এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > কলকাতা > শর্তসাপেক্ষে বেতনবৃদ্ধি স্থায়ী-কর্মীদের, খুশির হাওয়া আদালত চত্ত্বরে

শর্তসাপেক্ষে বেতনবৃদ্ধি স্থায়ী-কর্মীদের, খুশির হাওয়া আদালত চত্ত্বরে



রাজ্য সরকারের সুনজর  এবার হাইকোর্টে। রাজ্যের অর্থ দফতর একটি বিজ্ঞপ্তি জারী করে ঘোষণা করলো শর্তসাপেক্ষে কলকাতা হাইকোর্টের স্থায়ী কর্মীদের বিশেষ বেতন বৃদ্ধির বন্দোবস্ত হতে চলেছে। এই বিজ্ঞপ্তিতে আরও জানানো হয়েছে যে  ২০০৬ সালের ১ লা জানুয়ারি থেকে হাইকোর্টএর স্থায়ী কর্মীদের মূল বেতনের উপর ছ’ শতাংশ হারে বেতন বৃদ্ধি করা হবে। এই বেতন বৃদ্ধি বাবদ যে বকেয়া অর্থ হয় তা ২০০৮ সালের এপ্রিল মাস থেকে মিটিয়ে দেওয়া হবে বলে জানা গিয়েছে।

আরো খবর পেতে চোখ রাখুন প্রিয়বন্ধু মিডিয়া-তে

——————————————————————————————-

 এবার থেকে প্রিয় বন্ধুর খবর পড়া আরো সহজ, আমাদের সব খবর সারাদিন হাতের মুঠোয় পেতে যোগ দিন আমাদের হোয়াটস্যাপ গ্রূপে – ক্লিক করুন এই লিঙ্কে

অর্থ দফতরের এই বিজ্ঞপ্তির পরবর্তী অংশে বলা হয়েছে জলপাইগুড়িতে হাইকোর্টের যে নতুন সার্কিট বেঞ্চ চালু হতে চলেছে, সেখানে যে কর্মীরা যাবেন, তাঁদের জন্য এই ছয় শতাংশের ওপরেও আরও তিন শতাংশ বেতন বৃদ্ধি হবে।  এই বিশেষ বেতন বৃদ্ধির সুযোগ পাবেন হাইকোর্টের গেস্ট হাউস ও ওয়েষ্ট বেঙ্গল জুডিসিয়াল অ্যাকাডেমির কর্মীরাও। তবে অর্থ দফতরের বিজ্ঞপ্তির শেষ অনুচ্ছেদে এই বেতন বৃদ্ধির পাশাপাশি একটি বিশেষ শর্তের কথা বলা হয়েছে এবং তার ব্যাখ্যা করা হয়েছে।

এতে বলা হয়েছে, এই বেতন বৃদ্ধি হবে এই শর্তে যে, হাইকোর্টের কর্মী বা তাদের কোনও সংগঠন আর বেতন বৃদ্ধির দাবি তুলবে না। এমনকি এই সংক্রান্ত যে মামলাগুলি আদালতে বিচারাধীন রয়েছে, সেগুলি নিয়েও তারা ভবিষ্যতে এগোবে না। প্রসঙ্গতঃ উল্লেখ্য সরকারী সূত্র মারফত জানা গিয়েছে ১৯৯০ ‘র দশকে হাইকোর্টের কর্মীদের জন্য একটি বিশেষ বেতন কমিশন গঠিত হয়। কিন্তু ওই কমিশনের সুপারিশের ভিত্তিতে এখনও কোনও আর্থিক সুবিধা পাননি কর্মীরা। হাইকোর্টের কর্মীদের বেতন বৃদ্ধির দাবিতে একাধিক মামলা ও দায়ের হয়েছে। রাজ্য সরকার শর্ত সাপেক্ষে বেতন বৃদ্ধি করলেও কর্মীচারীদের মনে শঙ্কা থেকেই যাচ্ছে।

এই শর্তের মেয়াদ সংক্রান্ত বিষয়ে যেহেতু বিজ্ঞপ্তিতে কোনো উল্লেখ নেই তাই স্বাভাবিক ভাবেই প্রশ্ন উঠছে হাইকোর্টের কর্মীরা কতদিন অবধি সরকারী কাজে ত্রুটি দেখলেও মুখ বন্ধ রাখবেন। একই সাথে পরবর্তী সময়ে সরকারি কর্মীদের বেতন বৃদ্ধির সময় এভাবে শর্ত আরোপ করা হবে কি না, তা নিয়ে সংশয় থেকেই যাচ্ছে। যদিও   তৃণমূল কংগ্রেস প্রভাবিত পশ্চিমবঙ্গ সরকারি কর্মচারী ফেডারেশনের মেন্টর কমিটির অন্যতম সদস্য মনোজ চক্রবর্তী নিজের মতামত জানিয়ে বললেন, “বেতন বৃদ্ধির সঙ্গে এভাবে শর্ত আরোপ করা ঠিক নয়।

কোনও কারণে হাইকোর্টের কর্মীদের ক্ষেত্রে এটি হয়তো করা হয়েছে। কিন্তু ষষ্ঠ বেতন কমিশনের সুপারিশের ভিত্তিতে সরকারি কর্মীদের বেতন বৃদ্ধির সময় যেন এটি না করা হয়।” অর্থ দফতরের এই বিজ্ঞপ্তিতে কর্মরত স্থায়ী কর্মীদের বেতন বৃধির পাশাপাশি একথাও বলা হয়েছে যে এই বিশেষ বেতন বৃদ্ধির জন্য কর্মীদের অবসরকালীন প্রাপ্যের ক্ষেত্রে কোনো পরিবর্তন হবেনা। এই বিশেষ বৃদ্ধির বিষয়টি পে-বিলে আলাদাভাবে উল্লেখ করা হবে। বেতনে যে বিশেষ বৃদ্ধি করা হল, তা অপরিবর্তিত থাকবে।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!