এখন পড়ছেন
হোম > রাজনীতি > তৃণমূল > করোনার ভ্যাক্সিনেশন বিষয়ে তৃণমূলকে তীব্র কটাক্ষ কেন্দ্রীয় মন্ত্রীর

করোনার ভ্যাক্সিনেশন বিষয়ে তৃণমূলকে তীব্র কটাক্ষ কেন্দ্রীয় মন্ত্রীর



প্রিয় বন্ধু মিডিয়া রিপোর্ট – গতকাল থেকে দেশজুড়ে শুরু হয়েছে করোনার ভ্যাক্সিনেশন। প্রধানমন্ত্রী ভার্চুয়াল ভাবে যার সূচনা করেছেন। প্রধানমন্ত্রী গতকাল জানিয়ে ছিলেন যে, প্রথম করোনার ভ্যাকসিনের অধিকারী হলেন ডাক্তার, নার্স, হাসপাতাল কর্মী, পুলিশ, পঞ্চায়েত ও পুরকর্মী, সেনারা। করোনা সংক্রমণে ফ্রন্ট লাইনারের ভূমিকা পালন করেছেন যারা। নিজেদের জীবনকে বাজি রেখে মানুষের সেবায় এগিয়ে এসেছেন তাঁরা। কিন্তু গতকাল তৃণমূলের বেশকিছু বিধায়ক, পঞ্চায়েত প্রধান, পঞ্চায়েত সদস্য, বেশকিছু শীর্ষ আধিকারিকও করোনার ভ্যাকসিন নিয়েছেন বলে, তীব্র বিতর্ক উঠেছে।

গতকাল করোনার ভ্যাকসিন নিয়েছেন কাটোয়ার পুর প্রশাসক ও বিধায়ক রবীন্দ্রনাথ চট্টোপাধ্যায়, ভাতারের তৃণমূল বিধায়ক সুভাষ মন্ডল ও এখানকার প্রাক্তন তৃণমূল বিধায়ক বনমালী হাজরা। জানানো হয়েছে, হাসপাতালের রোগী কল্যাণ সমিতির সঙ্গে তাঁরা যুক্ত ছিলেন বলেই, করোনার ভ্যাকসিন তাঁরা কাল পেয়েছেন। আজ এ প্রসঙ্গে শাসকদল তৃণমূলকে তীব্র কটাক্ষ কেন্দ্রীয় প্রতিমন্ত্রী বাবুল সুপ্রিয়র। বিধায়কদের লাইনে দাঁড়িয়ে করোনার ভ্যাকসিন নেবার ঘটনাকে লজ্জাজনক বলে মন্তব্য করলেন তিনি।


ফেসবুকে আমাদের নতুন ঠিকানা, লেটেস্ট আপডেট পেতে আজই লাইক ও ফলো করুন – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের টেলিগ্রাম গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের সিগন্যাল গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে



আপনার মতামত জানান -

কেন্দ্রীয় প্রতিমন্ত্রী বাবুল সুপ্রিয় জানালেন যে, বিধায়কেরা যেভাবে লাইনে দাঁড়িয়ে করোনার ভ্যাকসিন নিয়েছেন, তা অত্যন্ত লজ্জাজনক। একটা দল যখন আদর্শগতভাবে একেবারে তলানিতে গিয়ে পৌঁছায়, তখনই সে দল এমনটা করে থাকে। তিনি কটাক্ষ করেছেন যে, এই দলের নেতারা জানতে পেরেছেন যে, তাদের ওপর মানুষ এতটাই রেগে আছেন যে, তাঁরা যদি নিজেরা টিকা না দেন, তবে মানুষই তাঁদের টিকা দিয়ে দেবেন। মানুষই তাঁদের ইনজেকশন দিয়ে দেবেন। এ কারণে তাঁরা নিজেরাই নির্লজ্জভাবে টিকা নিয়ে নিয়েছেন। তিনি জানালেন অল্পদিনের মধ্যেই পার্লামেন্ট সেশন শুরু হবে। টিকাকরণে তাদের সুযোগ আসবে অনেক পরে। আর এটাই হলো বিজেপির নীতি বলে জানালেন তিনি।

অন্যদিকে, এ প্রসঙ্গে পুরমন্ত্রী ফিরহাদ হাকিম জানালেন যে, বিধায়কেরা আগে গিয়ে করোনার ভ্যাকসিন নিয়ে ঠিক করেননি। তবে, এর সঙ্গে সঙ্গেই তিনি জানালেন যে, কেন্দ্র রাজ্যকে ভ্যাকসিন দিয়ে কোন দয়া করছে না। রাজ্যের কাছ কেন্দ্র থেকে টাকা নিয়েছে এর জন্য। এটা হল জাতীয় স্বাস্থ্য ব্যবস্থা। যার দায়িত্বে থাকে কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্যমন্ত্রকে। তারা যদি এ কাজ না করে, তবে মুখ্যমন্ত্রী আছেন তিনি তার উপযুক্ত ব্যবস্থা করবেন।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!