এখন পড়ছেন
হোম > জাতীয় > বৃহত্তর স্বার্থে কি বাংলাকে বলি দিতে চলেছে দিল্লির কংগ্রেস? নেতৃত্বের সিদ্ধান্তে ক্ষোভ বঙ্গ কংগ্রেসে

বৃহত্তর স্বার্থে কি বাংলাকে বলি দিতে চলেছে দিল্লির কংগ্রেস? নেতৃত্বের সিদ্ধান্তে ক্ষোভ বঙ্গ কংগ্রেসে



গতকাল জাতীয় কংগ্রেস সভাপতি রাহুল গান্ধীর উদ্যোগে ওয়ার্কিং কমিটি গঠিত হল দিল্লিতে। তবে অপ্রত্যাশিত ভাবে এই কমিটিতে জায়গা হল না প্রদেশ কংগ্রেস নেতৃত্বদের। এ নিয়ে রীতিমতো অসন্তুুষ্ট তাঁরা। আজ কংগ্রেসের ওয়ার্কিং কমিটির তালিকা ঘোষিত হলে তাতে দেখা গেলো নাম রয়েছে-রাহুল গান্ধী,সনিয়া গান্ধী,মনমোহন সিং,মোতিলাল ভোরা গুলাম নবি আজাদ,তরুণ গগৈ সহ ২৩ জনের। স্থায়ী এবং বিশেষ আমন্ত্রিতদের তালিকায় রয়েছে ২৮ জনের নাম। কিন্তু আশ্চর্যজনক ভাবে তাতে উল্লেখ নেই বাংলার কোনো নেতা এমকী প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতি অধীর চৌধুরীর নাম।

আরো খবর পেতে চোখ রাখুন প্রিয়বন্ধু মিডিয়া-তে

——————————————————————————————-

 এবার থেকে প্রিয় বন্ধুর খবর পড়া আরো সহজ, আমাদের সব খবর সারাদিন হাতের মুঠোয় পেতে যোগ দিন আমাদের হোয়াটস্যাপ গ্রূপে – ক্লিক করুন এই লিঙ্কে

জানা গেছে,এর আগে কংগ্রেসের ওয়ার্কিং কমিটিতে আমন্ত্রিতদের তালিকায় নাম ছিল মানস ভুঁইঞা, প্রদীপ ভট্টাচার্য,সোমেন মিত্র। এছাড়াও ওয়ার্কিং কমিটির সঙ্গে দীর্ঘদিন নাম জুড়ে ছিল প্রাক্তন রাষ্ট্রপতি তথা কংগ্রেসের বর্ষীয়ান নেতা প্রনব মুখোপাধ্যায়ের। তার আগে ছিলেন সিদ্ধার্থশংকর রায়। কিছুদিনের জন্য ছিলেন প্রিয়রঞ্জন দাশমুন্সি। এবং বিশেষ আমন্ত্রিত হিসাবে ছিলেন বরকত গণিখান। কিন্তু এ বছর সমস্তটার রদ বদল হল জাতীয় কংগ্রেস নেতৃত্বদের তরফ থেকে।

সম্প্রতিই রাহুল গান্ধী প্রদেশ কংগ্রেসের প্রায় সব নেতাদের ডেকে মিটিং করেছিলেন। বঙ্গে কীভাবে কংগ্রেসের সংগঠনের ভীতকে লোকসভা ভোটের আগে মজবুত করা যায় তা নিয়ে বঙ্গ কংগ্রেস নেতৃত্বদের পরামর্শও নিয়েছিলেন তিনি। তারপর হঠাৎ করে কংগ্রেসের ওয়ার্কিং কমিটির তালিকা থেকে কেন প্রদেশ কংগ্রেস নেতৃত্বদের বাদ দেওয়া হল তা নিয়ে রাজনৈতিক মহলে প্রশ্ন উঠছে দফায় দফায়। তবে কী জাতীয় কংগ্রেস সুপ্রিমোর কাছে প্রদেশ কংগ্রেস নেতৃত্বের গুরুত্ব কমছে এ নিয়েও জোর চর্চা চলছে রাজ্যস্তর সহ জাতীয় রাজনীতির অন্দরে। তবে রাজনৈতিক ওয়াকিবহাল মহলের একাংশ আন্দাজ করছেন, যেহেতু এটাতেই ২০১৯ এর লোকসভা ভোটের আঞ্চলিক জোট হবে,তাই এই মুহুূর্তেই অবিজেপি জোটের প্রধান মুখ, বঙ্গের নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে চটাতে চাইছেন না কংগ্রেস সুপ্রিমো। তিনি ভালোভাবেই জানেন, বাংলায় কংগ্রেসের ভিত আপাতত নড়বড়ে। কংগ্রেসের সংগঠনকে মজবুত করে তুলতে গেলে লাগবে তৃণমূলের সাহায্য,তবেই ‘মোদী হটাও’ কর্মসূচি সফল হবে। একারণেই মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে হাতে রাখতেই জাতীয় কংগ্রেসের হাইকমান্ডারের এই সিদ্ধান্ত।

এ প্রসঙ্গে প্রাক্তন কংগ্রেস সভাপতি প্রদীপ ভট্টাচার্য জানান যে,এটা খুবই দুর্ভাগ্যের বিষয়। বঙ্গের কংগ্রেস নেতৃত্বদের নাম তালিকায় থাকার দরকার ছিল। AICC-র কাছে প্রদেশ কংগ্রেসের গুরুত্ব বাড়ছে না কমছে সেটা অন্যকথা। তবে গোটা ঘটনাটাই যে বাংলার মানুষের ভালো লাগবে না, এ ব্যাপারে তিনি নিশ্চিত। আরেক প্রাক্তন প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতি সোমেন মিত্রও রাহুল গান্ধীর সিদ্ধান্তের একরকম সমালোচনাই করলেন। তিনি জানালেন য, রাহুল গান্ধী যে সিদ্ধান্ত নিয়েছেন তা সাধারণত অপ্রত্যাশিত। তবে সিদ্ধান্তটি যেহেতু AICC-র,তাই এ ব্যাপারে তাঁদের কিছু বলার নেই।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!