেখানো হয়েছে, আগামী দিল্লি বিধানসভা নির্বাচনে 70 আসন বিশিষ্ট বিধানসভায় যেখানে 70 এর মধ্যে 59 টি আসন লাভ করতে পারে আম আদমি পার্টি, সেখানেই কার্যত ধুলিস্যাৎ হয়ে মোট 8 টি আসনে জয় যুক্ত হতে পারে পদ্মফুল শিবির।

কংগ্রেসের কপালে জুটত পারে 3 টি আসন। আরও বিস্তারিত ভাবে এই সমীক্ষা জানাচ্ছে, আম আদমি পার্টি 54 থেকে 64 টি আসন লাভ করতে পারে। অর্থাৎ আনুমানিক 59 টি আসন লাভ করতে পারে আপ। আবার ভারতীয় জনতা পার্টি 3 থেকে 13 টি আসনের মধ্যে থেমে যেতে পারে। এক্ষেত্রে কংগ্রেস পেতে পারে 0 থেকে 6 টি আসন। আর এই সমীক্ষা প্রকাশ হওয়ার পরেই কার্যত জল্পনা তৈরি হয়ে গেছে রাজনৈতিক মহলের অন্দরে।

কারণ শুধু সংখ্যার দিক থেকেই নয়, শতাংশের দিক থেকেও এবিপি নিউজ এবং সি ভোটার সমীক্ষায় ভারতীয় জনতা পার্টির থেকে অনেক গুন এগিয়ে রয়েছে আম আদমি পার্টি। যেখানে ভারতীয় জনতা পার্টি মোটে 26 শতাংশ ভোট পেতে পারে, সেখানে তাদের থেকে প্রায় দ্বিগুণ এগিয়ে আম আদমি পার্টি পেতে পারে 54 শতাংশ ভোট। কংগ্রেস অবশ্য সর্বমোট 5% ভোট পেতে পারে। এতো গেল আসন এবং ভোট শতাংশের সমীক্ষা।

ফেসবুকে আমাদের নতুন ঠিকানা, লেটেস্ট আপডেট পেতে আজই লাইক ও ফলো করুন – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের টেলিগ্রাম গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের সিগন্যাল গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে



আপনার মতামত জানান -

মুখ্যমন্ত্রী পদে সমীক্ষার দিক থেকেও আম আদমি পার্টির তুলনায় অনেক গুণ পিছিয়ে রয়েছে ভারতীয় জনতা পার্টি। যেখানে দিল্লির বর্তমান মুখ্যমন্ত্রী অরবিন্দ কেজরিওয়ালকে পুনরায় পছন্দ করেছেন 70% দিল্লিবাসী, সেখানে ভারতীয় জনতা পার্টির নেতা হর্ষবর্ধনকে নিজেদের দ্বিতীয় পছন্দ মনে করছেন না দিল্লির জনতা। তবে শতাংশের দিক থেকে তিনি অনেকটাই পিছিয়ে। কেউ কেউ আবার দিল্লি বিজেপির সভাপতি মনোজ তিওয়ারিকে মুখ্যমন্ত্রী হিসেবে পছন্দ করেছেন। তবে সেই সংখ্যাটা মোটে 1%। অনেকে আবার কংগ্রেসের অজয় মাকেনকে পছন্দ করেছেন।

গতবারের বিধানসভা নির্বাচনের পরিসংখ্যান অনুযায়ী, দিল্লি বিধানসভার 70 টি আসনের মধ্যে একক ভাবে আম আদমি পার্টি পেয়েছিল 67 টি আসন। বিজেপি পেয়েছিল তিনটি আসন। সেবারের বিধানসভা নির্বাচনে কংগ্রেস একটি আসনেও জয়লাভ করতে পারেনি।

তবে এবারের দিল্লী বিধানসভা নির্বাচন কিন্তু যথেষ্ট গুরুত্বপূর্ণ ভারতীয় জনতা পার্টির কাছে। কারণ ইতিমধ্যেই দেশের সবচেয়ে ধনী রাজ্য মহারাষ্ট্র এবং দরিদ্র রাজ্য ঝাড়খন্ড সহ একাধিক জায়গায় পরাজয় ঘটেছে ভারতীয় জনতা পার্টির। তাই দিল্লি নির্বাচন তাদের কাছে সম্মান রক্ষার লড়াই। সেই মোতাবেক নিজের সর্বশক্তি দিয়ে অরবিন্দ কেজরিওয়ালের আম আদমি পার্টির বিরুদ্ধে লড়াইয়ের ময়দানে নেমেছে গেরুয়া শিবির।

তবে এবিপি নিউজ এবং সি ভোটারের এই সমীক্ষা এখন রীতিমত চিন্তার ভাঁজ ফেলেছে গেরুয়া নেতৃত্বের কপালে। তবে সমীক্ষাকে কখনও নির্বাচনের ফল হিসেবে ধরা যায় না। তাই সর্বশেষে নজর রাখতে হবে নির্বাচনের ফলাফলের দিকেই, এমনটাই মনে করছেন রাজনৈতিক বিশেষজ্ঞরা।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!