এখন পড়ছেন
হোম > অন্যান্য > উৎসবের মরসুমেই করোনা ভাইরাস নিয়ে সামনে এলো ভয়ঙ্কর তথ্য,জানুন বিস্তারিত

উৎসবের মরসুমেই করোনা ভাইরাস নিয়ে সামনে এলো ভয়ঙ্কর তথ্য,জানুন বিস্তারিত



প্রিয় বন্ধু মিডিয়া রিপোর্ট– কিছুদিন আগে সমীক্ষায় উঠে এসেছিল করোনা ভাইরাসের সমতল পৃষ্ঠে ১৭ দিন পর্যন্ত বেঁচে থাকার কথা। আর সেই নিয়ে মানুষের চিন্তা-ভাবনা কমতে না কমতেই সামনে এলো চমকে দেওয়া আরও এক তথ্য। সম্প্রতি সমীক্ষার আগের সম্ভাবনাকে মান্যতা দিয়ে বিজ্ঞানীরা বলেছিলেন ভাইরাসটির মিউটেশনের পরে সেটির কার্যকারিতা কমে সাধারণ ফ্লু এর মতোই কাজ করার কথা।

তাই সেক্ষেত্রে বলা হয়েছিল, মানুষ এতে আক্রান্ত হলেও তার প্রভাব দেখা যাবে না ততটা পরিমাণে। তবে সেই ধারণাকে নস্যাৎ করে জানা গিয়েছিল যেখানে ফ্লু ভাইরাস ৩ দিন পর্যন্ত বেঁচে থাকতে পারে, সেখানে যেকোনো সমতলে করোনা ভাইরাসের বেঁচে থাকার আয়ু ১৭ দিন পর্যন্ত হতে পারে। সেই সঙ্গে প্লাস্টিক, মোবাইল ফোনের টাচ স্ক্রিনের মত যে কোন সমতল পৃষ্ঠ এর বেঁচে থাকার সম্ভাবনা নিয়ে কপালে চোখ উঠেছিল সাধারণ মানুষের।

তবে এবার নতুন গবেষণায় উঠে এসেছে ত্বকে করোনাভাইরাস ৯ ঘন্টা পর্যন্ত বেঁচে থাকতে পারে। যেখানে সাধারণ ফ্লু এর জীবাণু বেঁচে থাকে মোটে ১.৮ ঘন্টা। তাহলে আপনিই বুঝে দেখুন এই ভাইরাসের ছড়িয়ে পড়ার কতখানি সম্ভাবনা থাকতে পারে।

আমাদের নতুন ফেসবুক পেজ (Bloggers Park) লাইক ও ফলো করুন – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের টেলিগ্রাম গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের সিগন্যাল গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে



আপনার মতামত জানান -

সেই সঙ্গে গবেষকেরা পরীক্ষা করে দেখেছেন ইথানল প্রয়োগের ফলে ১৫ সেকেন্ডের মধ্যেই ধ্বংস করা যাচ্ছে এই দুই ভাইরাসকেই। আর যেহেতু হ্যান্ড স্যানিটাইজারে ইথানল অ্যালকোহল থাকে, তাই নিত্যদিন হ্যান্ড স্যানিটাইজার কতটা প্রয়োজন সে কথা আলাদা করে বলে দিতে হয় না। সেইসঙ্গে মাস্ক পরা, সামাজিক দূরত্ব পালন করা, কিছুক্ষণ অন্তর অন্তর কুড়ি সেকেন্ড ধরে হাত ভালো করে সাবান দিয়ে ধোয়া এবং বাইরে থাকা অবস্থায় কিছুক্ষণ অন্তর হাতে স্যানিটাইজার দেওয়াটা অত্যন্ত প্রয়োজনীয় বলেই মনে করছেন গবেষকরা।

অন্যদিকে ভারতে উৎসবের মৌসুম শুরু হয়ে গেছে। বিশেষত বাংলায় দূর্গাপূজো একেবারে বাঙালির দোর গোড়ায় এসে উপস্থিত হয়েছে। সেই সঙ্গে উদ্বোধন হয়ে গেছে বেশিরভাগ প্যান্ডেলের। এমন পরিস্থিতিতে করোনাভাইরাস যেভাবে সংক্রমণ ছড়াচ্ছে তাতে বর্তমানে গোটা বিশ্বে প্রায় ৪০ মিলিয়ন মানুষ এতে সংক্রমিত হয়েছেন বলে জানা গেছে।

বিজ্ঞানী গবেষকদের আশঙ্কা, ভারতবর্ষের মতো দেশে করোনা ভাইরাসের দ্বিতীয় ঢেউ আচড়ে পড়তে এখনো বাকি আছে। সুতরাং উৎসবের মরসুমে মানুষ যদি সতর্ক না হয় সেক্ষেত্রে মানুষকে তার স্বাস্থ্যের জন্য বেশ ভালো দাম দিতে হবে বলেই সতর্ক করতে দেখা গেছে চিকিৎসকদের।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!