এখন পড়ছেন
হোম > রাজনীতি > তৃণমূল > “দাদার অনুগামী” পোস্টারের নেপথ্যে কারা! করা করছেন এমন কাজ? যার জেরে বাড়ছে দূরত্ত্ব?

“দাদার অনুগামী” পোস্টারের নেপথ্যে কারা! করা করছেন এমন কাজ? যার জেরে বাড়ছে দূরত্ত্ব?



আপনাদের সুবিধার্থে খবরের শেষে বিধানসভা ২০২১ উপলক্ষে আমাদের করা সর্বশেষ সমীক্ষার প্রতিটির লিঙ্ক দেওয়া আছে।

আপনার মতামত জানান -

প্রিয় বন্ধু মিডিয়া রিপোর্ট –শুভেন্দু অধিকারীকে নিয়ে যখন জল্পনা চরম আকার ধারণ করেছিল, তখন থেকেই রাজ্যের বিভিন্ন জায়গায় “দাদার অনুগামী” দিয়ে পোস্টার পড়তে শুরু করে। যেখানে শুভেন্দু অধিকারীর ছবি দিয়ে তার জয়ধ্বনী করা হয়। কিন্তু আশ্চর্যজনক ভাবে শুভেন্দুবাবু রাজ্যের শাসক দলের শীর্ষ নেতা তথা মন্ত্রী হওয়া সত্ত্বেও, সেই ছবিতে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বা তৃণমূল কংগ্রেসের কোনো নাম নিশান থাকতে দেখা যায়নি। যা নিয়ে নানা মহলে প্রশ্ন তৈরি হয়েছে।

অনেকেই বলতে শুরু করেছেন, তাহলে কি শুভেন্দু অধিকারী দলের সঙ্গে দূরত্ব তৈরি করছেন! তাই তার অনুগামীরা দাদার অনুগামী লিখে তার প্রচার করতে শুরু করে দিলেন! তবে বিভিন্ন জেলায় এই শুভেন্দু অধিকারীর ছবি দিয়ে নানা পোস্টার দেওয়া হলেও, কারা সেই পোস্টটা লাগাচ্ছে, তা খুঁজে বের করাই এখন প্রধান কাজ হয়ে দাঁড়িয়েছে তৃণমূল নেতৃত্বের কাছে। দক্ষিণবঙ্গ থেকে শুরু করে উত্তরবঙ্গ, বিভিন্ন জায়গায় শুভেন্দু অধিকারীকে মুখ করে এই পোস্টার ছড়িয়ে পড়েছে।

স্বাভাবিকভাবেই এখন প্রশ্ন তৈরি হয়েছে, শুভেন্দু অধিকারী এখনও পর্যন্ত তৃণমূল কংগ্রেসের শীর্ষ নেতা। ফলে তার অনুগামীরা অর্থাৎ তৃণমূল কংগ্রেসের কিছু কিছু নেতাকর্মী তার হয়ে এই ধরনের পোস্টার বিভিন্ন জেলায় লাগাতে শুরু করেছেন। তবে শুভেন্দুবাবু যেহেতু দলের শীর্ষ নেতা, সেহেতু তার অনুগামীদের কাছে তিনি নেতা হওয়ার পাশাপাশি দলের নেত্রীর নাম মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। সেক্ষেত্রে শুভেন্দু অধিকারী কি তার অনুগামীদের কাছে সবথেকে বড় হয়ে উঠেছেন!

আর তাই কি সেই শুভেন্দু অধিকারীর দেওয়া ছবিতে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের ছবি বা তৃণমূল কংগ্রেসের নাম পর্যন্ত নেই! আর এখানেই একাংশ আশঙ্কা করছেন যে, এই পোস্টারের মধ্যে দিয়ে কার্যত পরিষ্কার দলের সঙ্গে শুভেন্দু অধিকারীর দূরত্ব আরও তীব্র থেকে তীব্রতর হতে শুরু করেছে। তাই পোস্টারে শুধুমাত্র তার ছবি দিয়ে তার অনুগামীরা “দাদার অনুগামী” বলে প্রচার করতে ব্যস্ত হয়ে পড়েছেন।

স্বাভাবিকভাবেই এই ঘটনা যদি অব্যাহত থাকতে শুরু করে, তাহলে আগামী দিন শুভেন্দু অধিকারীর সঙ্গে তৃণমূলের দূরত্ব ক্রমশ বাড়তে শুরু করবে বলেই মনে করছেন একাংশ। তবে এখনও পর্যন্ত শুভেন্দু অধিকারী দলেই রয়েছেন বলে জানিয়ে দিয়েছেন। রামনগরের সমবায় অনুষ্ঠানের মঞ্চ থেকে তিনি কার্যত স্পষ্ট করে দিয়েছেন, তিনি এখনও তৃণমূল কংগ্রেসে আছেন। তবে ভবিষ্যতে তিনি কী করবেন, সেই ব্যাপারে অবশ্য জল্পনা জিইয়ে রেখেছেন রাজ্যের পরিবহনমন্ত্রী।


WhatsApp-এ প্রিয় বন্ধু মিডিয়ার খবর পেতে – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের অন্যান্য সোশ্যাল মিডিয়া গ্রূপের লিঙ্ক – টেলিগ্রামফেসবুক গ্রূপ, ট্যুইটার, ইউটিউব, ফেসবুক পেজ

আমাদের Subscribe করতে নীচের বেল আইকনে ক্লিক করে ‘Allow‘ করুন।

এবার থেকে আমাদের খবর পড়ুন DailyHunt-এও। এই লিঙ্কে ক্লিক করুন ও ‘Follow‘ করুন।



আপনার মতামত জানান -

বিশেষ সূত্র মারফত খবর, রাজ্যের প্রবীণ তৃণমূল সাংসদ সৌগত রায় ইতিমধ্যেই শুভেন্দু অধিকারীর মান ভাঙানোর জন্য তার সঙ্গে আলোচনা শুরু করেছেন। তবে সৌগতবাবু যখন এই চেষ্টা করছেন, তখন কল্যাণ বন্দ্যোপাধ্যায়ের মত হেভিওয়েট তৃণমূল শীর্ষ নেতা লাগাতার শুভেন্দু অধিকারীর নাম না করে কটাক্ষ করতে শুরু করেছেন। ইতিমধ্যেই শুভেন্দুবাবুকে কটাক্ষ করে কল্যাণ বন্দ্যোপাধ্যায় বলেন, “মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় না থাকলে তো পৌরসভায় আলু বিক্রি করতিস।”

যার পরে পাল্টা একটি সভা থেকে শুভেন্দু অধিকারী বলেন, “শুভেন্দু অধিকারীর পরিবারের প্রতি কোনো জনপ্রতিনিধির অসম্মানজনক মন্তব্যকে কি হুগলির মানুষ মেনে নেবে!” অর্থাৎ তিনি এই মন্তব্যের মধ্য দিয়ে যে কল্যাণ বন্দ্যোপাধ্যায়কেই কটাক্ষ করেছেন, তা স্পষ্ট বিশেষজ্ঞদের কাছে। আর এই পরিস্থিতিতে এবার শুভেন্দু অধিকারীর অনুগামীরা আরও বেশি করে কলকাতা শহরেও তাদের পোস্টার লাগিয়ে দেওয়ায় তৃণমূল নেতৃত্বের চিন্তা ক্রমশ বাড়তে শুরু করেছে।

বিশেষজ্ঞদের মতে, যদি এভাবেই চলতে থাকে, তাহলে তৃণমূলের সঙ্গে শুভেন্দু অধিকারীর দূরত্ব আরও বাড়তে শুরু করবে। স্বভাবতই নির্বাচনের আগে যদি এই প্রবণতা বন্ধ না হয় এবং পোস্টার নিয়ে প্রতিযোগিতা বন্ধ না হয়, তাহলে তৃণমূল এবং শুভেন্দু অধিকারী আড়াআড়িভাবে বিভক্ত হয়ে যেতে পারে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে। যার প্রভাব আগামীদিনে বিধানসভা নির্বাচনে পড়বে বলেই দাবি বিশেষজ্ঞদের। সব মিলিয়ে গোটা পরিস্থিতি কোথায় গিয়ে দাঁড়ায়, সেদিকেই নজর থাকবে সকলের।

একনজরে দেখে নিন আমাদের সর্বশেষ বিধানসভা ২০২১ ওপিনিয়ন পোল –

# মালদহ জেলার ওপিনিয়ন পোল –

# দক্ষিণ দিনাজপুর জেলার ওপিনিয়ন পোল –

# উত্তর দিনাজপুরে জেলার ওপিনিয়ন পোল –

# জলপাইগুড়ি ও কালিম্পঙ জেলার ওপিনিয়ন পোল –

# আলিপুরদুয়ার ও দার্জিলিং জেলার ওপিনিয়ন পোল –

# কুচবিহার জেলার ওপিনিয়ন পোল –

আপনার মতামত জানান -
আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!