এখন পড়ছেন
হোম > জাতীয় > করোনা অবহেলা সরকারি নিষেধাজ্ঞা উড়িয়ে জোর করে মসজিদে নামাজ পড়তে গিয়ে গ্রেফতার হেভিওয়েট সাংসদ

করোনা অবহেলা সরকারি নিষেধাজ্ঞা উড়িয়ে জোর করে মসজিদে নামাজ পড়তে গিয়ে গ্রেফতার হেভিওয়েট সাংসদ



প্রিয় বন্ধু মিডিয়া রিপোর্ট – করোনা পরিস্থিতিতে সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখার কথাই বলা হচ্ছে বারংবার। কিন্তু তা সত্ত্বেও বেশ কিছু মানুষ আছেন, যাদের হুঁশ ফেরেনি। আর তাই তাঁরা নিয়ম ভাঙার খেলায় উঠে পড়ে লেগেছেন। দেশের করোনা পরিস্থিতি যে এখনও কতটা মারাত্মক সে বিষয়ে নিশ্চিত বিশেষজ্ঞরা বারংবার সাবধান করছেন। করোনা পরিস্থিতির দিকে নজর রেখে বিভিন্ন নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়েছে দেশজুড়ে। সামাজিক দূরত্ব এড়াতে মহারাষ্ট্র সরকার মসজিদ বন্ধ করে রেখেছে দীর্ঘদিন ধরেই। কিন্তু মহারাষ্ট্র সরকারকে চ্যালেঞ্জ করে এবার দুর্বিপাকে পড়লেন ঔরঙ্গাবাদ এর এআইএমআইএম সাংসদ ইমতিয়াজ জালিল।

কিছুদিন আগেই তিনি মহারাষ্ট্র সরকারকে হুমকি দিয়েছিলেন মসজিদ না খুললে তিনি রাস্তায় বসে নামাজ পড়বেন। কিন্তু এদিন সরকারি নিষেধাজ্ঞা উপেক্ষা করেই তিনি মসজিদে ঢুকতে যান নামাজ পড়ার জন্য, কিন্তু সে সময় ইমতিয়াজকে আটকে দেন মহারাষ্ট্র পুলিশ। স্থানীয় সূত্রে জানা গিয়েছে, প্রাথমিকভাবে এই সাংসদ মহারাষ্ট্র সরকারকে হুমকি দিয়েছিলেন মসজিদ না খুললে রাস্তায় নামাজ পড়বেন। তারপর থেকেই উত্তেজনা ছড়িয়েছিল এলাকায়। বুধবার সরকারি নিষেধাজ্ঞা উপেক্ষা করেই তিনি শাহগঞ্জ মসজিদে নামাজ পড়তে যাচ্ছিলেন।

আমাদের নতুন ফেসবুক পেজ (Bloggers Park) লাইক ও ফলো করুন – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের টেলিগ্রাম গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের সিগন্যাল গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে



আপনার মতামত জানান -

ঠিক সেইসময় তাঁকে মহারাষ্ট্র পুলিশ আটক করে ঔরঙ্গাবাদ শহরের পুলিশ কমিশনারের অফিসে নিয়ে যায় এবং সেখানেই তাঁকে সরকারি নিষেধাজ্ঞা দেখানো হয় বলে জানা গেছে। এ প্রসঙ্গে ঔরঙ্গাবাদ এর পুলিশ কমিশনার চিরঞ্জীব প্রসাদ জানিয়েছেন, “সরকারি নিষেধাজ্ঞা থাকা সত্ত্বেও ওই সাংসদ নামাজ পড়তে যাচ্ছিলেন তাই তাকে আটক করে সরকারি নিয়মের নতুন নির্দেশিকা দেখানো হয়েছে আগামী দিনে উনি যদি ফের নিষেধাজ্ঞা অমান্য করেন তাহলে কড়া ব্যবস্থা নেওয়া হবে।”

বিশেষজ্ঞদের মতে, বর্তমান পরিস্থিতিতে দেশের প্রত্যেকটি মানুষের নিজের কথা চিন্তা করে, দেশের কথা চিন্তা করে করোনা বিধি মেনে চলা উচিত। সে জায়গায় যদি কেউ ইচ্ছাকৃতভাবে নিয়ম ভাঙেন, তাহলে তাঁর বিরুদ্ধেও কড়া ব্যবস্থা নেওয়া উচিত বলে মনে করা হচ্ছে। যদিও এই ঘটনার পরিপ্রেক্ষিতে এআইএমআইএম এর পক্ষ থেকে এখনো পর্যন্ত কিছু প্রতিক্রিয়া পাওয়া যায়নি। আপাতত দেশের করোনা পরিস্থিতির দিকেই এখন সবার নজর।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!