এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > কলকাতা > করোনার সুযোগে রাজ্যে ঢুকে পড়তে পারে জঙ্গিরা! পুলিশকে বড়সড় নির্দেশ দিলেন মুখ্যমন্ত্রী

করোনার সুযোগে রাজ্যে ঢুকে পড়তে পারে জঙ্গিরা! পুলিশকে বড়সড় নির্দেশ দিলেন মুখ্যমন্ত্রী



রাজ্যের উদ্যোগে বাংলায় ফিরছে পরিযায়ী শ্রমিকরা। পরিযায়ী শ্রমিক বাংলায় আনার পর কয়েকটি নিয়ম মেনে চলার নির্দেশ দিলেন মুখ্যমন্ত্রী। মঙ্গলবার নবান্ন থেকে ভিডিও কনফারেন্সের আয়োজন করা হয়েছিল মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের তরফে। সূত্রের খবর এদিন তিনি ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে পুলিশ সুপারদের সতর্কবার্তা দেন। এদিন মুখ্যমন্ত্রী জানান বাংলার সীমান্ত দিয়ে পরিযায়ী শ্রমিকদের ঢোকানোর সময় প্রবেশ করতে পারে জঙ্গিরা।

সুযোগের সৎ ব্যবহার করে এই সময় বাংলায় জঙ্গি প্রবেশ করার আশঙ্কা করছেন মুখ্যমন্ত্রী। জানা গেছে এদিন তিনি রাজ্যের মালদা, মুর্শিদাবাদ, দুই দিনাজপুর, ঝাড়গ্রাম সহ প্রায় প্রতিটি জেলার পুলিশ সুপারদের এই সতর্কবার্তা দেন। এদিন তিনি সুপারদের নির্দেশ দিয়েছেন প্রতিটি পরিযায়ী শ্রমিকদের প্রবেশের সময় নাম, ঠিকানা সঠিকভাবে মিলিয়ে তবে প্রবেশ করতে দেওয়া যাবে। প্রয়োজনে যেনো তারা ওই পরিযায়ী শ্রমিকদের এলাকায় পৌঁছে সঠিক তথ্যকে ভিত্তি করে তবেই তাদের প্রবেশের অনুমতি দেওয়া হয়, এমনটাই সূত্রের খবর।

আমাদের নতুন ফেসবুক পেজ (Bloggers Park) লাইক ও ফলো করুন – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের টেলিগ্রাম গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের সিগন্যাল গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে



আপনার মতামত জানান -

জানা গেছে এদিন তিনি জেলার পুলিশ সুপারদের উদ্দেশ্যে প্রশ্ন করেন পরিযায়ী শ্রমিক প্রবেশ করানোর সময় স্বাস্থ্য পরীক্ষা সঠিকভাবে হচ্ছে কিনা। সে বিষয় প্রত্যেকেই সঠিকভাবে স্বাস্থ্য পরীক্ষা করা হচ্ছে বলে জানান এবং সেই বিষয় বিস্তারিত রিপোর্ট দেন মুখ্যমন্ত্রীকে। এদিন মালদার জেলা শাসক রাজর্ষি মিত্র জানান পরিযায়ী শ্রমিক প্রবেশের পরই মোট ১১ জনের শরীরে করোনা সংক্রমণ পাওয়া যায়।

সেক্ষেত্রে তাদের কোয়ারেন্টিনে রাখা হয়েছে বলে জানান তিনি । যে সমস্ত এলাকায় ওই করোনা আক্রান্ত রোগীরা রয়েছেন সেই এলাকাগুলিতে কন্টেনমেন্ট জোন হিসাবে ঘোষণা করা হয়েছে জেলার তরফে এমনটাই সূত্রের মারফত খবর। জানা গেছে প্রসঙ্গত মুখ্যমন্ত্রী তাদের উদ্দেশ্যে নির্দেশ দেন রেড জোন থেকে গ্রিন জোনের আওতায় আনতে হবে। পরিযায়ী শ্রমিক রাজ্যে আসার পর রাজ্যে করোনা সংক্রমনের সংখ্যা বেড়েছে।

কার্যত তাদের হোম কোয়ারেন্টিনে রাখতে হবে বলে জানালেন তিনি। তাই এবার কন্টেনমেন্ট জোন হিসাবে চিহ্নিত করা এলাকাগুলোর মধ্যে থেকে এফেক্টেড জোন আলাদা করার নির্দেশ দিলেন মুখ্যমন্ত্রী। সেক্ষেত্রে ওই এলাকা ভুক্ত বাসিন্দারা বাইরে যাতে না বেরোতে পারে তার জন্য করা নিরাপত্তা দিতে হবে। ফলত খাবারের ও অত্যাবশ্যকীয় পন্যের ব্যবস্থা প্রশাসনকেই করতে হবে বলে এদিন নির্দেশ দিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী এমনটাই এক সংবাদ মাধ্যম সূত্রের খবর।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!