এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > এবার শিশুপাচার কাণ্ডে নাম জড়ালো হেভিওয়েট বাম-কাউন্সিলরের

এবার শিশুপাচার কাণ্ডে নাম জড়ালো হেভিওয়েট বাম-কাউন্সিলরের



বেশ কিছুদিন থিতিয়ে থাকার পরে আবার ও রাজ্যে সক্রিয় হয়ে উঠলো শিশু পাচার চক্র। অবাক করে দিয়ে এবার এই চক্রে নাম উঠে এলো এক বাম শরিক দল সিপিআইএম’র সদস্যের।  বজবজ পৌরসভার ১৯ নম্বর ওয়ার্ডের প্রাক্তন পৌরসদস্য প্রবীর সানি সহ আরও দুজনের বিরুদ্ধে ৩ দিনের এক সদ্যোজাত শিশুপুত্রকে পাচারের অভিযোগ উঠলো। ঘটনাটি ঘটেছে ঐ ওয়ার্ডেই ।

আরো খবর পেতে চোখ রাখুন প্রিয়বন্ধু মিডিয়া-তে

জানা যাচ্ছে এলাকার স্থানীয় বাসিন্দারা শেখ হামিদুল ও শেখ সারফুদ্দিনকে ধরতে গেলে তারা শিশুটিকে জঙ্গলে ফেলে রেখে পালিয়ে যায়। তারপরে স্থানীয় লোকজন সূত্রে খবর পেয়ে পুলিশ শিশুটিকে উদ্ধার করে স্থানীয় বেঞ্জন হেড়িয়া ব্লক প্রাথমিক স্বাস্থ্যকেন্দ্রে ভর্তি করে।   স্বাস্থ্যকেন্দ্র সূত্রে জানা গিয়েছে শিশুটি সুস্থ আছে। এদিন রাতেই কাশ্মীর খান নামক জনৈক স্থানীয় অধিবাসী, সিপিআইএম’র প্রাক্তন কাউন্সিলর প্রবীর সানি, শেখ হামিদুল ও শেখ সারফুদ্দিনের নামে বজবজ থানায় শিশুচুরি ও পাচারের অভিযোগ দায়ের করেছেন। অভিযোগকারী স্থানীয় অধিবাসী জনৈক কাশ্মীর খান এদিনের ঘটনা প্রসঙ্গে জানালেন, এদিন অভিযুক্ত শেখ সারফুদ্দিন নিজের বাড়িতে ছিলেন। ঐ সময়ে কাশ্মীর খান তাঁর বাড়ির পাশ দিয়ে যাচ্ছিলেন । সেইসময়ে হঠাৎ ঐ বাড়ি থেকে চিৎকার চেঁচামেচির শব্দ শুনে তিনি ঐ বাড়িতে ঢুকে দেখেন শেখ সারফুদ্দিন তাঁর স্ত্রীকে অত্যন্ত মারধর করছে।

এবার থেকে প্রিয় বন্ধুর খবর পড়া আরো সহজ, আমাদের সব খবর সারাদিন হাতের মুঠোয় পেতে যোগ দিন আমাদের হোয়াটস্যাপ গ্রূপে – ক্লিক করুন এই লিঙ্কে

এবং সেখানে ঐ সদ্যজাত শিশুটিও রয়েছে। তখন কাশ্মীর খান ঐ শিশুটির সম্পর্কে বিস্তারিত জানতে চাইলে  সারফুদ্দিন কোনও উত্তর না দিয়ে উলটে তাঁকে আক্রমন করতে শুরু করেন। প্রবল চেঁচামিচির শব্দ শুনে আসেপাশের বাড়ির সদস্যেরা এরপরে ওই বাড়িতে এলে সারফুদ্দিন ও তার ভাই হামিদুল শিশুটিকে নিয়ে পালিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করে। কিন্তু তারা পালিয়ে যেতে সমর্থ হয়নি। এলাকার মানুষজন তাদের পিছু করলে তারা শিশুটিকে জঙ্গলে রেখে পালিয়ে যায়। পুলিশ সারফুদ্দিনের স্ত্রী সাবিনা বিবিকে জিজ্ঞাসাবাদ করে জানতে পেরেছে মাত্র ৩ দিন আগে শিশুটিকে সিপিএম’র প্রাক্তন কাউন্সিলর প্রবীর সানি তাদের কাছে এনে দেয়। যদিও তদন্তের খাতিরে পুলিশ প্রবীর সানির পরিবারকে জিজ্ঞাসাবাদ করলে তাঁরা সম্পূর্ণ বিষয়টি অস্বীকার করে। পুলসিহ এখনও অবশি অভিযুক্তদের কাউকেই গ্রেফতার করতে পারেনি বলে জানা যাচ্ছে। একই সাথে এখনও অবধি শিশুটির ও কোনো পরিচয় পাওয়া যায়নি। পুলিশ শিশুটির অভিভাবকদেরও খোঁজ চালাচ্ছেন।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!