এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > উত্তরবঙ্গ > একে করোনায় রক্ষে নেই, তার উপরে অতি বৃষ্টিতে বন্যার ভ্রুকুটি বাংলায়? উড়তে চলেছে ঘুম?

একে করোনায় রক্ষে নেই, তার উপরে অতি বৃষ্টিতে বন্যার ভ্রুকুটি বাংলায়? উড়তে চলেছে ঘুম?



প্রিয় বন্ধু মিডিয়া রিপোর্ট একেই রাজ্যের করোনা পরিস্থিতি চরমে। এই পরিস্থিতি সামাল দিতে গিয়ে প্রশাসনকে হতে হচ্ছে প্রবল নাকাল। তার ওপরে আবার নতুন করে আতঙ্ক জাগাচ্ছে উত্তরবঙ্গের প্রবল বর্ষণ। রাজ্যজুড়ে বর্ষার প্রবেশ আগেই ঘটেছে। তবে দক্ষিণবঙ্গের তুলনায় উত্তরবঙ্গে যে বর্ষার প্রকোপ বেশি হবে, সে কথা আগেই জানিয়েছেন আবহাওয়াবিদরা। আবহাওয়াবিদদের ধারণাকে সত্যি করে উত্তরবঙ্গ জুড়ে শুরু হয়েছে প্রবল বর্ষণ। যার ফলে বন্যা এবং ধ্বসের ভ্রুকুটিকে মোটেই এড়ানো যাচ্ছেনা বলে মনে করা হচ্ছে।

অন্যদিকে দক্ষিণবঙ্গের দিকে নজর ফেরালে দেখা যাচ্ছে এবার উত্তরবঙ্গের তুলনায় দক্ষিণবঙ্গে বর্ষার অবস্থান ততটা তীব্র নয়। তবে বৃষ্টি যে একেবারেই হচ্ছেনা তা কিন্তু বলা যাচ্ছেনা। তবে সেক্ষেত্রে বৃষ্টি হলেও ভ্যাপসা গরম কিন্তু রয়েই যাচ্ছে। অন্যদিকে উত্তরবঙ্গের জেলা জুড়ে সকাল থেকে শুরু হয়েছে অতি ভারী বৃষ্টি। আবহাওয়া দপ্তর এর রিপোর্ট অনুযায়ী একদিনে প্রায় 200 মিলিমিটার এর বেশি বৃষ্টি হতে চলেছে উত্তরবঙ্গের জেলাগুলিতে।

হাওয়া অফিসের পূর্বাভাস ছিল আগেই যে আজ আলিপুরদুয়ার, কোচবিহার এর পাশাপাশি নদিয়া, মুর্শিদাবাদ, বীরভূম, পূর্ব বর্ধমান, বাঁকুড়া, পশ্চিম মেদিনীপুরে ভারী বৃষ্টির সম্ভাবনা থাকছে। পাশাপাশি বৃহস্পতিবার দার্জিলিং, আলিপুরদুয়ার ও কোচবিহার জেলাজুড়ে প্রবল বৃষ্টির পূর্বাভাস দেওয়া হয়েছিল। অর্থাৎ উত্তরের পাঁচটি জেলা যথাক্রমে দার্জিলিং, জলপাইগুড়ি, কোচবিহার, আলিপুরদুয়ার এবং কালিম্পংয়ের পাশাপাশি দক্ষিণবঙ্গেও এবার বাড়তে চলেছে বৃষ্টির পরিমাণ।

ফেসবুকে আমাদের নতুন ঠিকানা, লেটেস্ট আপডেট পেতে আজই লাইক ও ফলো করুন – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের টেলিগ্রাম গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের সিগন্যাল গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে



আপনার মতামত জানান -

অন্যদিকে ভুটানসহ উত্তরের জেলাগুলিতে যেভাবে বৃষ্টির পরিমাণ বেড়ে চলেছে প্রতিনিয়ত, তাতে ইতিমধ্যে বেশ কিছু অঞ্চলে হলুদ সর্তকতা জারি করা হয়েছে বলে জানা গেছে। কিন্তু এখানেই শেষ নয়। বৃষ্টিপাতের পরিমাণ আরও বাড়বে বলে জানা গেছে। আর তার ফলে যেকোনো মুহূর্তে বন্যা কবলিত হতে পারে উত্তরের জেলাগুলি। আবহাওয়া দপ্তর সূত্রে জানা যাচ্ছে, আগামী 24 থেকে 48 ঘন্টায় উত্তরের পাঁচ জেলা অতিভারী বৃষ্টির কবলে পড়বে।

অন্যদিকে উত্তরবঙ্গে এত প্রবল বৃষ্টিপাতের কারণ হিসেবে জানা যাচ্ছে, হিমালয়ের পাদদেশে মৌসুমী অক্ষরেখার অবস্থান। প্রসঙ্গত, এ বছর শুধুমাত্র জুন মাসেই যে পরিমাণ বৃষ্টি হয়েছে, তাতেই গত এক যুগের রেকর্ড ভেঙে গেছে বলে মত আবহাওয়াবিদদের। জানা যাচ্ছে, শুধুমাত্র কয়েকটি বিচ্ছিন্ন স্থান বাদ দিলে দেশের কোথাও বৃষ্টিপাতের ঘাটতি নেই। অন্যদিকে পাশাপাশি বাংলা, বিহার, অসমের বেশকিছু অংশ এই প্রবল বর্ষার কারণে বন্যার কবলেও পড়েছে রীতিমত।

এদিকে এই মুহূর্তে করোনার বাড়বাড়ন্ত ঘিরে রাজ্য প্রশাসন যথেষ্ট চাপে। এই অবস্থায় রাজ্যের জেলাজুড়ে বন্যা ও ধ্বসের ভ্রুকুটি স্বাভাবিকভাবেই চিন্তার ভাঁজ ফেলেছে প্রশাসনের কপালে। তবে আবহাওয়াবিদদের কথা অনুযায়ী, যদি প্রবল বর্ষণ হয় তাহলে বন্যা এবং ধ্বসের আশঙ্কার হাত থেকে পুরোপুরি রক্ষা পাওয়া যাবেনা। আর সেক্ষেত্রে জনজীবন বিপর্যস্ত হয়ে পড়বে বলে মনে করা হচ্ছে। অন্যদিকে পরিস্থিতি আয়ত্তে আনতে সক্রিয় হয়ে উঠেছে রাজ্য প্রশাসন বলে জানা গেছে।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!